সুপ্রিম কোর্টে মানববন্ধনে আইনজীবীরা

গণতন্ত্র চাইলে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার | ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, মঙ্গলবার, ৭:১৬
গণতন্ত্রের প্রতীক কারাবন্দী বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। দেশে গণতন্ত্র চাইলে তাকে মুক্ত করতে হবে। কারণ গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার লড়াই করতে গিয়ে তিনি আজ কারাবন্দী। কারাগারে গুরুতর অসুস্থ হয়েও চিকিৎসা পাচ্ছেন না তিনি।  

মঙ্গলবার দুপুরে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী (বার) সমিতির ভবনের সামনে ‘গণতন্ত্র ও খালেদা জিয়া মুক্তি আইনজীবী আন্দোলন’ আয়োজিত মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশে আইনজীবীরা এসব কথা বলেন। বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুপ্রিম কোর্টসহ নিন্ম আদালতের সর্বস্তরের দুর্নীতি ও বিচার বিভাগের ওপর সরকারী হস্তক্ষেপ বন্ধের দাবিতে সংগঠনটি এ কর্মসূচি পালন করে। কর্মসূচি পালনকালে আইনজীবীরা খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে নানা সেøাগান দেন।

‘গণতন্ত্র ও খালেদা জিয়া মুক্তি আইনজীবী আন্দোলনের সুপ্রিম কোর্ট শাখার চেয়ারম্যান ও সুপ্রিম কোর্ট বারের সাবেক সম্পাদক আলহাজ্ব গিয়াস উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের চেয়ারম্যান তৈমূর আলম খন্দকার, কো-চেয়ারম্যান মনির হোসেন, আবেদ রাজা, নেজামে ইসলাম পার্টির চেয়ারম্যান মাওলানা আবদুর রকিব, আইনজীবী সৈয়দা আসিফা আশরাফী পাপিয়া,  মো. শহিদুল ইসলাম, ওয়াসেল উদ্দিন বাবু, ফারুক হোসেন, যুগ্ম মহাসচিব আনিছুর রহমান খান প্রমুখ।
অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সংগঠনের সুপ্রিম কোর্ট ইউনিটের মহাসচিব আইয়ুব আলী আশ্রাফী।

তৈমুর আলম খন্দকার বলেন, সুপ্রিম কোর্ট বারে বিএনপি সমর্থিত নেতারা জয়ী হয়ে আসছেন। কিন্তু গণতন্ত্র, আইনের শাসন ও বিচার বিভাগের স্বাধীনতার জন্য কোনো আন্দোলন হচ্ছে না। আমরা আন্দোলনমুখী নেতৃত্ব চাই। ঘুনে ধরা নেতারা আবার নির্বাচন করলে খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য কোনো আন্দোলন হবে না।

মনির হোসেন বলেন, ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে দেশের মানুষ ভোট দিতে পারেনি। রাতের আধারে ভোট জালিয়াতি হয়েছে। ১৬ কোটি মানুষের ভোটের অধিকার না থাকায় দেশে গণতন্ত্রও নেই। অতীতে স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনের সূচনা হয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট থেকে। আইনজীবীরাই আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়েছেন। আমরা আন্দোলন শুরু করেছি, এখান থেকে সারা দেশে আন্দোলন ছড়িয়ে দিতে হবে।

তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার মুক্তি ও গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার জন্য গতিশীল বার প্রয়োজন। গত এক দশকে আইনজীবীরা শক্তিশালী বারের লক্ষ্যে ভোট দিলেও কাঙ্খিত বার ও নেতৃত্বের দিক নির্দেশনা আসেনি। এবারের নির্বাচনে আইনজীবীদের প্রত্যাশার প্রতিফলন ঘটাতে আমরা শক্তিশালী বার উপহার দিব। বার শক্তিশালী হলে গণতন্ত্র ও বেগম খালেদা জিয়াসহ সব রাজবন্দী মুক্ত হবে। জনগণের অধিকার ও আইনের শাসন নিশ্চিত হবে।   
সভাপতির বক্তব্যে গিয়াস উদ্দিন আহমেদ বলেন, সুপ্রিম কোর্টসহ দেশের সব বারে আন্দোলনের মাধ্যমে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে। দেশে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে এবং খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত করতে সবাইকে আন্দোলনে সম্পৃক্ত হতে হবে।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Mohammad Arman Ali

২০১৯-০২-১৯ ০৭:০৮:৫৭

Akjoge sokol jatiotabadi aiengibi porisod k suprime court theke suru kore president borabor abedon Korte Hobe..akhon porjonto ai Mohan neta ke jara mittha,banowat,hoyrari ,prohoson ar jal bulteche..jatir Sathe beimanir opochesta calacche..aien ar mukhomukhi tader hotey Hobe...

আপনার মতামত দিন

সিরিয়ায় আইএস নিশ্চিহ্ন হয়ে যাওয়ার দাবি

ভীতুদের দায়িত্ব ছাড়তে বললেন গয়েশ্বর

নরসিংদীতে স্কুলছাত্র নিহতের প্রতিবাদে মহাসড়ক অবরোধ

রাজাপুরে আওয়ামী লীগ ও বিদ্রোহীদের মধ্যে সংঘর্ষে আহত ১০

খালেদার মুক্তির দাবিতে ছাত্রদলের মিছিল

আওয়ামী লীগ একুশের চেতনা বিরোধী: মির্জা ফখরুল

প্রেসিডেন্ট হতে চান ইভানকা, হোয়াইট হাউসের প্রত্যাখ্যান

শরণখোলায় ঘুমন্ত স্বামীকে হত্যাচেষ্টা

ঢাকা সহ ১৩ রুটে ফ্লাইট স্থগিত করেছে ইন্ডিয়ান জেট এয়ারওয়েজ

চট্টগ্রামে দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

ক্রাইস্টচার্চ: সন্তানের লাশ দাফন শেষে হার্র্টঅ্যাটাকে মায়ের মৃত্যু

বিজেপি দুই দফাতেও অর্ধেক আসনে প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করতে পারেনি

২৮ বছর পর ডাকসু নির্বাহী কমিটির সভা, দায়িত্ব নিলেন নুর-রাব্বানী

জম্মু ও কাশ্মীরে এবার নিষিদ্ধ জেকেএলএফ

তৃণমূল কংগ্রেসের নতুন লোগোতে শুধুই তৃণমূল

বরিশাল থেকে সব রুটের বাস চলাচল বন্ধ