র‌্যাব পরিচয়ে তুলে নেয়ার দুই মাসেও যুবলীগ সভাপতির সন্ধান মেলেনি

দেশ বিদেশ

ফেনী প্রতিনিধি | ৮ জুলাই ২০১৯, সোমবার | সর্বশেষ আপডেট: ১:২৯
ফেনীর সোনাগাজী উপজেলার চরচান্দিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের ৫নং ওয়ার্ড সভাপতি গাজী মিলনকে (৪৫) র‌্যাব পরিচয়ে তুলে নেয়ার দু’মাসেও সন্ধান মেলেনি। তার সন্ধান পেতে পরিবারের সদস্যরা একাধিকবার সোনাগাজী মডেল থানা, গেলা গোয়েন্দা অফিস, পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) ফেনী অফিস ও র‌্যাব-৭ ফেনী ক্যাম্পে বারবার ধরনা দিয়েও কোনো সদুত্তর পায়নি। নিখোঁজ যুবলীগ নেতা গাজী মিলনের স্বজনা রোববার সকালে ফেনী শহরের একটি রেস্তরাঁয় সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান। যুবলীগ নেতা গাজী মিলন সোনাগাজী উপজেলার চরচান্দিয়া গ্রামের ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুস সামাদের ছেলে।
লিখিত বক্তব্যে নিখোঁজ মিলনের ছেলে আবদুল্লাহ আল নোমান বলেন, সোনাগাজী উপজেলার চরচান্দিয়া ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি ও গাজী মিলনকে গত ৫ই মে দুপুরে নিজ এলাকায় জাহাঙ্গীর ডাক্তারের ফার্মেসি থেকে র‌্যাব পরিচয়ে সাদা পোশাকধারী ৬-৭ জন একটি কালো রঙের মাইক্রোবাসে তুলে স্থানীয় ওলামা জাবার থেকে পশ্চিম দিকে নিয়ে যায়। তারপর পরিবারের পক্ষ থেকে সোনাগাজী মডেল থানা ও ফেনীতে র‌্যাব ক্যাম্পে যোগাযোগ করা হয়। কিন্তু তারাও কোনো ধরনের খোঁজখবর দিতে পারেননি।
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, গাজী মিলন নিখোঁজের বিষয়ে সোনাগাজী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়েছে এবং র‌্যাব ক্যাম্পে লিখিত আবেদন করা হয়েছে। তাদের বাড়ির পার্শ্ববর্তী ‘র‌্যাব সোর্স’ হিসেবে পরিচিত সেন্টু এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকলেও র‌্যাব কর্মকর্তাদের কাছে লিখিত অভিযোগে সেন্টুর নাম লিখলে র‌্যাব সেই আবেদনটি গ্রহণ করেনি।
র‌্যাবের পরামর্শে পরে সেন্টুর নাম বাদ দিয়ে নতুন অভিযোগ দিলে র‌্যাব অভিযোগপত্রটি গ্রহণ করে। তবে র‌্যাব কর্মকর্তারা এ নামে কোনো ব্যক্তিকে নিয়ে যায়নি বলে তাদের জানান। গত দুই মাস ধরে সম্ভাব্য সকল স্থানে খোঁজাখুঁজি করে গাজী মিলনের সন্ধান না পেয়ে অবশেষে তার পরিবার সংবাদ সম্মেলন করে। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত মিলনের স্ত্রী আকলিমা বেগম জানান, গত বছর এপ্রিল মাসে সোনাগাজী মডেল থানার ওসি (বর্তমানে সাসপেন্ড) মোয়াজ্জেম হোসেন তার স্বামীকে আটক করে স্থানীয় একটি ডাকাতি মামলায় গ্রেপ্তার দেখাবে বলে ৫ লাখ টাকা দাবি করে। তারা টাকা দিতে ব্যর্থ হলে পার্শ্ববর্তী ইউনিয়নের অপর একটি ডাকাতি মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে মিলনকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করে। পরে জামিনে মিলন মুক্তি পায়। সংবাদ সম্মেলনে মিলনের ভাইয়ের স্ত্রী জেসমিন আক্তারসহ পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। এ বিষয়ে জানতে র‌্যাব-৭, ফেনী ক্যাম্পে যোগাযোগ করা হলে ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক সহকারী পুলিশ সুপার মো. জুনায়েদ জাহেদী জানায়, ‘গাজী মিলন নামে র‌্যাব কাউকে আটক করেনি। তবে তারা পরিবারের পক্ষ থেকে নিখোঁজের আবেদন পেয়ে খোঁজখবর নিয়েছেন, কিন্তু তার (গাজী মিলন) কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি।’



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

প্রিয়া সাহাকে আইনের আওতায় আনার দাবি ১৪ দলের

ফ্রান্সে পানিতে বিষাক্ত পদার্থের অস্তিত্ব, সতর্ক থাকার নির্দেশ

গণপিটুনিতে জড়িতদের আইনের আওতায় আনা হবে: পুলিশ সদর দপ্তর

জবি ছাত্রলীগের সম্মেলনে কর্মীর মৃত্যু

এইচএসসিতে ফেল করায় আত্মহত্যা

ইজিবাইক থেকে নামিয়ে ধর্ষণের পর ছাত্রীকে নৃশংসভাবে হত্যা

সোনাগাজীতে সেফটি ট্যাংকির উপর গৃহবধুর লাশ

ভারতে ৬ রাজ্যে নতুন গভর্নর নিয়োগ

এক ডজন ছাত্রীকে যৌন হয়রানি করেন ইউসুফ

মারা গেছেন দিল্লির প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী শীলা দিক্ষিত

মিন্নির পক্ষে লড়বেন ঢাকার আইনজীবীরা

পানিতে ডুবে দুই ভাইয়ের মৃত্যু

বন্যায় ৭২ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষনা

‘প্রিয়া সাহা রাষ্ট্রদ্রোহিতার অপরাধ করেছেন’

প্রিয়া সাহার বাসার সামনে বিক্ষোভ

বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ, অত:পর......