‘শ্রোতাদের ভালোবাসাই শিল্পীর মূল শক্তি’

বিনোদন

ফয়সাল রাব্বিকীন | ২৩ মার্চ ২০১৯, শনিবার
চলচ্চিত্র ও ভিডিও গানে এরই মধ্যে রেকর্ড গড়েছেন দিলশাদ নাহার কনা। ইউটিউবের ভিউ বিচারে এখন দেশের নারী কণ্ঠশিল্পীদের মধ্যে সবচেয়ে এগিয়ে আছেন তিনি। সেই ধারাবাহিকতায় সমপ্রতি তার দুটি গান দুই কোটি ভিউয়ের ঘর অতিক্রম করেছে। এর একটি ‘রেশমী চুড়ি’ এবং অন্যটি হচ্ছে ‘ইচ্ছেগুলো’। কনা অবশ্য এ নিয়ে খুব একটা সিরিয়াস নন। তার ভাষ্য এমন, আমি তো মন দিয়ে গানটাই গাই। ভিডিওর বিষয়েও সহযোগিতা থাকে সব সময়। এরপর সেটি চলে যায় প্রযোজক হয়ে শ্রোতা-দর্শকদের হাতে।
তারা গানটি পছন্দ করলে ভালো লাগে। উৎসাহ পাই। এই যে ভিউ কিংবা রেকর্ড-এটাও একটা উৎসাহের বিষয়। আরো ভালো গান করার জন্য এই উৎসাহ খুব কাজে লাগে। এদিকে বরাবরের মতো এ শিল্পী বর্তমানে ব্যস্ত সময় পার করছেন গান নিয়ে। আজকের আলাপনে তার কাছে প্রথম প্রশ্ন কেমন চলছে দিনকাল? কনা বলেন, ভালোই। গানের ব্যস্ততার মাঝেই কাটছে সময়। এখন ব্যস্ততা কি নিয়ে? কনা বলেন, স্টেজ শো করছি নিয়মিত। মাসে অন্তত ১০টি শো করা হচ্ছে। এর ফাঁকেই রেকর্ডিংয়ের কাজগুলো করে নেই। অডিও, চলচ্চিত্রের গান, জিঙ্গেল ও বিজ্ঞাপনে কণ্ঠ দেয়ার কাজ চলছে। এই যে দীর্ঘ সময় ধরে টানা কাজ করে যাচ্ছেন। ক্লান্তিবোধ হয় না? কনা বলেন, দেখুন এই যুগটা হলো ছুটে চলার। সময়ের সঙ্গে যে ছুটে চলতে পারবে সে-ই এগিয়ে যাবে। তাই থেমে থাকার কোনো অবকাশ নেই। আমিও সময়ের সঙ্গে চলতে চেষ্টা করি। ক্লান্তিবোধ হয় না তা নয়। তবে যখন আমার ভক্ত-শ্রোতাদের ভালোবাসার কথা ভাবি তখন সব ক্লান্তি ভুলে যাই। প্রতিদিনই নতুন করে কাজ করার উদ্যম খুঁজে পাই। শ্রোতাদের ভালোবাসাই শিল্পীর মূল শক্তি। চলচ্চিত্রের গানে আপনার ব্যস্ততা ও সফলতা কেবল ক্রমাগত বাড়ছেই। এর রহস্য কি? কনা বলেন, কোনো রহস্য নেই। আমি কেবল আমার কাজ করে যাচ্ছি। চলচ্চিত্রের গানে অন্যরকম একটা ব্যাপার থাকে। প্রতিটি গানের একটি গল্প থাকে। সেই গল্পের সঙ্গে দৃশ্যায়ন থাকে। সে অনুযায়ী আসলে গান করতে হয়। আমি প্রতিটি গানে কণ্ঠ দেয়ার সময়টা অনেক উপভোগ করি। আমি চেষ্টা করি নিজের শতভাগটা দেয়ার। তার জন্য আমার তাড়াহুড়ো নেই। আর শ্রোতারা সে গানগুলো পছন্দ করছেন সেটাই আমার কাছে বড় বিষয়। এভাবেই শ্রোতাদের ভালোবাসা নিয়ে পথ চলতে চাই। অডিও গানের কি অবস্থা? কনা বলেন, দেখুন এখনতো অ্যালবাম হচ্ছে না তেমন। সিঙ্গেল প্রকাশ করছে সবাই। আমিও সিঙ্গেল করছি। যে সিঙ্গেলগুলো প্রকাশ করেছি তার মাধ্যমে সাড়া ভালো পেয়েছি। তাই আরো কিছু নতুন কাজ করছি। সেগুলো ভিডিও আকারে প্রকাশ হবে। অডিওর পাশাপাশি ভিডিও নিয়ে আমার আলাদা পরিকল্পনা থাকে। অডিওর সঙ্গে যেন শতভাগ যায় সেরকম ভিডিওই করে থাকি। সেদিক থেকে এবারো চমক থাকবে। খুব শিগগিরই আমার নতুন গানের ভিডিও শ্রোতা-দর্শক পাবেন। একটা গান সুন্দর ও আকর্ষণীয় করতে বেশির ভাগ শিল্পী এখন মিউজিক ভিডিওতে নাচছেন। আপনিও ‘রেশমী চুড়ি’ গানের ভিডিওতে নেচেছেন। কেন এই নাচ? কনা বলেন, এটা সংগীতশিল্পীর ব্যক্তিত্ব ও পরিবেশনার ওপর নির্ভর করছে। পৃথিবীতে অনেক আগে থেকেই গানের সঙ্গে শিল্পীর নাচ দেখছেন দর্শক। মাইকেল জ্যাকসন, ম্যাডোনা, জেনিফার লোপেজ, ব্রিটনি স্পিয়ার্স থেকে শুরু করে পাশের দেশ ভারতের শিল্পীরাও নাচে-গানে ভরপুর মিউজিক ভিডিও উপহার দিয়েছেন। আমি মনে করি, গানের শিল্পী একজন পারফরমার। তাই নাচ কোনো সমস্যা নয়। এবার একটু ভিন্ন প্রসঙ্গে আসা যাক। বিয়ে করছেন কবে? কনা বলেন, এই প্রশ্নটা আমার কাছে সবচেয়ে বেশি আসে। বিয়ে তো করবোই। তবে কবে করবো এটা এখনই বলতে পারছি না। অবশ্য করলে সেটা সবাইকে জানিয়েই করবো।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন