পানির তলে চট্টগ্রাম

দেশ বিদেশ

ইব্রাহিম খলিল, চট্টগ্রাম থেকে | ৯ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ২:১৩
শুধু নিচু এলাকা নয়। সড়ক-মহাসড়কও খোঁজে পাওয়া মুশকিল। দু’চোখ যেদিকে যায় সেদিকে পানি আর পানি। দালান ছাড়া কোনো চিহ্নই যেন মিলছে না। কোথাও গলা, কোথাও কোমর, আবার কোথাও হাঁটু সমান পানিতে তলিয়ে গেছে চট্টগ্রাম। যানবাহন তো চলছেই না। দোকানপাটও বন্ধ। মিলছে না হাটবাজারও।
গতকাল সোমবার সকাল থেকে এমনি অচল হয়ে পড়ে দেশের ব্যস্ততম বাণিজ্যনগরী চট্টগ্রাম। পতেঙ্গা আবহাওয়া অফিস জানায়, মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে মাত্র এক রাতের মাঝারি বৃষ্টিতে এমন অবস্থা এই বাণিজ্যনগরী চট্টগ্রামের। পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা ভেঙে পড়ায় বৃষ্টির পানিতে থই থই করছে বলে স্বীকার করেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শামসুদ্দোহা। তিনি জানান, চট্টগ্রাম মহানগরীতে পানি সরবরাহ নিশ্চিত করতে নগরজুড়ে সড়ক-মহাসড়ক খোঁড়াখুঁড়ি করছে ওয়াসা। এ কারণে নগরীর পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা পুরোপুরি ভেঙে পড়েছে। ফলে সিটি করপোরেশন জলাবদ্ধতা নিরসনে কাজ করলেও তা কাজে আসেনি। অন্যদিকে জলাবদ্ধতা নিরসনে প্রায় ৮ হাজার কোটি টাকার ৩টি মেগা প্রকল্প তিন বছর ধরে হাতে নিয়ে বসে আছে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ। নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে কোনো কাজ করেনি তারা। ফলে নগরবাসীকে প্রতি বছরের মতো এবারও জলাবদ্ধতার শিকার হতে হলো। এ বিষয়ে জানতে চাইলে চউক চেয়ারম্যান জহিরুল আলম দোভাষ বলেন, প্রকল্প হাতে নিয়ে বসে নেই চউক। গত বছর বর্ষা থেকে প্রকল্পের কাজ শুরু হয়। সেই থেকে ১১ খালের পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থার উন্নয়ন কাজ করেছে চউক। প্রকল্প কাজ অব্যাহত রয়েছে বলে দাবি করেন তিনি।
চট্টগ্রাম ওয়াসার উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক (প্রশাসন) গোলাম হোসেন বলেন, নগরীর কথা বলব কী? ওয়াসা ভবনের নিচতলায়ও পানি ওঠে গেছে। ফলে ব্যাংকসহ সব অফিসের কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। পামপ বসিয়ে পানি নিষ্কাশন করা হচ্ছে।
সূত্র জানায়, মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে গত শনিবার দুপুর থেকে চট্টগ্রাম মহানগরীতে টিপটিপ বৃষ্টি শুরু হয়। যা রোববার দিনভর চলে। কিন্তু রোববার রাত থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাতে নগরীর নিচু এলাকা ডুবে এখন সড়ক-মহাসড়কও খোঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।
ফলে নগরীতে যানবাহন চলাচল প্রায় বন্ধ। অপরিকল্পিতভাবে নির্মিত নগরীর ৫টি ফ্লাইওভারেও পানি জমে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে পড়েছে। এতে অফিস-আদালত ও গার্মেন্ট কারখানাসহ বিভিন্ন কারখানার শ্রমিক এবং স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের যাওয়া-আসায় অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে।   
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বৃষ্টিপাতের ফলে নগরীর বহদ্দারহাট, চকবাজার, মুরাদপুর, কাপাসগোলা, চন্দনপুরা, কোতোয়ালি, অক্সিজেন, ষোলশহর ২নং গেট, ওয়াসা মোড়, হামজারবাগ, মোহাম্মদপুর, শুলকবহর, হালিশহর, আগ্রাবাদ কে ব্লক, প্রবর্তক, বাকলিয়া, মোহরা, পতেঙ্গা, অলঙ্কার, পাহাড়তলিসহ নগরীর দুই তৃতীয়াংশ এলাকা বৃষ্টির পানিতে থই থই করছে।
এসব এলাকার কোথাও গলা, কোথাও কোমর, কোথাও হাঁটু পানি জমে রয়েছে। সড়ক থেকে হাটবাজার, স্কুল কলেজ, সরকারি অফিস, দোকানপাট, মার্কেট, বসতঘর ও বস্তিগুলো ডুবে রয়েছে। দালান ছাড়া কোনো চিহ্নই এখন মিলছে না। ফলে যাতায়াতে মানুষকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।   
গতকাল সোমবার কর্মস্থলে যাওয়ার মুহূর্তে মুরাদপুর এলাকায় কোমর সমান পানিতে দাঁড়িয়ে আমিন চৌধুরী নামে এক পথচারী বলেন, সামান্য বৃষ্টিতেই পানি উঠে নগরীর সড়কগুলো ডুবে রয়েছে। সড়ক খোঁজে না পাওয়ায় যানবাহন চলাচল করতে পারছে না। এতে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে।
তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী চট্টগ্রাম মহানগরের জলাবদ্ধতা নিরসনে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষকে দায়িত্ব দিয়েছেন। কিন্তু সংস্থাটি কোনো কাজই করছে না। শুধু জলাবদ্ধতার নিরসনের নামে ইটিং, মিটিং ও সিটিং করে যাচ্ছে।
চকবাজার এলাকার বাসিন্দা ও কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের কর্মকর্তা মো. মিয়াজি বলেন, সকাল সাড়ে ৮টা থেকে বৃষ্টির মধ্যে কোমর সমান পানিতে দাঁড়িয়ে ছিলাম একটি রিকশার জন্য। অনেক কষ্টে রিকশা পেলেও সুযোগ বুঝে চারগুণ বেশি ভাড়া নিয়েছে রিকশাওয়ালা।
নগরীর আগ্রাবাদ এলাকার বাসিন্দা নূরজাহান বেগম জানান, রাতেই তাঁর ঘরের ভেতরে পানি ঢুকেছে। এতে খাটের ওপর বসে ঘরের সবাইকে রাত কাটাতে হয়েছে। রান্নাবান্না করতে না পারায় শুকনো খাবার খেয়ে রোজা রেখেছে পরিবারের সবাই।
নগরীর সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক সোহেল বলেন, আগ্রাবাদ এলাকার সবক’টি সড়ক তলিয়ে গেছে। গাড়ি চালানোর সড়ক খোঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। এ অবস্থায়, একটি গর্তে পড়ে তাঁর অটোরিকশা নষ্ট হয়ে গেছে। পরে অনেক কষ্টে গর্ত থেকে অটোরিকশাটি উদ্ধার করে মিস্ত্রির কাছে দিয়েছেন।
পতেঙ্গা আবহাওয়া অফিসের সহকারী আবহাওয়াবিদ প্রদীপ কান্তি নাথ জানান, গতকাল সোমবার দুপুর ১টা পর্যন্ত আগের ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামে ১৩৬ দশমিক ৪ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে পতেঙ্গা আবহাওয়া অফিস। পরবর্তী ২৪ ঘণ্টায় আরো বৃষ্টিপাত হতে পারে। সমুদ্র বন্দরগুলোকে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।
তিনি জানান, বিকালের দিকে বঙ্গোপসাগরে প্রবল জোয়ার সৃষ্টি হতে পারে। এতে চট্টগ্রাম মহানগরীর আরো নতুন এলাকা পানির নিচে তলিয়ে যেতে পারে। ফলে ওইসব এলাকায় পানির উচ্চতা আরো বাড়তে পারে। এতে যানবাহন ও মানুষের চলাচলে সাবধানতা অবলম্বন করতে বলা হয়েছে। এ ছাড়া পাহাড় ধসের সতর্কবার্তার কথাও বলেন তিনি।
এদিকে, পাহাড় ধস ঠেকাতে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ঝুঁকিপূর্ণ বসতি সরিয়ে নিতে মাইকিং করা হচ্ছে। ঝুঁকিপূর্ণ পাহাড়ের আশপাশে ৯টি আশ্রয়কেন্দ্র খোলার কথা জানিয়েছেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মো. ইলিয়াছ হোসেন।
তিনি বলেন, বর্ষণে পাহাড় ধসের শঙ্কায় জেলা প্রশাসন ঝুঁকিপূর্ণ পাহাড়ের পাদদেশ থেকে বাসিন্দাদের সরিয়ে নিচ্ছে। রেড ক্রিসেন্ট নিয়ন্ত্রণ কক্ষ চালু করেছে। মেডিকেল টিম গঠন করেছে জেলা সিভিল সার্জন অফিস।
এদিকে, মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে বৃষ্টিপাত হলেও দেশের চট্টগ্রাম বন্দরের কার্যক্রম স্বাভাবিক রয়েছে। নির্দিষ্ট সময়মত জাহাজ জেটিতে নোঙর করছে। পণ্য ওাঠানামা সচল রয়েছে বলে জানিয়েছেন চট্টগ্রাম বন্দরের পরিচালক (পরিবহন) এনামুল করিম।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ইনস্টাগ্রামে এক পোস্টেই কোহলির আয় ১৬ লাখ টাকা!

‘বালিশ দুর্নীতে জড়িত সরকারি ৩৪ কর্মকর্তা’

গাজীপুরে মেয়েকে ধর্ষণের দায়ে বাবার যাবজ্জীবন

আদালত বললেন, আমাদের দরকার বিশুদ্ধ পানি

স্বামীর লিঙ্গ কেটে দিলো স্ত্রী

পাকিস্তান যুক্তরাষ্ট্রকে সত্য বলে নি

‘ছেলেধরা’ আতঙ্কে বিদ্যালয়ে উপস্থিতি কম

প্রিয়া সাহা অন্যায় করেননি: সীতাংশু গুহ

কাশ্মির নিয়ে ট্রাম্পের মন্তব্যকে কেন্দ্র করে ভারতের পার্লামেন্ট উত্তপ্ত

নিষিদ্ধ হলেন আর্জেন্টাইন তারকা মেসি

যুদ্ধবিমানের আকাশসীমা লঙ্ঘনের জন্য দুঃখ প্রকাশ রাশিয়ার

বান্দরবানে আ. লীগ নেতাকে গলাকেটে হত্যা

মন্ত্রীপরিষদে নারীর সংখ্যা বাড়াবেন বরিস জনসন

শিমলায় বাংলাদেশী রাজনীতিকের ছেলের ‘আত্মহত্যা’

রাজধানীর দুই পুলিশ বক্সের কাছ থেকে বোমা উদ্ধার

কক্সবাজারের ‘বন্দুকযুদ্ধে’ রোহিঙ্গাসহ নিহত ২