ঘর পেলো গৃহহীন ১৫৪টি পরিবার

বাংলারজমিন

নেত্রকোনা প্রতিনিধি | ১৬ মে ২০১৯, বৃহস্পতিবার
 ‘আশ্রয়ণের অধিকার প্রধানমন্ত্রীর উপহার’ পেয়েছে জেলার আটপাড়ায় ১শ’ ৫৪টি আশ্রয়হীন অসহায় দরিদ্র পরিবার। সরকারি গৃহ সহায়তা পেয়ে খুশিতে ও আনন্দে আত্মহারা পরিবারগুলো। জেলায় ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরে যার জমি আছে ঘর নেই, তার নিজ জমিতে গৃহ নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ অগ্রাধিকারভিত্তিতে জেলার আটপাড়ায় সাতটি ইউনিয়নে সরকারিভাবে সম্প্রতি নির্মিত হয়েছে নতুন বসত ঘর। এক লাখ টাকা ব্যয় নির্ধারিত নির্মিত গৃহগুলোতে বসবাস করছে আশ্রয়হীন পরিবারের সদস্যরা। অসহায় পরিবারের একাধিক ব্যক্তির সঙ্গে গতকাল বুধবার কথা বলে জানা গেছে, জেলার আটপাড়া উপজেলার বানিয়াজান গ্রামের পাঁচ সন্তানের জননী সফুরন বেগম দীর্ঘদিন যাবৎ নিজের ঘর না থাকায় প্রাকৃতিক দুর্যোগের সঙ্গে মোকাবিলা করেছেন। সরকারি সহায়তা পেয়ে এখন শান্তিতে বসবাস করছেন। তার মতো আর এক নারী উপজেলার শুনই গ্রামের পারভিন আক্তার মুড়ি বিক্রেতা স্বামী ও সন্তানদের নিয়ে রোদ ঝড় বৃষ্টিতে খুব কষ্টে জীবনযাপন করলেও ঘর পেয়ে হাসি ফুটেছে পরিবারটির। অপরদিকে পাঁচগাঁও গ্রামের মিনা রবিদাস তার পরিবারের সদস্যদের নিয়ে মগড়া নদীর তীর ঘেঁষে বন্যা খরা প্রাকৃতিক দুর্যোগ ছিল তার নিত্যদিনের সাথী।
সরকারি গৃহ পেয়ে প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানালেন তিনি। শুনই গ্রামের উপকারভোগী রফিকুল ইসলাম বলেন, সরকারি এই সহায়তা আমাদের নতুন করে বাঁচার স্বপ্ন দেখিয়েছে। এদিকে রূপচন্দ্রপুর গ্রামের নব্বই বছরের বৃদ্ধা লালবানু দীর্ঘদিন ধরে দুঃখ কষ্টে জীবনযাপন করলেও জীবনের শেষ বেলায় মুখে হাসি ফুটলো সরকারি গৃহ সহায়তা পেয়ে।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

বানভাসি মানুষের দুর্ভোগ বাড়ছে

নৈরাজ্য

১৯ জনকে গণপিটুনি নিহত ৩

মার্কিন দূতাবাসের দুরভিসন্ধি

মিন্নির জামিন মেলেনি

পুঁজিবাজারে একদিনেই ৫ হাজার কোটি টাকার মূলধন হাওয়া

মশায় অতিষ্ঠ মানুষ ঘরে ঘরে ডেঙ্গু আতঙ্ক

অর্থনৈতিক কূটনীতির ওপর গুরুত্ব দিতে বললেন প্রধানমন্ত্রী

সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের আন্দোলনে অচল ঢাবি

যে কারণে সিলেটে মহিলা কাউন্সিলর লাকীর ওপর হামলা

৬ ঘণ্টা বিদ্যুৎ ও পানিবিহীন শাহজালাল বিমানবন্দর

সাত দিনের মধ্যে প্রথম কিস্তি পরিশোধের নির্দেশ

এ যেন খোঁড়াখুঁড়ির নগরী

বৃষ্টি হলেই জলজট

শিমুল বিশ্বাসের পাসপোর্ট প্রদানের নির্দেশ হাইকোর্টের

এক সিগন্যালেই ৬৭ মিনিট