বিশ্বনাথে প্রেমের বলি কিশোরী

এক্সক্লুসিভ

বিশ্বনাথ (সিলেট) প্রতিনিধি | ১৭ জুন ২০১৯, সোমবার | সর্বশেষ আপডেট: ১:০০
বিশ্বনাথে আমিনা বেগম (১৪) নামের এক কিশোরীর মৃত্যু নিয়ে ধূম্রজাল সৃষ্টি হয়েছে। সে উপজেলার সাতপাড়া গ্রামের আবদুর রাজ্জাকের মেয়ে। ৮ ভাই ও ২ বোনের মধ্যে আমিনা সবার ছোট। তার হত্যা না আত্মহত্যা এ নিয়ে যেমন রহস্য তেমনি এলাকায় নানা গুঞ্জনও রয়েছে। অভিযোগ উঠেছে, প্রেমের কারণেই বিষপানে আত্মহত্যা করেছে সে। তবে গ্রামের লোকজন প্রেম ও বিষপানের বিষয় জানালেও আমিনার পরিবারের লোকজন বিষপানের বিষয়টিও অস্বীকার করেছেন। তারা ভিন্ন কথা বলছেন। ঘটনা গত ৮ই জুন শনিবারে ওই দিন থেকে কিশোরীর মৃত্যু নিয়ে এলাকায় নানা গুঞ্জনসহ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।
এ ঘটনার পরদিন আমিনার ভাই আবদুস সালাম থানায় অপমৃত্যু মামলা দায়ের করেছেন।

সরজমিন গিয়ে জানা গেছে, একই গ্রামের সমছুদ্দিনের মেঝো ছেলে শফিক মিয়ার কাছে আমিনার বড়বোন সেলিনার বিয়ে হয়। আত্মীয়তার সুবাদে শফিকের ছোটভাই রশিক আলীর সঙ্গে আমিনার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। এ নিয়ে দু’পরিবারেই অশান্তি ছিল। পারিবারিকভাবে বিষয়টি মেনে নিতে না পারায় আমিনার ওপর চরম নির্যাতন করা হয়। অবশেষে গত ৭ই জুন বিকালে প্রেমিক তালতো ভাই রশিক আলীর উপস্থিতিতে দুই পরিবারের লোকজন মিলে বৈঠক করা হয়। ওই বৈঠকেও বিষয়টি সমাধান না হওয়ায় পরদিন শনিবার রাতে রহস্যজনকভাবে অ্যাপেন্ডিসাইটিসের ব্যথার কথা বলে আমিনাকে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে নিয়ে যান তার মা সুনারুন বেগম, ভাই আবুল হাসনাত ও দুলাভাই শফিক মিয়া। হাসপাতালে নেয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসকের সন্দেহ হলে পরিবারের সদস্যদের জিজ্ঞাসাবাদ করতে ডাকা হয়। এ সময় লাশ রেখেই তারা হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যান। পরবর্তীতে স্থানীয় চেয়ারম্যান আমির আলীর মাধ্যমে থানায় খবর দেয়া হয়। এরপর থানার এসআই মিজানুর রহমান হাসপাতালে গিয়ে লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করেন। পরে ময়নাতদন্ত শেষে রোববার রাতে আমিনার লাশ দাফন করা হয়। গ্রামের মুরব্বি জমির আলী, হাবিবুর রহমান, হারুনুর রশীদ, সেবুল মিয়াসহ অনেকেরই দাবি নির্যাতনের কারণেই সে বিষপান করেছে। মা সুনারুন বেগম, ভাই আবদুস সালাম, আবুল হাসনাত তাদের বাড়িতে বৈঠক, প্রেম ও বিষপানের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। তাদের দাবি, ওসমানী হাসপাতালের ডাক্তার না বুঝে অযথা হয়রানি করতে লাশের ময়নাতদন্ত করিয়েছেন।
আমিনার বড়বোন সেলিনা বেগম, দুলাভাই শফিক মিয়া ও তালতোভাই আসকির আলী বৈঠকের বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে বলেন, রশিক আলীসহ সকলেই আমিনাদের বাড়িতে দাওয়াতে গিয়েছিলেন।

দৌলতপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আমির আলী বলেন, মেয়ের এক ভাই তাকে বিষপানের বিষয় জানানোর পর তিনি ওসমানী হাসপাতালে পুলিশ পাঠিয়েছেন।

বিশ্বনাথ থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) শামসুদ্দোহা পিপিএম বলেন, এ ধরনের একটি ঘটনার ময়নাতদন্তও করা হয়েছে যা তিনি জেনেছেন। তবে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত তিনি কিছুই বলতে পারবেন না বলেও জানিয়েছেন।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ফিলিস্তিনে ইসরাইলী দখলদারিত্বের নিন্দা ঢাকার

পাসে মেয়েরা জিপিএ-৫ এ ছেলেরা এগিয়ে

উদ্বিগ্ন রংপুরের নেতাকর্মীরা যা ভাবছেন

ওয়াশিংটনে দুই রোহিঙ্গা প্রতিনিধি

অংশ নেয়া ২ পরীক্ষায় এ গ্রেড পেলো নুসরাত সহপাঠীদের কান্না

অকার্যকর ওষুধ কেনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থার নির্দেশ

৫ দিনের রিমান্ডে মিন্নি

আদালতের নিরাপত্তায় নেয়া ব্যবস্থা জানাতে হাইকোর্টের নির্দেশ

কাউন্সিলে পরিবর্তন পরিবর্ধন অনেক কিছুই হতে পারে

হাজীর বিরিয়ানি বাখরখানির স্বাদ নিলেন মিলার

কোম্পানীগঞ্জে শামীমের ‘কাঠগড়ায়’ কালা মিয়া

উত্তরাঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি

ঢাকায় ভবন ধসে নিহত ১

মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ ও ভেজাল খাদ্যের বিরুদ্ধে অভিযান জোরদারের নির্দেশ

বন্যায় যেকোনো সহযোগিতার জন্য প্রস্তুত আছি

বেনাপোল এক্সপ্রেস-এর যাত্রা শুরু