আমরা কেবল লাশ গুনি

এক্সক্লুসিভ

সাজেদুল হক | ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ২:২৫
মৃত্যুর মিছিল চলছে। মারা যাচ্ছে মানুষ। বেরুচ্ছে একের পর এক লাশ। আমাদের চোখের সামনেই। আমরা কিছুই করতে পারছি না। ফায়ার সার্ভিস রাতভর চেষ্টা করেছে। লড়াই করেছে জীবনবাজি রেখে। কিন্তু যা হওয়ার তা হয়েই গেছে।

এ যেন সবারই জানা ছিল। দিনটি আসবে। কেবল কবে আসবে তা হয়তো আমরা জানতাম না। অপেক্ষা করেছি। একটি অক্ষম এবং বিস্মৃতিপরায়ণ জাতির অপেক্ষা। ৯ বছর পর সেই রাত আবার ফিরে এলো। নিমতলি ট্র্যাজেডির পর কত কথা হলো। কত আওয়াজ। শোক, কান্না। নাজিম হিকমত লিখে গেছেন, বিংশ শতাব্দীতে মানুষের শোকের আয়ু বড় জোর এক বছর। কিন্তু আমাদের শোকের আয়ু আসলে আরো কম। আমরা সবকিছু মেনে নিতে এবং মানিয়ে নিতে শিখে গেছি।

নিমতলী থেকে চকবাজার। কত কাছে। নিমতলীতে শতাধিক প্রাণহানির পর এ দাবি জোরেশোরে উঠেছিল যে রাসায়নিক গুদামঘরগুলো সরিয়ে নিতে। নানা ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলা হয়েছিল। নিরাপদ ঢাকা। এ যেন রীতিমতো পরিহাস। আরেকটি কালো রাত এটা পরিষ্কার করে দিয়ে গেছে যে, কাজের কাজ কিছুই হয়নি। গুটিকয়েক লোকের সীমাহীন লোভের কাছে তুচ্ছ অগণিত মানুষের জীবন। এমনকি সময় আর সভ্যতাও বোধ হয় নতুন এক অস্বাভাবিক পরিস্থিতি তৈরি করে দিয়েছে। সবকিছুই যেন এখন স্বাভাবিক। সকালেই ঢাকায় অনেক মানুষের চোখের ভাষার পড়ার চেষ্টা করলাম। গণপরিবহনে, রাস্তায় মানুষের চোখে-মুখে শোকের ছায়া খুব বেশি নয়। অথচ এই শহরে একরাতে এতগুলো মানুষ নাই হয়ে গেল। ‘আব্বা, এনামুল পুইড়া মইর‌্যা গেছে’- এই এনামুল আমাদের যেকারো বাবা, ভাই হতে পারতো। আছিয়া বেগমের ভাইকে আমরা কেউই আর ফিরিয়ে দিতে পারবো না।

শোকের মিছিল যে নেই তা নয়। স্বজনহারাদের কান্নার বাইরেও বহু মানুষ শোকাতুর। যুক্তরাষ্ট্রের ইলিনয় স্টেট ইউনিভার্সিটির শিক্ষক আলী রীয়াজ লিখেছেন, এত মৃত্যু! সহজেই নিবার্য ছিল এই সব প্রাণহানি। কিন্তু এই  লেলিহান শিখা কি কেবল আগুনের? এই লেলিহান আগুনের আলোয় কি আর কিছুই দেখা যাচ্ছে না? ২০১০ সালের ৩রা জুন নিমতলির আগুনে ১২৪ জনের মৃত্যুর পরে যে তদন্ত কমিটি হয়েছিল তার কোন সুপারিশ বাস্তবায়িত হয়েছিল আমরা জানি না, কিন্তু মনে পড়ে একদিন জাতীয় শোক দিবস পালনের কথা। এর বেশি আর কিছুই হয়েছে বলে মনে হয় না। ৬ই জুন ২০১০, ডেইলি স্টারের সম্পাদকীয়তে বলা হয়েছিল, ‘কেবল শোক দিবস পালন নয়, সময় এসেছে আমাদের জাতীয় জবাবদিহি দিবস পালনের; কেননা জবাবদিহির অনুপস্থিতিই জাতিকে এই জায়গায় নিয়ে এসেছে’।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক আর রাজী লিখেছেন, একুশ মানে মাথা নত না করা? ঢাকার চকবাজারে এতগুলো মৃত্যুর জন্য কেউ কি দায়ী? কে বা কারা দায়ী? কে কে বা কারা দায়িত্ব পালন না করায় এমন বিপুল প্রাণহানি হলো? সম্পদহানি হলো? কে বা কারা এ দুর্ঘটনার দায় স্বীকার করে, ক্ষমা চেয়ে, পদত্যাগ করবে? কাকে বা কাদের আমরা এই অপরাধ ও অযোগ্যতার জন্য বিচারের সম্মুখীন হতে এবং শাস্তি পেতে দেখবো? না কি দেখবো নতুন কোনো নাটক মঞ্চস্থ হতে? ক্ষমাহীন ঘৃণা ছাড়া আমাদের অন্তরে তাদের জন্য আর কিছু কি অবশিষ্ট আছে, না কি থাকতে পারে?
শেষ কথা: এ এমন এক সময় যখন প্রার্থনা ছাড়া আমাদের আসলে খুব বেশি কিছু করার নেই। আসুন, নিহত আর তাদের স্বজনদের জন্য আমরা প্রার্থনা করি। শোকের আয়ু শেষ হয়ে যাওয়ার পরও এই হতভাগাদের কথা যেন আমরা ভুলে না যাই।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

এবার মালিবাগে পুলিশকে লক্ষ্য করে হামলা

বগুড়ায় নুরের ওপর হামলা

ধানের দাম নেই, চালে ছাড় নেই

বৃষ্টিতেও দৃঢ় মনোবল টাইগারদের

খালেদার মামলায় আদালত স্থানান্তরের বৈধতা নিয়ে রিট

তরুণ সাংবাদিক ফাগুনের লাশ উদ্ধারের ঘটনায় হত্যা মামলা

ট্রাভেল পারমিটে কড়াকড়ি জটিলতার আশঙ্কা

গতবছর ফেসবুকের কাছে ১৯৫ ব্যবহারকারীর তথ্য চেয়েছিল বাংলাদেশ

রঙ লাগিয়ে ঈদে সড়কে নামছে লক্করঝক্কড় বাস

তারেকের স্মৃতি হাতড়ে ফেরেন নুরুন নাহার

রাজাকারদের তালিকা সংরক্ষণের সুপারিশ

মামলার আগেই গ্রেপ্তার, শাহপরাণে তোলপাড়

ইতালিতে প্রদর্শিত হলো ড. ইউনূসের জীবনীভিত্তিক অপেরা

৩০শে মে সন্ধ্যায় শপথ নেবেন মোদি

পদত্যাগ করলেন মহারাষ্ট্র কংগ্রেস প্রধান

চিকিৎসকদের আরো দায়িত্বশীল হওয়ার আহ্বান ডা. এ আর খানের