ছাত্রীনিবাস থেকে স্কুলছাত্রীর লাশ উদ্ধারের ঘটনায় পরিচালকসহ গ্রেপ্তার ৩, মানববন্ধন

বাংলারজমিন

শেরপুর প্রতিনিধি | ৮ জুলাই ২০১৯, সোমবার | সর্বশেষ আপডেট: ১২:০৮
শেরপুর শহরের সজবরখিলা এলাকার ফৌজিয়া মতিন পাবলিক স্কুলের ছাত্রীনিবাস থেকে আনুশকা আয়াত বন্ধন (১৪) নামে নবম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। শনিবার দুপুরে ওই লাশ উদ্ধার করা হয়। বন্ধন শ্রীবরদী উপজেলার পূর্ব ছনকান্দা গ্রামের ওমান প্রবাসী আনোয়ার জাহিদ বাবু মৃধার মেয়ে। এ ঘটনায় রাতে হত্যা মামলা দায়েরের পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে প্রধান আসামি ফৌজিয়া মতিন পাবলিক স্কুলের পরিচালক আবু ত্বাহা সাদী (৫২) সহ ৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। অন্য দুজন হচ্ছে সাদীর স্ত্রী নাজনীন মোস্তারি নূপুর (৪৫) ও তার বড়ভাই শিবলী (৬০)। ওই স্কুলের সঙ্গেই থাকা বাসায় বসবাস করতেন সাদী ও তার পরিবারের লোকজন। রোববার সকালে ৭ দিনের পুলিশ রিমান্ডের আবেদনসহ তাদের আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। জানা যায়, বন্ধন শহরের সজবরখিলা এলাকাস্থ বেসরকারি ফৌজিয়া মতিন পাবলিক স্কুলের ছাত্রীনিবাসে থেকে নবম শ্রেণিতে পড়াশোনা করছিল।
শনিবার সকালে বন্ধনকে নিজ কক্ষে ওড়না পেচিয়ে ঝুলে থাকতে দেখে এক ছাত্রী চিৎকার দিলে স্কুল কর্তৃপক্ষ তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে প্রেরণ করে। পরে কর্তব্যরত চিকৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এসময় বন্ধনের পরিবারের লোকজন দাবি করে, তাকে হত্যার পর আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দিতে লাশ ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। এরপর পুলিশ সুপার কাজী আশরাফুল আজীম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। ওই ঘটনায় শহরে শুরু হয় তোলপাড়। পরে রাতে বন্ধনের বাবা বাদী হয়ে সদর থানায় প্রতিষ্ঠানের পরিচালক, তার স্ত্রী ও এক বড়ভাইকে স্ব-নামে এবং আরও অজ্ঞাতনামা কয়েকজনের নামে মামলা দায়ের করলে পুলিশ রাতেই অভিযান চালিয়ে এজাহারনামীয় ওই ৩ জনকে গ্রেপ্তার করে। সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, বন্ধনের বাবার অভিযোগের পরিপ্রক্ষিতে ওই হত্যা মামলা গ্রহণ করা হয়েছে। সেইসঙ্গে প্রতিষ্ঠানের পরিচালক, তার স্ত্রী ও এক বড়ভাইকে ওই মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অজ্ঞাতনামা আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে। তিনি আরো জানান, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়নাতদন্ত শেষে লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পাওয়ার পর মৃত্যুর প্রকৃত কারণ সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যাবে।
এদিকে বন্ধন হত্যায় জড়িতদের বিচার দাবিতে শ্রীবরদীতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান করেছে ছাত্র-ছাত্রীরা। শহরের চৌরাস্তা মোড়ে আয়োজিত ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধনে বন্ধন হত্যার সঙ্গে জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তারের দাবিতে বক্তব্য রাখেন উপজেলা চেয়ারম্যান এডিএম শহিদুল ইসলাম, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবেক কমান্ডার হামিদুর রহমান, বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুল্লাহ ছালেহ, উপজেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন, উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক জিয়াউল হক জেনারেল প্রমুখ। এতে অংশগ্রহণ করে শ্রীবরদী সরকারি কলেজ, এপিপিআই উচ্চ বিদ্যালয় ও এমএনবিপি সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীসহ স্থানীয়রা। মানববন্ধন শেষে প্রধানমন্ত্রী বরাবর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

আদালত বললেন, আমাদের দরকার বিশুদ্ধ পানি

স্বামীর লিঙ্গ কেটে দিলো স্ত্রী

পাকিস্তান যুক্তরাষ্ট্রকে সত্য বলে নি

‘ছেলেধরা’ আতঙ্কে বিদ্যালয়ে উপস্থিতি কম

প্রিয়া সাহা অন্যায় করেননি: সীতাংশু গুহ

কাশ্মির নিয়ে ট্রাম্পের মন্তব্যকে কেন্দ্র করে ভারতের পার্লামেন্ট উত্তপ্ত

নিষিদ্ধ হলেন আর্জেন্টাইন তারকা মেসি

যুদ্ধবিমানের আকাশসীমা লঙ্ঘনের জন্য দুঃখ প্রকাশ রাশিয়ার

বান্দরবানে আ. লীগ নেতাকে গলাকেটে হত্যা

মন্ত্রীপরিষদে নারীর সংখ্যা বাড়াবেন বরিস জনসন

শিমলায় বাংলাদেশী রাজনীতিকের ছেলের ‘আত্মহত্যা’

রাজধানীর দুই পুলিশ বক্সের কাছ থেকে বোমা উদ্ধার

কক্সবাজারের ‘বন্দুকযুদ্ধে’ রোহিঙ্গাসহ নিহত ২

যুক্তরাষ্ট্রের পর এবার কানাডায় আশ্রয় চাইলেন সিনহা

‘দর্শক আমার কাছ থেকে আলাদা কিছু পাবে’

বিমানবন্দরের হেনস্থার শিকার ওয়াসিম আকরাম