স্কাই নিউজের রিপোর্ট

‘মন্ত্রিপরিষদে অভ্যুত্থান পরিকল্পনা’, তেরেসা মের বিপদসঙ্কেত!

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ২৪ মার্চ ২০১৯, রোববার | সর্বশেষ আপডেট: ৭:০১
নিজ দলেই বিদ্রোহের শিকার বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে। ব্রেক্সিট ইস্যুতে তার ওপর প্রধানমন্ত্রীর পদ ছেড়ে দিতে বলা হয়েছে। তাকে সরিয়ে দেয়ার পরিকল্পনা চলছে পর্দার আড়ালে। রাজপথে শনিবার প্রায় ১০ লাখ মানুষ ব্রেক্সিট ইস্যুতে দ্বিতীয় গণভোটের দাবিতে বিক্ষোভ করেছে। ফলে তেরেসা মে এখন কোনপথে হাঁটবেন! তাকে নিজ দল কনজার্ভেটিভ পার্টির অনেক সিনিয়র নেতা সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, তিনি পদত্যাগের প্রতিশ্রুতি দিলেই তার ব্রেক্সিট ইস্যুতে সমর্থন দেবেন তারা।

এমন অবস্থায় তার বিরুদ্ধে মন্ত্রীপরিষদের কিছু সদস্য যে প্রচেষ্টা নিয়েছেন তাকে মন্ত্রপরিষদের অভ্যুত্থান হিসেবে আখ্যায়িত করছে বৃটিশ বিভিন্ন গণমাধ্যম। বলা হচ্ছে, এমন অভ্যুত্থান বা পরিকল্পনার কারণে তেরেসা মের জন্য ১০ ডাউনিং স্ট্রিটের দিন ফুরিয়ে এসেছে। হয়তো আর কয়েকটা দিন তিনি সেখানে থাকতে পারেন। অর্থাৎ এর মধ্যেই তাকে পদ থেকে সরে যেতে হবে।
তাহলে কে তার হাল ধরবেন! হ্যাঁ, এমন ব্যক্তিও বাছাই করা হয়েছে। বলা হয়েছে, তেরেসা মে’কে পদ থেকে সরিয়ে দিয়ে সে পদে বসানো হবে ডেভিড লিডিংটন অথবা মাইকেল গভ’কে। এমন খবর দিয়েছে অনলাইন স্কাই নিউজ।

খবরে বলা হয়েছে, ব্রেক্সিট ইস্যুতে সরকারের ভিতরেই অস্বাভাবিক উত্তেজনাকর অবস্থা বিরাজ করছে। এমন ঝড়ো হাওয়ার মধ্যে প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে’কে ক্ষমতাচ্যুত করা হতে পারে বলে গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়েছে। দ্য সানডে টাইমসকে মন্ত্রিপরিষদের ১১ জন মন্ত্রী বলেছেন, তারা চান প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে পদ থেকে সরে দাঁড়ান। আর তাতে তার পদে নতুন কাউকে বসানোর পথ তৈরি হোক।
যদি তেরেসা মে পদ ছেড়ে দেন তাহলে অন্তর্বর্তী তত্ত্বাবধায়ক প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নাম করা হয়েছে তেরেসা মে’র ডেপুটি ডেভিড লিডিংটনের। তবে বেশ কিছু সদস্য এক্ষেত্রে মাইকেল গভ-এর প্রতি তাদের সমর্থন দিতে প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন।

তেরেসা মে’র নীতি বিষয়ক সাবেক উপদেষ্টা জর্জ ফ্রিম্যান এরই মধ্যে টুইট করেছেন। তিনি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মের সব কিছু শেষ হয়ে গেছে। তিনি সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছেন। কিন্তু সারাদেশে আপনি দেখতে পাবেন তার প্রতি শুধুই ক্ষোভ। সবাই মনে করছে তাদের সঙ্গে প্রতারণা করা হয়েছে। সরকার অচল হয়ে আছে। গণতন্ত্রের প্রতি আস্থা ধসে পড়েছে। এই অবস্থা চলতে পারে না। আমাদের এ অবস্থায় একজন নতুন প্রধানমন্ত্রী প্রয়োজন, যিনি (ব্রেক্সিট ইস্যুতে) কাজ করতে পারবেন।

দ্য সানডে টেলিগ্রাফ পত্রিকাকে সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নিকি মরগান বলেছেন, তেরেসা মে’কে মন্ত্রীপরিষদের সদস্যদের বলা উচিত যে, তার সময় শেষ হয়ে গেছে। অন্যদিকে স্টিভ বেকার বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আসতে চাওয়া নেতাদের এখনই কর্মকান্ড শুরু করা উচিত।
কনজার্ভেটিভ দলের ব্যাকবেঞ্চার হিসেবে পরিচিত এমপি অ্যান-মেরি ট্রেভেলিয়ান লিখেছেন, আমাদের এখন এমন একজন নেতা প্রয়োজন, যিনি আমাদের দেশের ওপর আস্থা রাখেন এবং তেরেসা মের বাকি কাজ এগিয়ে নিতে চান।

বাজফিড অনুযায়ী, এরই মধ্যে প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে’কে তারই কয়েকজন হুইপ বৈঠককালে জানিয়ে দিয়েছেন তার পদ ছেড়ে দেয়া উচিত। তবে তেরেসা মে তার পদে অনড় থাকতেই পছন্দ করছেন। ওদিকে শনিবার প্রায় ১০ লাখ মানুষ লন্ডনের রাস্তায় রাস্তায় বিক্ষোভ করেছেন। তাদের দাবি ‘পিপলস ভোট’। তারা দ্বিতীয় গণভোটের দাবিতে এমন বিক্ষোভ করেন। ব্রেক্সিটপন্থি বিক্ষোভকারীরা উত্তর-পূর্ব লন্ডন থেকে রাজধানীমুখী বিক্ষোভ অব্যাহত রেখেছেন। শনিবারের বিক্ষোভে সাবেক ইউকিপ নেতা নাইজেল ফারাজে বক্তব্য রেখেছেন বেশ কিছু স্থানে। এই বিক্ষোভে যোগ দিয়েছিলেন স্কটল্যান্ডের ফার্স্ট মিনিস্টার নিকোলা স্টারজেনও।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

প্রিয়াঙ্কা গান্ধী আটক

গো-রক্ষকদের হামলা বন্ধে মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেস সরকারের বিল পেশ

ডেঙ্গু এখন চিন্তার বিষয় : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে সহসাই কঠোর কর্মসূচি:ফারুক

আফগান পুলিশ সদরদপ্তরে তালিবান হামলায় নিহত ১১

সবচেয়ে উত্তপ্ত জুন মাস ছিল চলতি বছর

সিরাজগঞ্জে পরিবহন ধর্মঘট চলছেই

তীব্র স্রোতে ভেঙ্গে গেলো ভূঞাপুর-তারাকান্দি সড়ক

প্রয়াণ দিবসে হুমায়ূন স্মৃতি

৫ দিনের রিমান্ডে রিশান ফরাজী

‘নাটক নির্মাণে সাহস পাই না’

হরমুজ প্রণালিতে ইরানি ড্রোন ভূপাতিত করার দাবি ট্রাম্পের

হুমায়ূন আহমেদের ৭ম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

লন্ডনের পথে প্রধানমন্ত্রী

বর্ণবাদী মন্তব্যের পর বেড়ে গেছে ট্রাম্পের সমর্থন!

সৌদি আরবে সেনা পাঠানোর প্রস্তুতি আমেরিকার