কুমিল্লায় বিদ্রোহী চ্যালেঞ্জে আওয়ামী লীগ প্রার্থীরা

এক্সক্লুসিভ

জাহিদ হাসান, কুমিল্লা থেকে | ২১ মার্চ ২০১৯, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১১:০৮
উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে কুমিল্লার ৮টি উপজেলায় দলের ‘বিদ্রোহী’ স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীদের কারণে কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছেন আওয়ামী লীগের মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থীরা। তার উপর ভেতরে ভেতরে অন্তত চারটি উপজেলায় স্থানীয় সংসদ সদস্যরা বিদ্রোহী ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে রয়েছেন বলে এলাকায় প্রচার রয়েছে। বিএনপি, জাতীয় পার্টিসহ ধর্মীয় কয়েকটি দলের নেতাকর্মীরাও বিদ্রোহীদের পক্ষে রায় দেবেন বলে গুঞ্জন রয়েছে। আগামী ৩১শে মার্চ চতুর্থ ধাপে কুমিল্লার ৮টি উপজেলা পরিষদ নির্বাচন হবে।

রিটার্নিং কর্মকতারা দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, এই নির্বাচনে কুমিল্লার ৮ উপজেলায় মোট প্রার্থীর সংখ্যা ৮০ জন। এর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ২৯ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩১ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ২২ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। নির্বাচনে ৮ উপজেলায় ৫৮৬টি ভোটকেন্দ্রে ভোটার সংখ্যা ১৬ লাখ ৮২ হাজার ৬৬০ জন। প্রার্থীদের সংখ্যা মেঘনা উপজেলায় বেশি, ১৪ জন ও চান্দিনায় কম প্রার্থী, ছয়জন প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন।

জানা যায়, বরুড়া উপজেলায় আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী চারবারের নির্বাচিত সাবেক সংসদ সদস্য প্রয়াত আবদুল হাকিমের ছেলে এ এন এম মইনুল ইসলাম।
এই উপজেলায় বরুড়া উপজেলা যুবলীগের সদস্য ও কুমিল্লা জেলা পরিষদের সাবেক সদস্য সোহেল সামাদ স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন। তিনি দোয়াত কলম প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন।

মেঘনা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল্লাহ মিয়া রতন শিকদার। এই আসনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী দুইজন। তারা হলেন কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক ও বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান দোয়াত কলম প্রতীকের আবদুস সালাম ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান আনারস প্রতীকের তাজুল ইসলাম। আবদুস সালামের পক্ষে আছেন কুমিল্লা-১ (দাউদকান্দি ও মেঘনা) আসনের সংসদ সদস্য সুবিদ আলী ভূঁইয়া ও তার ছেলে দাউদকান্দি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী। এতে করে কঠিন চ্যালেঞ্জে আছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী।

বুড়িচং উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হাসেম খান। এই উপজেলায় বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আনারস প্রতীকের প্রার্থী আখলাক হায়দার। গত ১০ মার্চ দুপুরে দুই প্রার্থীর অনুসারীদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ায় অন্তত ৫ জন আহত হন ও দোকান ভাঙচুর হয়। এই ঘটনায় নৌকা প্রতীকের ২৪ কর্মীর বিরুদ্ধে মামলা হয়। কুমিল্লা-৫ (বুড়িচং ও ব্রাহ্মণপাড়া) আসনের সংসদ সদস্য আবদুল মতিন খসরু গোপনে আখলাক হায়দারকে সমর্থন দিচ্ছেন বলে তার অনুসারীরা প্রচার করছেন।
ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী টানা দুইবারের চেয়ারম্যান উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক জাহাঙ্গীর খান চৌধুরী। এই উপজেলায় সংসদ সদস্য আবদুল মতিন খসরু দলীয় প্রার্থীর পক্ষে আছেন। কিন্তু এখানকার বিদ্রোহী প্রার্থী আনারস প্রতীকের মুহাম্মদ আবু তাহের। তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক ও কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আবু তৈয়বের বাবা। গতবারও তিনি নির্বাচন করেছিলেন। তার পক্ষে আওয়ামী লীগের একাংশের নেতাকর্মী ছাড়াও অন্যদলের নেতাকর্মীরা রয়েছেন।

চান্দিনা উপজেলায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বর্তমান চেয়ারম্যান তপন বক্সী। এই উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আনারস প্রতীকের মো. মজিবুর রহমান। মজিবুরকে সমর্থন দিচ্ছেন কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য বিশিষ্ট চিকিৎসক প্রাণ গোপাল দত্ত। এই উপজেলায় স্থানীয় সংসদ সদস্য আলী আশরাফ তিনটি পদে তিনজনের প্যানেল দিয়েছেন। প্রাণগোপালও তিনটি পদে তিনজনকে বিদ্রোহী প্রার্থী করেন। গত শুক্রবার সংসদ সদস্য আলী আশরাফকে নিয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা ডাকা হয় নবাবপুর আহসান উল্লাহ উচ্চবিদ্যালয়ে। বিদ্রোহী প্রার্থীর আপত্তির মুখে রিটার্নিং কর্মকর্তা সেটি বন্ধ করে দেন।
তিতাস উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মো. শাহিনুল ইসলাম (সোহেল শিকদার)। এই উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আনারস প্রতীকের পারভেজ হোসেন সরকার। পারভেজের অনুসারীদের দাবি, স্থানীয় সংসদ সদস্য সেলিমা আহমেদ তাদের পক্ষে আছেন।

হোমনা উপজেলায় আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়ে নির্বাচন করছেন কুমিল্লা উত্তর জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সদস্য রেহানা বেগম। তিনি হোমনা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল মজিদের সহধর্মিনী। এই উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এ কে এম সিদ্দিকুর রহমান। তার পক্ষে আছেন বাসিন্দা কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের একজন প্রভাবশালী নেতা। তবে এই উপজেলায় দলীয় প্রার্থীর পক্ষে আছেন সংসদ সদস্য সেলিমা আহমাদ মেরী।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ধরন পাল্টানোয় চিন্তিত চিকিৎসকরা

ডেঙ্গু রোগীর চাপে হিমশিম কর্তৃপক্ষ

প্রতিদিনই বাড়ছে রোগী

এরশাদের চেয়ারে জিএম কাদের

ধর্ষণ মামলার বিচারে হাইকোর্টের ৬ নির্দেশনা

রিফাত হত্যার পরিকল্পনায় মিন্নি জড়িত

হটলাইন কমান্ডো নিয়ে আসছেন সোহেল তাজ

শিক্ষার্থীদের প্রযুক্তির সঙ্গে যুক্ত হয়ে দেশের উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে হবে- সালমান এফ রহমান

বেসিক ব্যাংককে ৩ হাজার কোটি টাকা ছাড়

১১ খাতে ওয়াসার দুর্নীতি পেয়েছে দুদক

‘আমলারাই এ সরকার টিকিয়ে রেখেছে’

ঢাবি থেকে ৭ কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের দাবিতে আবারো শাহবাগ মোড় অবরোধ

ব্যাংক চান ডিসিরা

ব্যাগে শিশুর মাথা বহনকারী যুবককে পিটিয়ে হত্যা

পাকুন্দিয়ায় স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যা

সরল বিশ্বাসে ভুল অপরাধ নয়- দুদক চেয়ারম্যান