সংস্কার কাজে ঠিকাদারের টালবাহানা, দুর্ভোগ

বাংলারজমিন

মুহাম্মদ হাবীবুল্লাহ হেলালী, দোয়ারাবাজার (সুনামগঞ্ | ১৩ জুলাই ২০১৯, শনিবার
দোয়ারাবাজার-বৃটিশ ট্রামরোড সংস্কার কাজে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের টালবাহানায় সড়কটি যেন এখন মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। চলাচল অনুপযোগী উপজেলার প্রধানতম ওই সড়কটি দীর্ঘ কয়েক বছরের ভোগান্তির পর সংস্কার কাজ শুরু হলে উপজেলাবাসীর মাঝে আশার সঞ্চার হয়। কিন্তু কাজ শুরু করেই সংস্কার কাজে ঠিকাদারের পিছুটানে চরম দুর্ভোগ নেমে আসে তিন ইউনিয়নের মানুষের। নিয়ম অনিয়মের মধ্যে ভাঙা গড়ার কারণে অনেকটা খুঁড়িয়ে চলে সংস্কার কাজ। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ওই সড়ক সংস্কারের কাজ পান স্থানীয় একজন ঠিকাদার। কিন্তু বড় বাজেটের প্রকল্পের কাজ করতে স্থানীয় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান অনাগ্রহী হলে পুনরায় এর টেন্ডার হয়। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে দোয়ারাবাজার-বৃটিশ পয়েন্ট হয়ে বালিউড়া বাজার পর্যন্ত ২২ কোটি টাকা ব্যয়ে সংস্কার কাজ পায় লক্ষ্মীপুর-ফরিদপুর কন্ট্রাকশন নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। গেল বছরের ২০শে অক্টোবর সংস্কার কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন স্থানীয় সাংসদ মুহিবুর রহমান মানিক।

শুষ্ক মৌসুমে সংস্কার কাজ শুরু হলেও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের খামখেয়ালিপনায় ধীরগতি যেন লেগেইে আছে। বিগত ৬ মাসেরও বেশি সময় ধরে খুঁড়িয়ে চলছে সংস্কার কাজ। সঠিক ও নিয়মতান্ত্রিক কাজে নেই তেমন কোনো তদারকিও। দীর্ঘ দিন সংস্কার কাজ বন্ধ থাকার পর গত সপ্তাহে বৃটিশ পয়েন্ট থেকে ঢালাইয়ের কাজ শুরু করা হয়। প্রথম দিনেই মেশিন সমস্যা ও নিম্নমানের নুড়িপাথর ব্যবহারের অভিযোগে উপজেলা এলজিইডি কর্তৃপক্ষ ঢালাই কাজ সাময়িকভাবে বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়।
ঢালাই কাজের শুরুর ১৫ দিনও ঠিকাদারি কর্তৃপক্ষ ৫০০ গজ ঢালাই সমপন্ন করতে পারেনি। নানা অজুহাতে সংস্কার কাজ এখন বন্ধ। যেন নিয়ম অনিয়মের বেড়াজালে বন্দি হয়ে পড়েছে বৃটিশ সড়কের নির্মাণ কাজ।
২২ কোটি টাকা ব্যয়ে দোয়ারাবাজার-বাংলাবাজার সড়কের বৃটিশ পয়েন্ট হয়ে বালিউড়া বাজার পর্যন্ত সংস্কার কাজ করার কথা। কিন্তু ঠিকাদার ধারাবাহিক কাজের আদলে বিচ্ছিন্নভাবে কাজ শুরু করায় কাজের ধীরগতি যেন লেগেই আছে। অভিযোগ রয়েছে, কাজের শুরু থেকে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সরকারি কোন নিয়ম-নীতি তোয়াক্কা করছে না। তাছাড়া ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান স্বত্বাধিকারী সালেহ ইসলাম নিযুক্ত প্রতিনিধিদের মাধ্যমে কাজ করানোর ফলে প্রকল্পের ডিজাইন ও রোল উপেক্ষা করা হচ্ছে। অভিযোগ উঠেছে, কাজের অনিয়ম নিয়ে স্থানীয়রা কথা বললে চাঁদাবাজি মামলা ও র‌্যাবের ভয়ভীতি দেখান ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের লোকজন। এ নিয়ে স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে ঠিকাদারের লোকজনের মধ্যে একাধিকবার ঝগড়াঝাটিও হয়েছে।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে উপজেলা এলজিইডি কর্মকর্তা হরজিত সরকার বলেন, বড় প্রকল্পের কাজ তো তাই একটু ধীরগতিতেই চলছে। তাছাড়া অনিয়মের কোনো সুযোগ নেই। সার্বক্ষণিক আমরা তদারকি করছি। নুড়িপাথর সমস্যায় ও অব্যাহত ভারী বর্ষণের কারণে ঢালাই কাজ বন্ধ রয়েছে। দ্রুত যাতে কাজ শুরু করেন এজন্য ঠিকাদারকে প্রেসার দেয়া হচ্ছে।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

সাওতালরা যেন নিজ ভূমে পরবাসী

সদরঘাটে ভবন ধসে বাবা ছেলে নিখোঁজ

পিএইচডি ডিগ্রি অর্জনের পথে মুশফিক!

বরগুনায় প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে গ্রেপ্তার ৩

গোয়েন্দা সংস্থার পরিচয়ে সচিবালয়ে তদবির করতে গিয়ে ধরা

এইচএসসিতে ফেল করায় আত্মহত্যা

বিড়ালে খাওয়া খাবার খেলেন রোগী (ভিডিও)

ডেঙ্গু নিধনের ওষুধে ভোজাল কি না, তদন্তের নির্দেশ: হাইকোর্ট

এবার এইচএসসিও পাস করলেন সেই মা

চৌদ্দগ্রামে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩

এইচএসসিতে পাশের হারে দেশসেরা কুমিল্লা

মিন্নি ৫ দিনের রিমান্ডে

মিয়ানমারের শীর্ষ জেনারেলদের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা আরোপ

আদালতের নিরাপত্তায় কী ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে

বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে বাংলাদেশের গ্রুপে ভারত

গাইবান্ধার সঙ্গে সারাদেশের রেল যোগাযোগ বন্ধ, ৪ উপজেলা বিচ্ছিন্ন