বিজেপির রোড শোতে হামলা ও পাল্টা হামলার অভিযোগ

ভারত

কলকাতা প্রতিনিধি | ১৫ মে ২০১৯, বুধবার
নির্বাচনের অন্তিম লগ্নে এসে তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতাদের বাকযুদ্ধ তীব্র আকার ধারণ করেছে। বিজেপি পশ্চিমবঙ্গে গণতন্ত্রের শাসন নেই অভিযোগ তুলে মমতাকে হঠাতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। মমতাও বিজেপি নেতাদের কুৎসিৎ ভাষায় আক্রমণ করার পাশাপাশি তুই তোকারি করতেও দ্বিধা করছেন না। দুই পক্ষের এই রাজনৈতিক উত্তেজনার মধ্যে মঙ্গলবার কলকাতায় বিজেপি সভাপতি অমিত শাহর রোড শো ঘিরে হামলা ও পাল্টা হামলার চাপানউতোর শুরু হয়েছে। ধর্মতলা থেকে সিমলা স্ট্রিটে স্বামী বিবেকানন্দর বাড়ি পর্যন্ত ৮ কিলোমিটার এই দীর্ঘ রোড শো বানচাল করতে তৃণমূল কংগ্রেস বারে বারে বাধা দিয়েছে বলে অভিযোগ করেছে বিজেপি। প্রথমে রাস্তার দুপাশে থাকা মোদী ও শাহর কাটআউট ও পোষ্টার পুরসভার কর্মীরা সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে। এরই মধ্যে ঢাকের বাদ্য ও আদিবাসী নৃত্য সহযোগে রোড শো শুরু হয়েছিল। হাজার হাজার মানুষ যোগ দিয়েছিল রোড শোতে।  শ্রীরাম ধ্বনিতে মুখরিত ছিল যাত্রাপথ।  বিজেপির রোড শোতে ব্যাপক মানুষের উপস্থিতিতেই পথে নানা জায়গায় হামলা ও প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে।
অন্যদিকে তৃণমূল কংগ্রেসের অভিযোগ, বিজেপির রোড শোতে অন্য রাজ্য থেকে মানুষ এনে হামলা চালানো হয়েছে। বিদ্যাসাগর কলেজে বিদ্যাসাগরের মূর্তি কে বা কারা ভাঙলো তা তদন্ত না করেই বিজেপির উপর দায় চাপিয়ে দিয়ে সংস্কৃতির সর্বনাশ হয়ে গিয়েছে বলে তৃণমূল কংগ্রেস নেতারা সরব হয়ে উঠেছেন। তবে বুধবার দিল্লিতে এক সাংবাদিক সম্মেলন করে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ অভিযোগ করেছেন, তার রোড শোতে হিংসা, আগুন ধরানো এবং ভাঙচুরের জন্য পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও তৃণমূল কংগ্রে কে দায়ী করেছেন। তিনি বলেছেন, সিআরপিএফের সুরক্ষা না থাকলে তিনিও অক্ষতভাবে ফিরে আসতে পারতেন না।  তৃণমূল কংগ্রেসই যে রোড শোতে ইটবৃষ্টি করা এবং অমিত শাহ গো ব্যাক ম্লোগান দিয়ে প্ররোচনা সৃষ্টি করেছে বলে অভিযোগ করেছেন তিনি।  অমিত শাহ এদিন বলেছেন, মমতা দিদি, আপনি একটি রাজ্যে ৪২টি আসনের জন্য লড়াই করছেন। আর বিজেপি সব রাজ্যে লড়াই করছে। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গেই একমাত্র হিংসা ঘটছে। আর এটা রহচ্ছে তৃণমূল কংগ্রেসের জন্য। তিনি বলেছেন, এসব থেকেই প্রশাসন হচ্ছে দিদির দিন শেষ হয়ে এসেছে। অমিত শাহ এদিন বলেছেন, রোড শোতে দুটি জায়গায় হামলা চালানো হয়েছে। প্রথমে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের গেটের সামনে এবং পরে বিদ্যাসাগর কলেজের সামনে। বিদ্যাগরের মূর্তি ভাঙা নিয়ে বিজেপি সভাপতি  প্রশ্ন তুলেছেন, কলেজের গেট বন্ধ থাকার কথা। আর মূর্তিটি ছিল ঘরের ভিতরে। সেটিও তালাবন্ধ থাকার কথা। এই অবস্থায় বিজেপি কী করে মূর্তি ভাঙবে ? এদিনের সাংবাদিক সম্মেলনে রোড শোতে হামলার ছবি তুলে ধরে অমিত শাহ অভিযোগ করেছেন, নির্বাচন কমিশন নীরব দর্শক হয়ে রয়েছেন। তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা তারা নিচ্ছেন না। তৃণমূল কংগ্রেস পাল্টা অভিযোগ করেছে, কলেজের গেট ভাঙার প্রমাণ তুলে ধরে দাবি করা হয়েছে, বিজেপি ভিতরে ঢুকে ভাঙচুর চালিয়েছে।  তৃণমূল কংগ্রেস বুধবার একটি মিছিলও বের করছে। একইভাবে বিজেপি ও তৃণমূলের বিরুদ্ধে প্ররোচণা সৃষ্টির অভিযোগ তুলে বামপন্থীরাও মিছিল করার ঘোষণা দিয়েছে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

মোহাম্মদপুরের সেই সুলতান আটক

সৌদিতে বাস দুর্ঘটনায় নিহতদের ১১ জন বাংলাদেশি

হুন্ডি, স্বর্ণ আর মোবাইল ডিলাররা ডলার পৌঁছে দিতো ক্যাসিনোতে

বীমা খাতেও দুরবস্থা মেয়াদ শেষেও টাকা ফেরত পান না গ্রাহকরা

র‌্যাগিংয়ের নামে বুয়েটে যেভাবে নির্যাতন হতো

বিএনপি’র হাতে সময় খুব কম

সাক্ষ্য দিয়ে বলছি জনগণ নির্বাচনে ভোট দিতে পারেনি

সিলেটে যে লড়াইয়ে কামরান-মিসবাহ

শুদ্ধি অভিযানে যারা টার্গেট, তাদের আইনের আওতায় আনা হবে

বাংলাদেশ সফরে যুক্তরাষ্ট্রের ৫ সিনেটর

বিজিবি’র বিরুদ্ধে বিএসএফ’র এফআইআর

চট্টগ্রামে বাবা-মেয়ে ও কিশোর খুন

বাগমারায় কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যা

মহিলা এমপির ডিগ্রি পরীক্ষা দিচ্ছেন ভাড়াটে ছাত্রীরা

সড়ক দুর্ঘটনায় ঝরলো ৮ প্রাণ

রাজনৈতিক সমঝোতার মাধ্যমে কি খালেদা জিয়া মুক্ত হতে পারবেন?