৬ সংগঠনের যৌথ প্রতিবেদন

রাজনৈতিক প্রভাবে ঢাকার চারপাশে জলাশয় ভরাট হচ্ছে

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার | ২৬ এপ্রিল ২০১৯, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ২:০৯
প্রতীকী ছবি
রাজনৈতিক প্রভাবে রাজধানীর চারপাশের জলাশয়গুলো ভরাট হয়ে যাচ্ছে। এই ভরাটের চিত্র দুর্নীতির একটি প্রকৃষ্ট উদাহরণ। ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ টিআইবিসহ ছয়টি সংগঠনের এক যৌথ রিপোর্টে এ তথ্য প্রকাশ করেছে। গতকাল টিআইবির কার্যালয়ের মেঘমালা কনফারেন্স রুমে বেলা, এএলআরডি, নিজেরা করি, নদী ও পরিবেশ উন্নয়ন পরিষদ, টিআইবি, জার্মান দূতাবাসের আয়োজনে ‘ড্যাপ লঙ্ঘন করে ঢাকা ও এর চারপাশের জলাশয় ভরাটের চিত্র’ নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, দেশে আইনের শাসন থাকলে জলাশয়গুলো এভাবে ভরাট হতো না। এখানে ব্যবসায়িক মহলেরও দারুণ চাপ কাজ করে। আর এখন ব্যবসায়ীদের হাতে সকল ক্ষমতার উৎস। স্বাধীনতার পরে সংসদে মাত্র ১৭ শতাংশ সংসদ সদস্য ছিলেন ব্যবসায়ী যা এখন দাড়িয়েছে ৬২ শতাংশ। কাজেই ধরা যায় ওই সকল সংসদ সদস্যরা তাদের ব্যবসায়ীক স্বার্থ উদ্ধারে নিজের ক্ষমতাকে কাজে লাগাচ্ছেন। তাছাড়া ব্যবসায়ীদের একটি সিন্ডিকেট আছে যার মাধ্যমে খুঁজে খুঁজে তারা জলাশয় গুলো ভরাট করছে। প্রভাব বিস্তার করছে।

সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্ল্যানার্স (বি আই পি) এর  উদ্যোগে ‘ঢাকা ও এর চারপাশের জলাশয় ভরাটের চিত্র’ নিয়ে একটি গবেষণা প্রতিবেদন উপস্থাপন করা হয়। প্রতিবেদনটিতে বলা হয় সারাদেশে প্রতিবছর ৪২ হাজার কৃষিজমি ও জলাশয় ভরাট করা হচ্ছে। এবং ৯৯ সাল থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত প্রতিবছরে গড়ে ৫ হাজার ৭৫৭ একর জলাভূমি ঢাকা থেকে হারিয়ে গেছে।

গবেষণা প্রতিবেদনটি তৈরি করতে ঢাকা মেট্রোপলিটন ডেভলপমেন্ট প্ল্যান এর আওতাধীন এলাকা গবেষণার জন্য বিবেচিত করা হয়। এর মধ্যে মধ্যাঞ্চল  ঢাকা সিটি কর্পোরেশন এলাকা, পূর্বাঞ্চল তারাবো, ভুলতা, পূর্বাচল এবং কালিগঞ্জ, উত্তরাঞ্চল টঙ্গী, গাজিপুর, পশ্চিমাঞ্চল সাভার, দক্ষিণাঞ্চল কেরানীগঞ্জে স্যাটেলাইটের মাধ্যমে এ গবেষণাটি চালানো হয়েছে। প্রতিবেদনে দেখা যায় সাভারের মোট ২০হাজার ৬৩৮ একর বন্যাপ্রবাহ অঞ্চল, জলধারণ অঞ্চল, জলাশয় থেকে প্রায় ৩ হাজার ৬৫ একর ভরাট হয়ে গেছে। গাজীপুর থানার ১৩ হাজার ৮৪২ একর থেকে ২৩৬০ একর ভরাট হয়েছে। রূপগঞ্জে মোট ১৬ হাজার ৫৪২ একর থেকে ৬ হাজার ৭৮৬ একর , কেরানীঞ্জে ২৬ হাজার ৪৭৪ একর থেকে ৫ হাজার ৬৮৯ একর, ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকায় ৯ হাজার ৫৫৬ একর থেকে ৩ হাজর ৪৮৩ একর, ঢাকা বিশদ অঞ্চল পরিকল্পনা ২০১০ এর বিভিন্ন অঞ্চলে জলাশয় ভরাটের পরিমান চলতি বছরে এসে দাঁড়িয়েছে এক লাখ ৯৩৭ থেকে ২২ হাজার ৫১৬ একর । সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন বেলার প্রধান নির্বাহী সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান, আইএবি সাবেক প্রেসিডেন্ট স্থপতি মোবাশ্বের হোসেন, বুয়েটের অধ্যাপক ড. ইশরাত ইসলাম, এএলআরডির নির্বাহী পরিচালক শামসুল হুদা, নিজেরা করি’র সমন্বয়কারী খুশী কবির, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন বাপার যুগ্ম সম্পাদক স্থপতি ইকবাল হাবিব। দু’টি গবেষণা উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব প্ল্যানার্স  এর সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড.আদিল মোহাম্মদ খান ও সিইজিআইএস এর গবেষণা সহযোগী ফিরোজ আহমেদ কনক।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

পদত্যাগের প্রস্তাব দিতে পারেন রাহুল গান্ধী

ট্রেনের ৩ জুনের টিকিটের জন্য কমলাপুর ও এয়ারপোর্ট স্টেশনে উপচেপড়া ভিড়

১৩ তম স্প্যান বসলো পদ্মাসেতুতে

সিরাজগঞ্জে বজ্রপাতে ঘুমন্ত ৪ ধানকাটা শ্রমিক নিহত

‘অনেক কিছু আছে নজরুলের গানে’

বিরোধীদলীয় নেতার সরকারি বাসভবনে বস্তিঘর (ভিডিও)

তেরেসা মে’র চোখে তখন পানি

২৮শে মে শপথ নিতে পারেন নরেন্দ্র মোদি

সরকার এত অমানবিক নয়

খালেদা জিয়াকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে সরকার

ধারণা পাল্টে দিতে চায় অভিজ্ঞ বাংলাদেশ

গান্ধী পরিবারের রাজনীতির সমাপ্তি?

দোহার-নবাবগঞ্জকে আধুনিক উপজেলায় পরিণত করবো

তৃতীয় দিনেও ট্রেনের টিকিট পেতে ভোগান্তি

মৃত্যুর দুয়ার থেকে ফিরে এলাম

চট্টগ্রামে মাদক নিয়ন্ত্রণে ‘কিশোর গ্যাং’