নির্ভেজাল ইফতারসামগ্রী বেচাকেনা চান গাজীপুরের মেয়র

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, গাজীপুর থেকে | ১৮ মে ২০১৯, শনিবার
এই রমজান মাসে ইফতার সামগ্রী যেগুলো বেচা হয় সেগুলো যাতে পলিথিন দিয়ে ঢেকে রেখে বিক্রি হয় এবং পরিবেশ সম্মতভাবে যাতে তৈরি করা হয়। কোনো খাবারে যাতে কোনো ধরনের রাসায়নিক সামগ্রী মেশানো না হয়। নগরের ইফতার সামগ্রী বিক্রেতাসহ সকল হোটেল রেস্তোরাঁ মালিক ব্যবসায়ীদের প্রতি সিটি মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর আলম বৃহস্পতিবার সংবাদকর্মীদের মাধ্যমে এই অনুরোধ জানিয়ে বলেছেন, এগুলো তদারকি করতে সিটি করপোরেশনকেকে অঞ্চলভেদে ৮টি জোনে ভাগ করে দেয়া হয়েছে। বাজার মনিটরিং ও মানসম্মত পণ্য পরিবেশনে নজরদারি বাড়ানোর পাশাপাশি আইন লঙ্ঘনকারীদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে। জোন অনুযায়ী কর্মকর্তাগণ দায়িত্বে আছেন এসব দেখভাল করতে। বিশেষভাবে খাদ্যদ্রব্যের ওপর যাতে কোনোভাবে ভেজাল করতে না পারে সেদিকে আমরা নজর দিচ্ছি। এছাড়া বাজারে ইফতারি আইটেমসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় সকল পণ্যের মূল্য তালিকা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। ইফতার সামগ্রী ছাড়াও অন্যান্য খাদ্যদ্রব্য যাতে ভেজাল মুক্ত ও রাসায়নিক মুক্তভাবে বিক্রি হয় সেজন্যে নতুন এই সিটির স্বল্পসংখ্যক জনবলের মাধ্যমে তদারকি করা হচ্ছে।
যতটা সম্ভব নির্ভেজাল খাবার গ্রহণ করে সুস্থভাবে যাতে নগরবাসী, বিশেষ করে নগরের কর্মরত লাখ লাখ কর্মজীবী-শ্রমিকরা বাঁচতে পারে সেজন্যে নগরের জনপ্রতিনিধি ও কর্মকর্তাদের আন্তরিকতার অভাব নেই। সেজন্যে
 নগরবাসী সবারই পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকা দরকার, সহযোগিতা করা দরকার। এদিকে নগরের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, রোজার মাসে গাজীপুরে জমে ওঠেছে বাহারি ইফতারি বাজার। ছোলা, পিয়াজু, জিলাপি, হালিমসহ নানা পদের ইফতারি আইটেমে ভরপুর দোকানগুলো। আগের বছরগুলোর তুলনায় ইফতারের এসব উপকরণের দাম নিয়ে মতভেদ থাকলেও বাজারে বাজারে খোলস্থানেই বেচা হচ্ছে ইফতার সামগ্রী। তবে স্বাস্থ্য সচেতনা বাড়ায় আগের চেয়ে ইফতার সামগ্রী বেচাকেনা কমেছে। বিশাল আয়তনের সিটি করপোরেশন এলাকায় নগর ও জেলা প্রশাসনের কঠোর নজরদারি থাকার পরও যেখানে সেখানে নগরের অন্তত একহাজার স্থানে খোলামেলা বিক্রি হচ্ছে ইফতার সামগ্রী। অনেকস্থানে খোলা স্থানে এসব সামগ্রী তৈরিও করা হচ্ছে । বিভিন্ন এলাকার ক্রেতাগণ জানান, গাজীপুর মহানগরের প্রাণকেন্দ্রের প্রধান প্রধান হোটেল-রেস্তোরাঁ, বাজার, প্রধান সড়কগুলোর পাশে, মোড়ে মোড়ে এমনকি আনাচে কানাচে গড়ে ওঠেছে ইফতারের বাজার। দুপুরের পর থেকেই প্রতিদিন ক্রেতা-বিক্রেতায় মুখরিত হয়ে উঠে ইফতারের দোকান। ব্যস্ত সময় পার করছেন দোকানের কারিগররাও। মনোহারী এসব ইফতার আইটেমে থরে থরে সাজানো দোকানগুলো থেকে ক্রেতারা কিনছেন তাদের পছন্দের পণ্য। ছোলা, পিয়াজু, হরেক পদের জিলাপি, বড়া, চপ, কাবাব, সাসলিক, হালিম, মোরব্বাসহ  ইফতারের এসব আনুষঙ্গিক পণ্যের দোকানভেদে দাম ভিন্ন ভিন্ন। তবে মানসম্মত পরিবেশনায় ও দাম নিয়ে পুরোপুরি সন্তুষ্ট থাকতে পারছেন না ক্রেতারা। বিক্রেতা ব্যাবসায়ীগণ জানান, বাজারের বিভিন্ন ধরনের ইফতার তৈরির পণ্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় কিছু ক্ষেত্রে দাম কিছুটা বেড়েছে। ক্রেতারা সেটা সহজেই মেনে নিচ্ছেন। বাজার ক্রেতাদের সরগরম খুশি বিক্রেতা ব্যবসায়ীগণ। তবে মান পুরোপুরি বজায় রেখে ও পরিবেশ সম্মতভাবে ইফতার সামগ্রী তৈরি ও বিক্রি করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে জানাচ্ছেন, এবার আগের বছরগুলোর তুলনায় বেচা-বিক্রি কম হচ্ছে। প্রায় চল্লিশ লাখ মানুষের বসবাস এই গাজীপুর মহানগরে। রোজার শেষ পর্যন্ত নগরবাসী বিশেষ করে শ্রমঘন এলাকার রোজাদার মানুষ এমনি মানসম্মত পরিবেশে এবং কম দামে পণ্য পেতে চায়। এর জন্যে জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের নিয়মিত নজরদারি ও তৎপরতা আশা করছেন সবাই।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

সন্ত্রাস-সাম্প্রদায়িকতা রুখে দেয়ার শপথ বুয়েটে

সোহরাওয়ার্দীতে সমাবেশ করবে ঐক্যফ্রন্ট

সেই বড় ভাই কারা

ফের আলোচনায় আবদুল হাই বাচ্চু

অভিযান অব্যাহত থাকবে

মাটি কেনায় নয়ছয়ের পাঁয়তারা

ইন্টারগেশন সেলে মুুখোমুখি হচ্ছেন সম্রাট-আরমান

সড়কের দুই পাশে ট্রাক বাস রেখে চাঁদাবাজি করা হয় : শামীম ওসমান

কোনো উদ্যোগেই দাম কমছে না পিয়াজের

তদন্ত প্রতিবেদন ২০শে নভেম্বর

বিএনপি সরকারের রেল বন্ধের সিদ্ধান্ত ছিল দেশের জন্য আত্মঘাতী

প্রেমের টানে জৈন্তাপুরে ভারতীয় খাসিয়া নারী হুলুস্থুল

এবার তহবিল চায় রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক

আইনজীবীর হাতে হাতকড়া বিচারক অবরুদ্ধ এজলাস ভাঙচুর

চট্টগ্রামে গতি পেলো মেট্রোরেল

বরগুনায় রিফাত হত্যার প্রধান আসামির জামিন নামঞ্জুর