ভূঞাপুরে রাস্তা সংস্কারের নামে অনিয়মের অভিযোগ

বাংলারজমিন

ভূঞাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি | ১৩ জুলাই ২০১৯, শনিবার
টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার নিকরাইল ইউনিয়নের সিরাজকান্দী বাজার থেকে নিকরাইল বাজার পর্যন্ত ভালো রাস্তা সংস্কারের জন্য দেয়া হয়েছে অতিরিক্ত অর্থ বরাদ্দ। আর সংস্কারের নামে রাস্তাটির কাজে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা। তাদের অভিযোগ কর্তৃপক্ষের যোগসাজশে ভালো সড়কে সংস্কার কাজের নামে হাতিয়ে নেয়া হচ্ছে লাখ লাখ টাকা।

জানা যায়, ২০১৮-১৯ অর্থ সালের গ্রাম সড়ক পুনর্বাসন প্রকল্পের আওতায় সিরাজকান্দী বাজার থেকে নিকরাইল বাজার পর্যন্ত সড়কটির প্রস্তাব পেশ করে ভূঞাপুর স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর। পরে ১৯৭৫ মিটার (প্রায় দুই কিলোমিটার) সড়ক সংস্কারের জন্য বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ৭১ লাখ ৭২ হাজার ২৯৫ টাকা। কাজটি পায় রোহান এন্টারপ্রাইজ নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। প্রাক্কলনে সড়কের দু’পাশে মাটি ভরাট, পুরাতন সড়কের বেডে পাঁচ ইঞ্চি পুরুত্বের প্রথম শ্রেণির নতুন খোয়া ও বালু দিয়ে ভরাট, দু’পাশে এজিং স্থাপন, ক্ষতিগ্রস্ত অংশে সাব-বেইজ, আরসিসি প্যালাসাইটিং, ২৫ মিলিমিটার ডেন্স কার্পেটিংসহ আনুষঙ্গিক কয়েকটি বিষয়ের জন্য বরাদ্দ দেয়া হয় এ অর্থ। তবে এসব অধিকাংশ কাজেই নিময়নীতি অনুসরণ করা হয়নি। প্রশ্ন উঠেছে স্বল্প দূরত্বের সড়ক সংস্কারে বিপুল অঙ্কের বরাদ্দ নিয়ে।

স্থানীয় ফজলু মিয়া, হাসান আলী, নুরুল হক ও ছাত্তার জানান, রাস্তার পুরাতন বেডের পিচ অপসারণ না করে পুরাতন বেডের উপরই করা হচ্ছে পিচ ঢালাই।
সড়কের দু’পাশে মাটি ভরাট করার কথা থাকলেও তা না করে কিছু জায়গায় বাঁশ ও টিন দিয়ে বেড়া দেয়া হয়েছে। সাব-বেইজে নতুন মালামাল ধরা হলেও তা ব্যবহার করা হয়নি। ৮০ শতাংশ অংশে ৫ ইঞ্চি পুরুত্বের খোয়া বালু দিয়ে ভর্তি করার কথা

থাকলেও তা মানা হয়নি। তারা যেভাবে কাজ করছে তাতে মনে হয় এই কাজে সর্বোচ্চ ব্যয় হবে ১৫-২০ লাখ টাকা। এরকম কাজ করার থেকে না করাই ভালো ছিল। আগের রাস্তাটিই এর থেকে অনেক ভালো ছিল। তাই সড়ক নির্মাণ ও সংস্কার কাজের অনিয়ম বন্ধে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের যথাযথ নজরদারি কামনা করেছেন তারা।
এসব অনিয়মের বিষয়ে ঠিকাদারি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলতে চাইলে তারা কথা বলতে রাজি হয়নি।
এবিষয়ে ভূঞাপুর এলজিইডির সহকারী প্রকৌশলী সানোয়ার হোসেন জানান, রাস্তাটি অনেক ভাঙা ছিল। তাই টেন্ডার করানো হয়েছে। এই রাস্তায় সংস্কার কাজে কোনো অনিয়ম হয়নি। প্রাক্কলন অনুযায়ী যথাযথভাবেই কাজ বুঝে নেয়া হচ্ছে।

ভূঞাপুর এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী আলী আকবর খান জানান, আমার অফিসের লোক দিয়ে সবসময় দেখাশোনা করানো হচ্ছে। ডিজাইন মোতাবেক কাজ হয়েছে। এখানে কোনো অনিয়ম করার সুযোগ নেই এবং এই কাজে যে ব্যয় ধরা হয়েছে তা যৌক্তিক। এর থেকে কম টাকা হলে রাস্তার কাজের মান ভালো হতো না বলে জানান তিনি ।॥




এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু

সাওতালরা যেন নিজ ভূমে পরবাসী

দুই পরীক্ষায় ‘এ’ পেয়েছেন নুসরাত, সহপাঠীদের কান্না

পিএইচডি ডিগ্রি অর্জনের পথে মুশফিক!

বরগুনায় প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে গ্রেপ্তার ৩

গোয়েন্দা সংস্থার পরিচয়ে সচিবালয়ে তদবির করতে গিয়ে ধরা

এইচএসসিতে ফেল করায় আত্মহত্যা

বিড়ালে খাওয়া খাবার খেলেন রোগী (ভিডিও)

ডেঙ্গু নিধনের ওষুধে ভোজাল কি না, তদন্তের নির্দেশ: হাইকোর্ট

এবার এইচএসসিও পাস করলেন সেই মা

চৌদ্দগ্রামে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩

এইচএসসিতে পাশের হারে দেশসেরা কুমিল্লা

মিন্নি ৫ দিনের রিমান্ডে

মিয়ানমারের শীর্ষ জেনারেলদের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা আরোপ

আদালতের নিরাপত্তায় কী ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে

বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে বাংলাদেশের গ্রুপে ভারত