পাকিস্তানকে উজাড় করে দিলেন ক্রাউন প্রিন্স

শেষের পাতা

মানবজমিন ডেস্ক | ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ১১:৫৯
চালকের আসনে ইমরান খান, পাশে সৌদি ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান
ঋণের ভারে জর্জরিত পাকিস্তান ঘুরে গেছেন সৌদি আরবের ক্ষমতাশালী ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান। সফরে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী প্রটোকল ভেঙে নিজেই গাড়ি চালিয়ে যেমন নজিরবিহীন আতিথেয়তা দেখিয়েছেন, তেমনি সৌদি ক্রাউন প্রিন্সও উজাড় করে দিয়েছেন পাকিস্তানকে। দু’দিনের সফর সংক্ষিপ্ত করে এক দিনের মাথায় গতকাল রিয়াদের উদ্দেশ্যে পাকিস্তান ত্যাগ করেন ক্রাউন প্রিন্স বিন সালমান। কিন্তু এর আগে পাকিস্তানের ৭টি প্রকল্পে মোট দুই হাজার কোটি ডলার বিনিয়োগের চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন তিনি। একই সঙ্গে সৌদি আরবে বন্দি দুই হাজারেরও বেশি পাকিস্তানিকে মুক্ত করার ঘোষণা দিয়েছেন। প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, পাকিস্তানিদের জন্য তিনি সম্ভাব্য সব কিছুই করবেন।  
পাকিস্তানকে একটি ‘ডিয়ার কান্ট্রি’ বা প্রিয় দেশ বলে আখ্যায়িত করেছেন সৌদি আরবের ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান। তিনি বলেছেন, আমরা বিশ্বাস করি অদূর ভবিষ্যতে পাকিস্তান হতে যাচ্ছে অত্যন্ত, অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি দেশ। আমরা নিশ্চিত হতে চাই যে, আমরা তাদের একটি অংশ। বর্তমানে গ্রেট এক নেতৃত্বের অধীনে পাকিস্তানের সামনে আছে একটি গ্রেট ভবিষ্যৎ। রোববার তিনি দু’দিনের সফরে পাকিস্তান এসেছেন। এ সময়ে তিনি পাকিস্তানের ভবিষ্যত অর্থনীতির বিষয়ে আশা প্রকাশ করেছে। তিনি বলেছেন, বিভিন্ন ক্ষেত্রে ইসলামাবাদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গে অংশীদারির ভিত্তিতে কাজ করার জন্য অপেক্ষা করছে তার দেশ। এ খবর দিয়েছে ভারতের বার্তা সংস্থা আইএএনএস।

পাকিস্তান সফরে এসে রোববার রাতে তিনি ইসলামাবাদে প্রাইম মিনিস্টার হাউসে নৈশভোজে অংশ নেন। এ সময়ই তিনি এসব মন্তব্য করেন। বলেন, সৌদি আরবের সব নাগরিকের কাছে পাকিস্তান হলো একটি প্রিয় দেশ। কঠিন ও ভালো সময়ে দুটি দেশ একসঙ্গে কাজ করেছে।

সৌদি আরবের শক্তিধর এই ক্রাউন প্রিন্স বলেছেন, পাকিস্তানের অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও নিরাপত্তা বিষয়ে সহযোগিতা করতে চায় সৌদি আরব। আমরা আমাদের এই অঞ্চলকে বিশ্বাস করি, এজন্যই আমরা এখানে বিনিয়োগ করছি। আমি (২০১৭ সালে) ক্রাউন প্রিন্স হওয়ার পর এটাই আমার প্রথম পূর্বমুখী সফর। প্রথম দেশ হলো পাকিস্তান।
ওই অনুষ্ঠানে সৌদি ক্রাউন প্রিন্সের উদ্দেশে স্বাগত বক্তব্য রাখেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তিনি এ সময় বলেন, পাকিস্তানের প্রয়োজনের সময় সব সময়ই সৌদি আরব পাকিস্তানের বন্ধু। এ সময় তিনি চায়না-পাকিস্তান ইকোনমিক করিডোর (সিপিইসি)  প্রকল্প ও বেইজিংয়ের সঙ্গে পাকিস্তানের ঘনিষ্ঠ যোগযোগের উপকারিতার কথা তুলে ধরেন। এ প্রকল্পে সৌদি আরবকে আমন্ত্রণ জানান। ক্রাউন প্রিন্সের সামনে দুটি অনুরোধ তুলে ধরেন ইমরান খান। তার প্রথমটি হলো, তিনি সৌদি আরবের উদ্দেশে পাকিস্তান ছেড়ে যাওয়ার আগে পাকিস্তানি হজযাত্রীদের অভিবাসন বিষয়ক ব্যবস্থা পাকিস্তানের বড় তিনটি বিমানবন্দরে অনুমোদন করতে হবে। আর দ্বিতীয় অনুরোধটি হলো, সৌদি আরবে পাকিস্তানি যেসব শ্রমিক কঠোর অবস্থায় কাজ করছেন তাদের বিষয়ে কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি দেয়া।

এর বাইরে রোববারই ওয়ান-টু-ওয়ান বৈঠক করেন ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ ও পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। এর আগে ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদের পাকিস্তান অবতরণ উপলক্ষে ইসলামাবাদ ও রাওয়ালপিন্ডি শহরে নেয়া হয় কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা। এমন অবস্থায় তিনি রোববার সন্ধ্যায় রাওয়ালপিন্ডির নূর খান বিমান ঘাঁটিতে অবতরণ করেন। তাকে স্বাগত জানান প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান, সেনাপ্রধান জেনারেল কমর জাভেদ বাজওয়া ও মন্ত্রিপরিষদের সিনিয়র মন্ত্রীরা। এ সময় ক্রাউন প্রিন্সকে ২১ বার তোপধ্বনির মধ্য দিয়ে গার্ড অব অনার দেয়া হয়। নির্ধারিত প্রোটোকল ভেঙে ইমরান খান নিজেই সৌদি ক্রাউন প্রিন্সকে বহনকারী গাড়ি চালিয়ে নিয়ে যান প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে।  

২০০০ কোটি ডলারের চুক্তি স্বাক্ষর
পাকিস্তানের সঙ্গে ২০০০ কোটি ডলারের চুক্তি স্বাক্ষর করেছে সৌদি আরব। এর মধ্য দিয়ে পাকিস্তান ভঙ্গুর অর্থনীতিকে চাঙ্গা করার চেষ্টা করছে।
যেসব চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে তার মধ্যে রয়েছে ৮০০ কোটি ডলারের একটি চুক্তি। এর অধীনে গুরুত্বপূর্ণ বন্দর গোধারে একটি তেল শোধনাগার নির্মাণ করা হবে। এ ছাড়া বিদ্যুৎ, পেট্রো কেমিক্যাল, খনিজ খাত সহ বিভিন্ন বিষয়ে চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হয়েছে দু’দেশের মধ্যে। সৌদি আরবের ক্রাউন প্রিন্স বলেছেন, এই বিনিয়োগ হলো প্রথম দফার। অবশ্যই প্রতি মাসে, প্রতি বছরে তা বৃদ্ধি পাবে। কারণ, এর ফলে সুবিধা পাবে উভয় দেশই।

সতর্ক নজর ভারতের
চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে যখন পালওয়ামা হামলা নিয়ে তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে। এরই মধ্যে ক্রাউন প্রিন্সকে পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট ড. আরিফ আলভি দেশটির সর্বোচ্চ বেসামরিক পদক নিশানে পাকিস্তান পরিয়ে দিয়েছেন। পাকিস্তানের সঙ্গে যখন সৌদি আরবের দহরম মহরম চলছে তখন সেদিকে সতর্ক দৃষ্টি রেখেছে ভারত। এরই মধ্যে রোববার দিবাগত রাতের শেষভাগে কাশ্মীরে জৈশ-ই-মোহাম্মদীর সঙ্গে এনকাউন্টারে ভারতের একজন মেজরসহ চারজন সেনা নিহত হয়েছেন। অন্যদিকে নিহত হয়েছেন জৈশ-ই-মোহাম্মদীর অপারেশনাল প্রধান কামরান ও পালওয়ামা হামলার মূল পরিকল্পনাকারী গাজী রশিদ। পালওয়ামা হামলার জন্য পাকিস্তানকে দায়ী করছে ভারত। এমন সময় পাকিস্তান সফরে থাকা সৌদি ক্রাউন প্রিন্স ১৯ ও ২০শে ফেব্রুয়ারি দু’দিনের সফরে ভারত যাবেন। এ সময় পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসে সমর্থন দেয়া ও পালওয়ামা হামলায় জড়িত থাকার অভিযোগ তুলবে ভারত। এ সফরে ক্রাউন প্রিন্স সাক্ষাৎ করবেন ভারতের প্রেসিডেন্ট রামনাথ কোভিন্দ, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিসহ সরকারের গুরুত্বপূর্ণ নেতাদের সঙ্গে। তিন মাসের মধ্যে এটা হবে মোদির সঙ্গে তার দ্বিতীয় বৈঠক। তারা জি-২০ শীর্ষ সম্মেলনে আর্জেন্টিনায় মিলিত হয়েছিলেন ২৯শে নভেম্বর। ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র রাভিশ কুমার বলেছেন, এবার তাদের মধ্যে বাণিজ্য, বিনিয়োগ ও প্রতিরক্ষা নিয়ে আলোচনা হবে। সন্ত্রাসবিরোধী ইস্যুসহ নিরাপত্তা নিয়েও আলোচনা হবে।


ইমরানের এক অনুরোধেই মুক্ত ২০০০ পাকিস্তানি বন্দি
সৌদি আরবের জেলে আছেন এমন দুই হাজারের বেশি পাকিস্তানি বন্দিকে অবিলম্বে মুক্তির নির্দেশ দিয়েছেন ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান। তিনি সোমবার সকালে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন সৌদি আরবে বসবাসকারী পাকিস্তানিদের জন্য যা কিছু সম্ভব তার সবই করবেন। এর আওতায় ওইসব বন্দিকে মুক্তি দেয়ার নির্দেশ দেন ক্রাউন প্রিন্স।
রোববার রাতে ক্রাউন প্রিন্সকে প্রধানমন্ত্রী ভবনে স্বাগত জানান পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। এ সময় তিনি সৌদি আরবে পাকিস্তানের যেসব শ্রমিক কঠিন অবস্থায় রয়েছেন তাদের জন্য ক্রাউন প্রিন্সের কাছে বিশেষ অনুরোধ রাখেন। তিনি আহ্বান জানান, ‘তাদেরকে আপনার নিজের মানুষ হিসেবে দেখুন’। ইমরান খান আরো বলেছেন, বর্তমানে সৌদি আরবের জেলখানায় বন্দি আছেন প্রায় তিন হাজার পাকিস্তানি। ক্রাউন প্রিন্সের দৃষ্টি আকর্ষণ করে তিনি বলেন, আপনি তাদের দিকে এভাবে তাকান যে, তারা গরিব মানুষ। পরিবারকে ফেলে গেছেন দেশে।
সঙ্গে সঙ্গে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরানকে নিশ্চয়তা দেন ক্রাউন প্রিন্স। তিনি বলেন, ক্রাউন প্রিন্সকে যেন সৌদি আরবে পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত হিসেবে বিবেচনা করা হয়। তিনি অব্যাহতভাবে বলে যেতে থাকেনÑ আমরা পাকিস্তানকে না বলতে পারি না। আমরা যা পারি তার সবই করবো।

সোমবার এ নিয়ে টুইট করেছেন ইমরান খান। তিনি তাতে বলেছেন, পাকিস্তানের জনগণের হৃদয় জয় করে নিয়েছেন ক্রাউন প্রিন্স। বিশেষ করে আমি যখন সৌদি আরবে কর্মরত পাকিস্তানি প্রায় ২৫ লাখ শ্রমিকের বিষয়ে অনুরোধ করেছি তিনি তখন বলেছেন, ‘আমাকে সৌদি আরবে পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত হিসেবে বিবেচনা করুন’।
অন্যদিকে পাকিস্তানের তথ্যমন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধুরী এক টুইট করেছেন। তিনি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের অনুরোধে ক্রাউন প্রিন্স সৌদি আরবের জেল থেকে ২১০৭ জন পাকিস্তানি বন্দিকে মুক্তির নির্দেশ দিয়েছেন তাৎক্ষণিকভাবে।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কুরেশিও ক্রাউন প্রিন্সের প্রশংসায় পঞ্চমুখ। অবিলম্বে পাকিস্তানি বন্দিদের মুক্তির নির্দেশ দেয়ার বিষয়ে তিনি উদারভাবে সম্মতি দিয়েছেন বলে এমন প্রশংসা করেন তিনি। কুরেশি আরো বলেন, বাকিদের বিষয়ে পর্যালোচনা করা হবে। প্রধানমন্ত্রীর অনুরোধে তাৎক্ষণিকভাবে সাড়া দেয়ায় পাকিস্তানের জনগণ ক্রাউন প্রিন্সকে ধন্যবাদ জানিয়েছে বলে জানান তিনি।








এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

চলন্ত রেলে পাথর নিক্ষেপের প্রতিবাদে ঠাকুরগাঁওয়ে মানববন্ধন

প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগে লক্ষ্মীপুরে একজনকে আটক

ফ্রান্সে প্রবাসী বাংলাদেশীদের নিরাপত্তা জোরদার করা হবে

উত্তর প্রদেশে জিতলেন ৬ মুসলিম প্রার্থী

আজ মন্ত্রীপরিষদের শেষ বৈঠক করবেন মোদি

২৮ মে শপথ নিতে পারেন মোদি, কারা থাকছেন মন্ত্রীসভায়!

এনডিএ ৩৫৪টি আসন পেয়ে রেকর্ড করেছে, ইউপিএ আটকে আছে ৯০ আসনে

লোকসভা নির্বাচনে যত সব অঘটন

জয় পাচ্ছেন মুসলিমদের ওপর বোমা হামলায় অভিযুক্ত প্রজ্ঞা ঠাকুর

মোদীকে আওয়ামী লীগসহ ১৪ দলের অভিনন্দন

কুমিল্লায় পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদক ব্যবসায়ী নিহত

মোদিকে ট্রাম্পের অভিনন্দন

প্রশ্নপত্র ফাঁস চক্রের ২৯ সদস্য আটক

রাম মন্দির নির্মাণ নিয়ে ভারতীয় মুসলিমরা যা বলেন

ইস্যু যখন পাকিস্তান

মোদির সামনে যেসব চ্যালেঞ্জ