হাত-পা চেপে ধরল দুলাভাই, ধর্ষণ করল শ্যালক, ভিডিও ধারণ

অনলাইন

বরগুনা প্রতিনিধি | ২২ এপ্রিল ২০১৯, সোমবার, ১০:২৩ | সর্বশেষ আপডেট: ৬:২৩
বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলায় মাদরাসায় যাওয়ার পথে নবম শ্রেণির এক ছাত্রীকে অপহরণ করে নিয়ে যায় শ্যালক ও দুই দুলাভাইসহ তিনজন। পরে ওই ছাত্রীকে জোরপূর্বক বিয়ে করে একাধিকবার ধর্ষণ করা হয়। এ ঘটনায় ৫ জনকে আসামি করে থানায় মামলা করেছে ধর্ষণের শিকার ছাত্রী। অভিযুক্তদের মধ্যে তিনজন সম্পর্কে শ্যালক ও দুলাভাই। এরা হলো, পাথরঘাটা উপজেলার চর লাঠিমারা এলাকার আবু মিয়ার ছেলে জাকারিয়া (২০), জাকারিয়ার দুলাভাই মাহবুব (৩২) ও সবুজ (২৪) এবং অজ্ঞাত আরও দু’জন।

গত ১১ই এপ্রিল সকালে ওই ছাত্রীকে অপহরণ করে জাকারিয়া, তার দুলাভাই মাহবুব ও সবুজ। পরে ছাত্রীর ইচ্ছার বিরুদ্ধে তাকে বিয়ে করে জাকারিয়া। পরদিন ১২ই এপ্রিল রাতে ছাত্রীকে একাধিকবার ধর্ষণ করে জাকারিয়া। সেই সঙ্গে ধর্ষণের ভিডিও মোবাইলে ধারণ করে তারা।

এ ঘটনায় করা মামলার এজাহারে নির্যাতিতা উল্লেখ করেছে, ১১ই এপ্রিল সকালে  সে বরগুনার বামনা উপজেলার বাড়ি থেকে মাদরাসায় যাচ্ছিল। পথিমধ্যে পাথরঘাটা উপজেলার চর লাঠিমারা এলাকার জাকারিয়া ও তার দুই দুলাভাই মাহবুব এবং সবুজ তাকে অপহরণ করে পাথরঘাটায় নিয়ে যায়। পরে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে স্থানীয় একজন মৌলভীর মাধ্যমে তাকে বিয়ে করে জাকারিয়া।

বিয়ের কাজ শেষে অন্যান্যরা চলে যায়। পরের দিন ১২ই এপ্রিল রাতে ছাত্রীর সঙ্গে রাতযাপন করতে যায় জাকারিয়া। এতে বাধা দেয় ছাত্রী। এ সময় জাকারিয়া জোরপূর্বক সঙ্গে মেলামেশা করতে চাইলে নবম শ্রেণীর ওই ছাত্রী চিৎকার দেয়।

তার চিৎকার শুনে জাকারিয়ার দুলাভাই মাহবুব, সবুজ ও অজ্ঞাত আরও দুই যুবক ছাত্রীর ঘরে প্রবেশ করে। পরে দুলাভাই মাহবুব এবং সবুজ ছাত্রীর হাত-পা চেপে ধরে। ওই সময় ছাত্রীকে একাধিকবার ধর্ষণ করে জাকারিয়া। সেই সঙ্গে ধর্ষণের দৃশ্য মোবাইলে ধারণ করে ঘরে অবস্থান করা অজ্ঞাত এক যুবক। ধর্ষণের ভিডিও জাকারিয়ার মোবাইলে ধারণ করা হয়।

পরবর্তীতে ১৩ই এপ্রিল জাকারিয়ার বাড়ি থেকে ছাত্রীর দুলাভাই তাকে উদ্ধার করে বাড়ি নিয়ে যায়। পরে এ ঘটনায় পাথরঘাটা থানায় ধর্ষণ মামলা করে ছাত্রী। পাশাপাশি বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে তার ডাক্তারি পরীক্ষা করা হয়। তবে এ ঘটনায় জড়িতদের এখনও গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।

এ বিষয়ে পাথরঘাটা থানার ওসি মো. হানিফ সিকদার বলেন, ধর্ষণের শিকার ছাত্রী বাদী হয়ে পাথরঘাটা থানায় মামলা করেছে। মামলায় পাঁচজনকে আসামি করা হয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Ahmed

২০১৯-০৪-২২ ১৩:০৩:০০

We are in rape culture now. Open and free mixing with so called love is the cause of such raping. Absence of Islamic teachings is the root of all evils. Only God fearing and thinking of final judgement can save us.

Mustafa Ahsan

২০১৯-০৪-২১ ২২:০৮:৩৪

বাংলাদেশের ধর্ষণের শাস্তির বিধান ফাঁসির ঘোষনা প্রতি জুম্মার নামাজের পুর্বে দেশের সমস্ত মসজিদ থেকে ‘ধর্ষণ করলে ফাঁসিতে মরতে হবে এই হুঁশিয়ারি দিয়ে ঈমাম সাহেব রা মাইকের মাধ্যমে শহর থেকে গ্রাম গনজে সবখানে মাসে চার বার ঘোষনা দিয়ে মানুষকে এই পশু প্রবৃত্তি থেকে বিরত রাখতে আমার মনে হয় কার্যকারি ভুমিকা রাখতে পারবেন ।এবং সরকারের নিকট ধর্ষকের শাস্তি একমাত্র ফাঁসির আইন এর বাস্তবায়ন এর জোর দাবি জানাচ্ছি ।

Kazi

২০১৯-০৪-২১ ২১:৩১:০৭

Every day there is an incident of rape. Why? Rapist is not afraid of present punishment in the law Lawmakers should open their eyes. Government is absolute majority government. They can pass any harder law. Even Khuja making.

আপনার মতামত দিন

বাংলাদেশি পাসপোর্ট নিয়ে বিদেশ যাওয়ার সময় ২ রোহিঙ্গা আটক

পদত্যাগের প্রস্তাব দিতে পারেন রাহুল গান্ধী

ট্রেনের ৩ জুনের টিকিটের জন্য কমলাপুর ও এয়ারপোর্ট স্টেশনে উপচেপড়া ভিড়

১৩ তম স্প্যান বসলো পদ্মাসেতুতে

সিরাজগঞ্জে বজ্রপাতে ঘুমন্ত ৪ ধানকাটা শ্রমিক নিহত

‘অনেক কিছু আছে নজরুলের গানে’

বিরোধীদলীয় নেতার সরকারি বাসভবনে বস্তিঘর (ভিডিও)

তেরেসা মে’র চোখে তখন পানি

২৮শে মে শপথ নিতে পারেন নরেন্দ্র মোদি

সরকার এত অমানবিক নয়

খালেদা জিয়াকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে সরকার

ধারণা পাল্টে দিতে চায় অভিজ্ঞ বাংলাদেশ

গান্ধী পরিবারের রাজনীতির সমাপ্তি?

দোহার-নবাবগঞ্জকে আধুনিক উপজেলায় পরিণত করবো

তৃতীয় দিনেও ট্রেনের টিকিট পেতে ভোগান্তি

মৃত্যুর দুয়ার থেকে ফিরে এলাম