চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনৎ

আওয়ামী লীগ ও বিএনপি সমর্থিত প্যানেল সমান পদে জয়ী

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম থেকে | ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, সোমবার, ১:২১
চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত প্যানেল সমান পদে জয়ী হয়েছেন। এরমধ্যে বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত আইনজীবি ঐক্য পরিষদ সভাপতি ও সিনিয়র সহ সভাপতিসহ ৪টি সম্পাদকীয় পদ এবং ৫টি নির্বাহী সদস্য পদে জয়লাভ করেছেন। আর সাধারণ সম্পাদক ও সহ-সম্পাদকসহ ৪টি সম্পাদকীয় পদ এবং ৫টি নির্বাহী সদস্য পদে জয়লাভ করেছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত সম্মিলিত আইনজীবি সমন্বয় পরিষদ। এরমধ্যে সম্মিলিত আইনজীবি সমন্বয় পরিষদ থেকে বেরিয়ে আসা আইনজীবি সংসদ একটি পদে জয়লাভ করেছেন। সেটি হচ্ছে-পাঠাগার সম্পাদক।

রোববার রাত ২টায় এই ফলাফল ঘোষণা করা হয়। এদিন সকাল ৯টা থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। বিকেল ৫টায় ভোটগ্রহণ শেষে ভোট গণনা শুরু হয়।
ভোট গ্রহণে নিয়োজিত নির্বাচন কমিশনার জিয়াউদ্দিন আহম্মদ জানান, এবারের নির্বাচনে ৩ হাজার ৪৩৩ জন ভোটার ছিলেন। তম্মধ্যে ২ হাজার ৭৩৩ জন ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন। ভোট গণনা শেষে বিএনপি-জামায়ত সমর্থিত আইনজীবি ঐক্য পরিষদের এএসএম বদরুল আনোয়ার ১২৩৫ ভোট পেয়ে সভাপতি পদে জয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সম্মিলিত আইনজীবি সমন্বয় পরিষদের সৈয়দ মোক্তার আহমেদ পেয়েছেন ৮০২ ভোট। সিনিয়র সহ-সভাপতিপদে আইনজীবি ঐক্য পরিষদের মো. ইসহাক ১৪৯৫ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সমন্বয় পরিষদের তুষার কান্তি হাজারী পেয়েছেন ১২০৬ ভোট। সহ-সভাপতি পদে আইনজীবি সমন্বয় পরিষদের মোহাম্মদ রফিকুল আলম ১৩৪৬ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন, তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ঐক্য পরিষদের মো. আজিজুল হক চৌধুরী পেয়েছেন ১৩৩৭ ভোট।
সাধারণ সম্পাদক পদে সমন্বয় পরিষদের মো. আইয়ুব খান ১০৮৮ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন, তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সমমনা আইনজীবি সংসদের তৌহিদুল মুনির চৌধুরী টিপু পেয়েছেন ৮৩৮ ভোট।


সহ-সাধারণ সম্পাদক পদে সমন্বয় পরিষদের মোহাম্মদ রাশেদ ফারুকী ১৩৩৬ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন, তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ঐক্য পরিষদের মোহাম্মদ কবির হোসাইন পেয়েছেন ১০১০ ভোট। অর্থ সম্পাদক পদে ঐক্য পরিষদের রফিকুল আলম ১০৬৭ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন, তার নিকতটম প্রতিদ্বন্দ্বী সমন্বয় পরিষদের এসএম অহিদুল্লাহ পেয়েছেন ১০৫৭ ভোট। পাঠাগার সম্পাদক পদে সমমনা আইনজীবি সংসদের ভাস্কর রায় চৌধুরী ১০১৬ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ঐক্য পরিষদের মো. আলী আকবর সানজিক পেয়েছেন ৮৪৯ ভোট। সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া সম্পাদক পদে ১৪৬৪ ভোট পেয়ে ঐক্য পরিষদের জেবুন নাহার লীনা জয়ী হয়েছেন, তাঁর নিকতম প্রতিদ্বন্দ্বী সমন্বয় পরিষদের রুবেল পাল পেয়েছেন ১০৮৮ ভোট। তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদক পদে সমন্বয় পরিষদের মোহাম্মদ হাসান মুরাদ ১৪৩৩ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন, তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ঐক্য পরিষদের মো. হেলাল উদ্দিন আবু পেয়েছেন ১৪৩৩ ভোট। এদিকে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের প্রগতিশীল চেতনার আরেক সংগঠন গণতান্ত্রিক আইনজীবী পরিষদ সাধারণ সম্পাদক পদসহ ৪টি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে একটি পদেও জয়লাভ করেনি।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

রাঙামাটিতে জেএসএস’র দু’গ্রুপের গুলিবিনিময়, সংস্কারপন্থী নেতা নিখোঁজ

হত্যাকারীরা যেন দেশ ছাড়তে না পারে, আইজিপিকে সতর্ক থাকতে বললেন হাইকোর্ট

একশ্রেণির মানুষের উন্নয়নে এসডিজি বাস্তবায়ন সম্ভব নয়: সিপিডি

ঢাবির শহীদুল্লাহ হলের সামনে থেকে নবজাতকের লাশ উদ্ধার

রাজধানীতে ভবন থেকে পড়ে নির্মাণ শ্রমিকের মৃত্যু

আমরণ অনশনের ঘোষণা ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতদের

রোহিঙ্গাদের অবশ্যই নাগরিকত্ব দিতে হবে- জাতিসংঘের তদন্তকারী

ইমরান বিরোধী আন্দোলন, নেই জামায়াতে ইসলামি

দেশের জনগণ তো এমন ছিল না, মন্তব্য হাইকোর্টের

লাঠিসোটা ও পচা ডিম নিয়ে ছাত্রদলের বিক্ষুব্ধদের অবস্থান, হঠাৎ আগুন

মারকেল তখন কাঁপছিলেন

রিফাতের দুই হত্যাকারীর যত অপকর্ম

ইরানের জবাব হবে কড়া

নতুন ২ বিয়ে, পিতার বিরুদ্ধে কন্যার মামলা

রণদা প্রসাদ হত্যায় টাঙ্গাইলের মাহবুবুরের ফাঁসি

সীতাকুণ্ডে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ধর্ষণের আসামি নিহত