পা হারানো রাসেলকে বাকি টাকা দেয়নি গ্রীনলাইন তীব্র ক্ষোভ হাইকোর্টের

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার | ২৩ মে ২০১৯, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৪:২২
আদালতের আদেশ সত্ত্বেও বাসচাপায় পা হারানো রাসেল সরকারকে বাকি টাকাও না দেয়ায় গ্রিন লাইন কর্তৃপক্ষের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন হাইকোর্ট। আদালত বলেছেন, গ্রীনলাইন কর্তৃপক্ষ আদালতের নমনীয়তাকে ‘দুর্বলতা’ মনে করে থাকলে তা হবে তাদের জন্য বড় ভুল। যারা ব্যবসা করে তাদের মানবিক মূল্যবোধ থাকা উচিত। কিন্তু এক্ষেত্রে গ্রিন লাইন কর্তৃপক্ষের আচরণ আমাদের কাছে ভাল লাগেনি। তারপরও তাদের অনুপস্থিতিতে আমরা আজ আদেশ দিতে চাই না। প্রয়োজনে রুল শুনানির পর যা করার দরকার তাই করব। এরপর আদালত আগামী ২৫শে জুন পরবর্তী আদেশের জন্য তারিখ ধার্য করেন। গতকাল বিচারপতি এফআরএম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কেএম কামরুল কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চ এসব মন্তব্য করেন।


শুনানির শুরুতে গ্রীনলাইনের আইনজীবী মো. ওয়াজি উল্লাহ বলেন, আদালতের সর্বশেষ আদেশের পর গ্রীনলাইন কর্তৃপক্ষ আমার সঙ্গে যোগাযোগ করেনি। তাদের আইনজীবী থেকে আমার নাম প্রত্যাহার করতে চাই। এরপর আদালত গ্রীনলাইনের আইনজীবী মো. ওয়াজি উল্লাকে বলেন, আপনি যেহেতু এখন পর্যন্ত তাদের আইনজীবী আছেন, আপনি তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেন। আমরা অবকাশকালীন ছুটির পর এই মামলার পরবর্তী আদেশের জন্য রাখছি। রাসেল সরকারের আইনজীবী শামসুল হক রেজা বলেন, আমাদের সঙ্গেও কোনো যোগাযোগ করছে না গ্রিন লাইন কর্তৃপক্ষ। রাসেলকে চিকিৎসা খরচ তিন লাখ টাকা দেয়ার পর আর কোনো খরচও দিচ্ছে না। এজন্য রাসেলকে হাসপাতাল থেকে বাসায় এসে চিকিৎসা করাতে হচ্ছে। আদালত বলেন, আমরা অনেক নমনীয়ভাবে কথা বলেছি, গ্রীনলাইন কর্তৃপক্ষ কখনও বলে নাই যে আমাদের এই সমস্যা, আমরা এত টাকা দিতে পারব না। আবার রাসেলের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করে বিষয়টা মীমাংসা করারও চেষ্টা করেনি। যারা ব্যবসা করে তাদের মানবিক মূল্যবোধ থাকা উচিত। কিন্তু এ ক্ষেত্রে গ্রীনলাইন কর্তৃপক্ষের আচরণ আমাদের কাছে ভালো লাগেনি। তারপরও তাদের অনুপস্থিতিতে আমরা আজ আদেশ দিতে চাই না। প্রয়োজনে রুল শুনানির পর যা করার দরকার তাই করব।

উল্লেখ্য, গত বছরের ২৮শে এপ্রিল রাজধানীর মেয়র মোহাম্মদ হানিফ ফ্লাইওভারে কথা কাটাকাটির জেরে গ্রীনলাইন পরিবহনের এক বাসচালক ক্ষিপ্ত হয়ে প্রাইভেটকার চালকের ওপর দিয়েই বাস চালিয়ে দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই প্রাইভেটকার চালক রাসেল সরকারের (২৩) বাম পা বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এ ঘটনায় সংরক্ষিত আসনের সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট উম্মে কুলসুম স্মৃতি হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন।




এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Raju

২০১৯-০৫-২৩ ০৯:১৬:২৫

শুধু ক্ষোভ!!! মাননীয় আদালত কি গ্রীন লাইনের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করতে পারেন না?

Dupur

২০১৯-০৫-২৩ ০৭:৩০:১৬

We should boycott green line,amader andolon, bikkhov kora ucit

আপনার মতামত দিন

আজহারুল ইসলামের আপিল শুনানি শুরু

মুরসিকে হত্যা করা হয়েছে, দায় নিতে হবে সরকারকে

ঝালকাঠিতে আওয়ামী লীগ নেতার বিরুদ্ধে জমি দখলের অভিযোগ

১ মাসের মধ্যে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ সরিয়ে নেয়ার নির্দেশ হাইকোর্টের

বাংলাদেশের দরজায় কড়া নাড়ছে আইএস

রাজধানীতে ট্রাফিক আইন অমান্যে ৭৪১৫ মামলা

আত্মবিশ্বাস নিয়ে নটিংহেমে বাংলাদেশ

‘এখন থেমে থাকার সময় নয়’

প্রত্যাশার চেয়ে ৩০০০ কোটি ডলার কম আয় হবে হুয়াওয়ের

বোনকে বাঁচাতে গিয়ে নিখোঁজ ভাই

সাকিবকে দেখছে বিশ্ব

২০ উপজেলায় চলছে ভোটগ্রহণ

‘নিজের সঙ্গে যুদ্ধে জিতেছি’

রেকর্ড ম্যান সাকিব

এই লিটনকেই দেখতে চায় বাংলাদেশ

মারা গেলেন মিসরের সাবেক প্রেসিডেন্ট মোরসি