খাদেমের বীরত্বে বেঁচে গেল অর্ধশতাধিক মুসল্লির প্রাণ

শেষের পাতা

মানবজমিন ডেস্ক | ১৬ মার্চ ২০১৯, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১১:৫৫
বন্দুকধারী এক ব্যক্তি মসজিদে ঢুকেই অতর্কিতভাবে মুসল্লিদের ওপর নির্বিচারে গুলি করতে শুরু করে। গুলিবিদ্ধদের হৃদয়বিদারক চিৎকারের মধ্যেও চলছে অব্যাহত গুলি। এমন সময় পেছন থেকে ওই বন্দুকধারীকে জাপটে ধরেন এক যুবক। শুরু হয় ধস্তাধস্তি। একপর্যায়ে কেড়ে নেয়া হয় বন্দুক। পরে হামলাকারী মসজিদ থেকে বেরিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যায়। বাইরে অপেক্ষারত সহযোগীদের গাড়িতে উঠে মুহূর্তেই ঘটনাস্থল ত্যাগ করে সে।

সিনেমার দৃশ্য মনে হলেও নিউজিল্যান্ডের লিনউড মসজিদে গতকাল ঠিক এমনটিই ঘটেছে। অসাধারণ বীরত্ব দেখানো ওই যুবক মসজিদের দেখভাল করেন। বাংলাদেশে এরা খাদেম বলে পরিচিত। গতকাল ওই খাদেমের বীরত্বেই মসজিদের অর্ধশতাধিক মুসল্লি প্রাণে বেঁচে গেছেন। নিউজিল্যান্ড হেরাল্ডের এক প্রতিবেদনে খাদেমের সাহসিকতার গল্প তুলে ধরা হয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শী সৈয়দ মাজহারউদ্দিন জানান, তিনি ও মসজিদের খাদেম বন্ধু। বন্দুক হামলার সময় তারা দু’জনেই মসজিদে ছিলেন। তিনি বলেন, হঠাৎ খুব কাছেই গুলির শব্দ শুনতে পান তিনি। আন্দাজ করেন যে, বন্দুকধারী তার একেবারেই নিকটে। এতে সবাই আতঙ্কিত হয়ে চিল্লাচিল্লি শুরু করেন। সৈয়দ মাজহারুদ্দিন বলেন, আত্মরক্ষার জন্য আমি আশ্রয় খুঁজতে থাকি। তখন মসজিদের সদর দরজা দিয়ে বন্দুকধারী ভেতরে প্রবেশ করে।

ছোট মসজিদটিতে এ সময় ৬০-৭০ জন মুসল্লি ছিলেন। দরজার পাশেই বয়স্ক ব্যক্তিরা নামাজ পড়ছিলেন। এসব ব্যক্তিদের দিয়ে হত্যাযজ্ঞ শুরু করে বন্দুকধারী। ঢালাওভাবে গুলি চালাতে থাকে তাদের ওপর। তার গায়ে ছিল ‘প্রটেকটিভ গিয়ার’ (আত্মরক্ষা করার মতো পোশাক বা সরঞ্জাম)। তখন হঠাৎ এক যুবক সুযোগ বুঝে বন্দুকধারীর ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে এবং তার বন্দুক ছিনিয়ে নেয়। এই যুবক মসজিদটির দেখভাল করে থাকেন অর্থাৎ খাদেম। পরে বন্দুক হাতে খাদেম ওই হামলাকারীকে তাড়া করতে থাকেন। বন্দুক হাতে পেলেও এর ট্রিগার খুঁজে পাচ্ছিলেন না তিনি। হামলাকারীকে পেছন দিক থেকে ধাওয়া করলেও সে বাইরে অপেক্ষারতদের সঙ্গে গাড়িতে উঠে পালিয়ে যায়।

মসজিদের ভেতরে বন্দুকধারীর হামলায় মাজহারুদ্দিনের আরো কয়েকজন বন্ধু গুলিবিদ্ধ হন। ঘটনাস্থলে তার এক বন্ধু মারা যান, আরেক বন্ধুর তীব্র রক্তক্ষরণ হচ্ছিল। মাজহারুদ্দিন বলেন, আমি দৌড়ে বের হই। পরে পুলিশ আসে। তারা আমাকে আর মসজিদের ভেতরে ঢুকতে দেয়নি। ফলে রক্তক্ষরণ হওয়া বন্ধুর জীবন বাঁচাতে পারিনি। অ্যাম্বুলেন্স আসতে আরো আধাঘণ্টার বেশি সময় লাগে। ততক্ষণে তার প্রাণ হয়তো শেষ হয়ে গেছে।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ভর্তুকি দিয়ে হলেও চাল রপ্তানি করা হবে: অর্থমন্ত্রী

ঠিকাদারি বিল বন্ধের নির্দেশ, দুই তদন্ত কমিটি

‘আগ্রাসন ও পরিণতি’ নিয়ে জিসিসি, আরব লীগের জরুরি বৈঠক ডেকেছে সৌদি আরব

হাসপাতালের মর্গে লাশ, স্ত্রীর দাবি জীবিত, কর্মচারিদের সঙ্গে ধস্তাধস্তি (ভিডিও)

পাকিস্তানে আজ সবার চোখ থাকবে বিলাওয়াল, মরিয়মের দিকে

পারস্য উপসাগরে তেলস্থাপনায় হামলায় গভীর উদ্বেগ বাংলাদেশের

মুক্তিযোদ্ধার বয়স নির্ধারণে সংশোধিত পরিপত্র বেআইনি

জীবন্ত মাটিচাপা দেয়া শিশুকে উদ্ধার করল কুকুর (ভিডিও)

আমরণ অনশনে ছাত্রলীগের পদবঞ্চিত নেতাকর্মীরা

আর্নল্ড সোয়ার্জেনেগারকে লাথি মারলো যুবক (ভিডিও)

কৃষক ক্ষেতে আগুন দিচ্ছে, সরকার নির্বিকার: দুদু

লক্ষ্মীপুরে ৭ বছরের শিশুকে যৌন নির্যাতন, অভিযুক্ত ইউপি সদস্য পলাতক

বেরোবির ভর্তি পরীক্ষার সোয়া কোটি টাকা বন্টন, শিক্ষক-কর্মকর্তাদের অসন্তোষ

সারাক্ষণ ভয়ে থাকেন তারা

তিতুমীরের শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধ

ঈদযাত্রায় এবারের প্রস্তুতি যে কোন সময়ের চেয়ে ভালো: ওবায়দুল কাদের