হঠাৎ শুরু হয় জালভোট

এক্সক্লুসিভ

ওয়েছ খছরু, কোম্পানীগঞ্জ (সিলেট) থেকে ফিরে | ১৯ মার্চ ২০১৯, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ১:৫১
বিকাল তখন ৩ টা। কোম্পানীগঞ্জের থানা সদর উচ্চ বিদ্যালয়। আওয়ামী লীগ প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম কালো জিপে করে এসে ঢুকলেন কেন্দ্রে। কেন্দ্রের বাইরে থাকা নেতাকর্মীরা হুমড়ি খেয়ে ঢুকে পড়লেন কেন্দ্রে। শুরু হলো জাল ভোটের মহোৎসব। কেন্দ্রের ভেতরে থাকা স্বতন্ত্র প্রার্থী শামীম আহমদের এজেন্টরা বেরিয়ে এলেন মাঠে। চিৎকার করে বললেন- ওরা কেউ ভোটার না।  জোরপূর্বক ব্যালট ছিনিয়ে নিয়ে জাল ভোট দিচ্ছে। সঙ্গে মহিলা কেন্দ্রের এজেন্টও বেরিয়ে এলেন।
শুরু হয়ে গেলো হুলস্থূল। মাত্র একজন পুলিশ অসহায় হয়ে দাঁড়িয়ে রইলেন। তার কিছুই করার ছিলো না। যুবলীগ ও ছাত্রলীগের কর্মীরা কেন্দ্রে, মাঠে অবস্থান নিয়েছেন। এমন অবস্থায় অসহায় থাকা এক পুলিশ কর্মকর্তা ফোন দিলেন কন্ট্রোলরুমে। এরই মধ্যে পরিস্থিতি ঘোলাটে হতে শুরু করে। মহিলা কেন্দ্রের ভেতরে একজন মহিলা ভোটার ব্যালট বাক্সের পাশে বসে জাল ভোট দিচ্ছিলেন। হাতেনাতে গিয়ে ধরলেন ওই কেন্দ্রের প্রিজাইডিং কর্মকর্তা আবদুল হামিদ। সঙ্গে সঙ্গে গিয়ে উপস্থিত নৌকার প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম। তিনি ওই মহিলাকে ছাড়িয়ে নিয়ে এলেন। প্রিজাইডিং কর্মকর্তা আবদুল হামিদ নৌকার প্রার্থীকে সতর্ক করে দিয়ে বললেন- জাল ভোট দিতে চাইলে তিনি ভোট গ্রহণ স্থগিত করে দেবেন। এই ফাঁকে  মোটরসাইকেলে আসা পুলিশ দল লাঠিচার্জ শুরু করলে কেন্দ্রের ভেতরের পরিবেশ স্বাভাবিক হয়ে আসে। তবে- বিকেল ৪ টা পর্যন্ত ওই কেন্দ্রে উত্তেজনা বিরাজ করে। কোম্পানীগঞ্জের স্বতন্ত্র প্রার্থী হাজী শামীম আহমদ জানিয়েছেন- জাহাঙ্গীর আলমের লোকজন ইচ্ছাকৃতভাবে পরিস্থিতি ঘোলাটে করার চেষ্টা করছে। তারা বিকালের দিকে কেন্দ্র দখল করে জাল ভোট দিতে মরিয়া হয়ে ওঠে। তিনি বলেন- নানাভাবে তারা ভোটকেন্দ্র প্রভাবিত করার চেষ্টা করেছে। এদিকে- কোম্পানীগঞ্জে গতকাল দুপুরের আগ পর্যন্ত ভোট উৎসব হয়েছে। তবে- দুপুরের পর অধিকাংশ কেন্দ্রই ছিলো ফাঁকা। আর এসব ফাঁকা কেন্দ্রে নিজেদের প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা চালান প্রার্থীরা। সকাল তখন ৮ টা। সিলেটের লাক্কাতুরা চা বাগানের কেন্দ্রগুলোতে গিয়ে দেখা যায় ভিড়। কেন্দ্রে ভোটারের লম্বা লাইন। বেশির ভাগ ভোটারই চা শ্রমিক। তারা সকাল সকাল ভোট দিতে কেন্দ্রে এসে উপস্থিত হয়েছেন। চা বাগান এলাকা পাড়ি দিয়ে ধোপাগুলে আসতেই বদলে যায় পরিবেশ। সকাল সাড়ে ৮ টা। কেন্দ্রের বাইরে লোকজনের ভিড়। তবে- ভেতরে ভোটারের সংখ্যা কম। সকাল ১০ টার পর ওই কেন্দ্রে ভোটারের উপস্থিতি বাড়বে বলে জানান সংশ্লিষ্টরা। গোয়াইনঘাটের পিয়াইনগুল উচ্চ বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা গেল খুব স্বল্পসংখ্যক ভোটার। এই কেন্দ্রে নারী ভোটারের উপস্থিতি কম। স্থানীয়রা জানিয়েছেন- সকালে অনেকেই
 কাজে ব্যস্ত। এ কারণে সকাল ৯ টার পর ভোটাররা আসতে পারেন। কেন্দ্রের বাইরে  নৌকা এবং একজন স্বতন্ত্র প্রার্থীর লোকজন দাঁড়িয়ে ছিলেন। তারা বললেন- ভোটারদের  কেন্দ্রে আনতে তারা চেষ্টা চালাচ্ছেন। তবে- এই ভোট নিয়ে স্থানীয়দের মধ্যে তেমন আগ্রহ নেই বলে দাবি করেন তারা। কোম্পানীগঞ্জের বর্ণি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে ঠিক উল্টো পরিবেশ। ওই কেন্দ্রে পুরুষ ও মহিলা বুথে ভোটারের দীর্ঘ সারি। প্রিজাইডিং অফিসার জানিয়েছেন- এই কেন্দ্রে প্রায় দুই হাজার ভোটার রয়েছেন। সকাল ১০ টার মধ্যে তারা প্রায় ১৫ ভাগ ভোট কাস্ট করেছেন।  কোম্পানীগঞ্জ সদরের কাছাকাছি কোম্পানীগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা গেলো ভোটারের উপস্থিতি রয়েছে। স্থানীয় স্বতন্ত্র প্রার্থী আপ্তাব আলী কালা মিয়া তার সমর্থকদের নিয়ে ওই কেন্দ্রে উপস্থিত রয়েছেন। সাংবাদিকদের দেখা মাত্র তিনি কেন্দ্রের বাইরে চলে আসেন। পরে পুলিশ উপস্থিত লোকজনকে ভোটকেন্দ্রের কাছাকাছি এলাকা থেকে সরিয়ে দেয়। তবে- আপ্তাব আলী কালা মিয়া দাবি করেন- ওই কেন্দ্রে সুষ্ঠুভাবে ভোটগ্রহণ হয়েছে। কেন্দ্রে প্রিজাইডিং অফিসার সাইফুর রহমান জানালেন- দুপুরের পূর্ব-মুহূর্ত তার কেন্দ্রে ১২০০ ভোট কাস্ট হয়েছে। কোম্পানীগঞ্জের কাঁঠালবাড়ী মাদ্‌রাসা ভোটকেন্দ্রে বার বার উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে। ওই কেন্দ্রে জাল ভোট, প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা চালানো হয় বলে জানিয়েছেন একজন স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকরা। তবে- কেন্দ্রে প্রিজাইডিং অফিসার বদরুল ইসলাম জানিয়েছেন- আমার কাছে কেউ লিখিত অভিযোগ দেয়নি। ভোট শান্তিপূর্ণ করতে তার পক্ষ থেকে যা করা প্রয়োজন তিনি সবই করছেন বলে জানান। এদিকে- সিলেটের জৈন্তাপুরের হেমু সহ কয়েকটি ভোটকেন্দ্রে জাল ভোটের ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে চেয়ারম্যান প্রার্থী লিয়াকত আলী ও কামাল আহমদের সমর্থকরা মুখোমুখি হলে পুলিশ জাল ভোটের দায়ে ৬ জনকে আটক করে। সকাল থেকে জৈন্তাপুর সদর ও আশপাশের এলাকার কয়েকটি কেন্দ্রের বাইরে উত্তেজনার খবর পাওয়া গেছে। তবে- গোলযোগের কারণে কেন্দ্র স্থগিতের ঘটনা ঘটেনি। বিকালে সিলেটের সদর উপজেলার আখালিয়া এলাকায় ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী পারভেজ ও মকবুলের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ দুই জনকে আটক করেছে। এ সময় পুলিশ রাবার বুলেট ছুটে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। সিলেটের রিটার্নিং কর্মকর্তা সন্দীপ সিংহ জানিয়েছেন- কানাইঘাটে একটি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণে অনিয়ম হওয়ার কারণে একজন পোলিং এজেন্ট সহ ৪ জনকে আটক করা হয়েছে। তবে- সেখানে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা গেছেন। এদিকে- সিলেটে গতকালের ভোটারের উপস্থিতি ছিলো কম। বিশেষ করে বিশ্বনাথ, বালাগঞ্জ, সিলেট সদর, গোলাপগঞ্জ, জকিগঞ্জ সহ কয়েকটি এলাকায় ভোটাররা এই ভোটে অনীহা দেখিয়েছে।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন