চূড়ান্ত পর্বে চোখ তহুরা, আঁখিদের

খেলা

স্পোর্টস রিপোর্টার | ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, সোমবার
এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ চ্যাম্পিয়নশিপের দ্বিতীয় রাউন্ডে অংশ নিতে আগামী ২৩শে ফেব্রুয়ারি মিয়ানমার যাচ্ছে বাংলাদেশ নারী ফুটবল দল। সেখানে ২৭শে ফেব্রুয়ারি শুরু হবে টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় রাউন্ড। গ্রুপে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ফিলিপাইন, চীন ও স্বাগতিক মিয়ানমার। ঢাকায় গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার ধারাবাহিকতা দ্বিতীয় রাউন্ডেও বজায় রাখতে চায় নারী ফুটবলাররা।
টুর্নামেন্টের আগের আসরে চূড়ান্ত পর্বে খেলেছিল বাংলাদেশ। সেবারও ঢাকায় বাছাই পর্বে চ্যাম্পিয়ন হয়ে মারিয়া-কৃষ্ণারা টিকিট পেয়েছিলেন চূড়ান্ত পর্বের। তবে এবার দল বাড়ায় বাছাইটা হচ্ছে দুই পর্বে। প্রথম পর্বের ‘এফ’ গ্রুপের খেলা হয়েছিল কমলাপুর বীরশ্রেষ্ঠ মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে গত বছর সেপ্টেম্বরে। বাহরাইন, লেবানন, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও ভিয়েতনামকে হারিয়ে বাংলাদেশ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে উঠেছে দ্বিতীয় রাউন্ডে।
মিয়ানমারে তিন প্রতিপক্ষের দুটিই বাংলাদেশের সামনে একেবারে নতুন। ফিলিপাইন ও চীনের সঙ্গে আগে কখনো প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচে খেলেনি বাংলাদেশের মেয়েরা। তবে ২০১৭ সালে এই টুর্নামেন্টের চূড়ান্ত পর্বে থাইল্যান্ড যাওয়ার আগে প্রস্তুতি হিসেবে চীনে চারটি প্রীতি ম্যাচ খেলেছিল তারা। যার দুটি ছিল দেশটির অনূর্ধ্ব-১৪ দলের বিপক্ষে এবং দুটি একটি প্রাদেশিক দলের বিপক্ষে। চার ম্যাচের দুটি জিতেছিল বাংলাদেশ। হেরেছিল একটি, অন্যটি ড্র। চীন সম্পর্কে তাই ভালো ধারণা আছে বাংলাদেশ কোচ গোলাম রব্বানী ছোটনের। দ্বিতীয় পর্বে বাংলাদেশের প্রধান প্রতিপক্ষ হবে স্বাগতিকরা। এ ম্যাচের ফল নিজেদের পক্ষে আনতে পারলেই গ্রুপসেরা হওয়ার সম্ভাবনা উজ্জ্বল হবে মৌসুমীদের। ‘এখানে তিনটি দলই ভালো। তবে আমরাও ভালো। আমাদের মেয়েরা দীর্ঘদিন ধরে অনুশীলনে আছে। আশা করি, সব ম্যাচ জিতে গ্রুপসেরা হয়েই চূড়ান্ত পর্বে যেতে পারবো’-বলেন গোলাম রব্বানী ছোটন। বাছাই পর্বের দ্বিতীয় রাউন্ড হচ্ছে দুই ভেন্যুতে। অন্য গ্রুপের খেলা লাওসে। সেখানে খেলছে লাওস, অস্ট্রেলিয়া, ভিয়েতনাম ও ইরান। দুই গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন ও রানার্সআপ দল পাবে থাইল্যান্ডে অনুষ্ঠিতব্য চূড়ান্ত পর্বের টিকিট। যে পর্বে স্বাগতিকরা ছাড়াও সরাসরি খেলছে গতবারের চ্যাম্পিয়ন উত্তর কোরিয়া, রানার্সআপ দক্ষিণ কোরিয়া ও তৃতীয় জাপান।
মিয়ানমারে বাংলাদেশের প্রথম ম্যাচ ২৭শে ফেব্রুয়ারি ফিলিপাইনের বিপক্ষে। ১লা মার্চ স্বাগতিকদের মুখোমুখি হবেন মৌসুমীরা। গ্রুপের শেষ ম্যাচ ৩রা মার্চ চীনের সঙ্গে। লাওসে ‘এ’ গ্রুপের খেলা হবে ৩ থেকে ৭ই মার্চ। মিয়ানমারে অনূর্ধ্ব-১৬ চ্যাম্পিয়নশিপের বাছাই পর্বের দ্বিতীয় রাউন্ড শেষ হওয়ার পরের সপ্তাহেই বাংলাদেশের মেয়েদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ সিনিয়র সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে। ১২ থেকে ২২শে মার্চ নেপালের বিরাটনগরে হবে দক্ষিণ এশিয়ার মেয়েদের সবচেয়ে বড় ফুটবল টুর্নামেন্ট। অনূর্ধ্ব-১৬ যে দলটি যাবে মিয়ানমার, সেখানে ৯ জন ফুটবলার আছেন যারা খেলবেন জাতীয় দলে। সাফের আগে মিয়ানমারের এ টুর্নামেন্টে জাতীয় দলের খেলোয়াড়দের জন্য হবে দারুণ এক অভিজ্ঞতা অর্জনের ক্ষেত্র। বাফুফে অবশ্য জাতীয় দলের বাকি খেলোয়াড়দের পাঠাচ্ছে মিয়ানমার। সেখানে জাতীয় দলেরও অনুশীলন হবে বলে জানিয়েছেন কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন। সর্বশেষ সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশ ফাইনালে উঠে হেরেছিল ভারতের কাছে। এই অঞ্চলের মেয়েদের ফুটবলে নেপালও বেশ উঠে এসেছে। যে কারণে বাংলাদেশ আস্তে আস্তে বেশি প্রতিদ্বন্দ্বিতায় পড়বে। বিশেষ করে জাতীয় দলের টুর্নামেন্টে বাংলাদেশকে একটু বেশি চ্যালেঞ্জে পড়তে হয়। কারণ, বাংলাদেশের ফুটবল মানেই বয়সভিত্তিক খেলোয়াড়। কোচ আশা করছেন, এখন যেভাবে মেয়েদের প্রস্তুতি চলছে তা অব্যাহত থাকলে আগামী ২-৩ বছরের মধ্যে ভারতের বিপক্ষে জয়ের স্বপ্ন দেখতে পারবেন সিনিয়র পর্যায়ে।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

বাংলাদেশের জনগণ ভালো থাকলে কিছু মানুষ অসুস্থ হয়ে যায়

ভারত ও পাকিস্তান দুই দেশই সুর চড়াচ্ছে

বোনের খোঁজে দিশেহারা ভাই

বিয়ের দাওয়াত না দেয়ায় বরের উপর হামলা

অনিশ্চিত ভবিষ্যতের পথে শামছলের পরিবার

পশ্চিমবঙ্গে মাতৃভাষা দিবস সাড়ম্বরে পালিত

সরকারের অবহেলা খতিয়ে দেখবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের তদন্ত কমিটি

কেন্দ্রীয় নেতারা কেন ব্যর্থ হলেন সেই উত্তর চান প্রার্থীরা

মাকে খুঁজছে অবুঝ সানিন

যুক্তরাষ্ট্র চাইলে আরেকটি ‘কিউবার মিসাইল সংকটের’ জন্য প্রস্তুত রাশিয়া

বাড়াবাড়ি করলে ভারতের বিরুদ্ধে যুদ্ধের নির্দেশ

টার্গেটে বিশ্বের সব থেকে বড় বাংলা ব্লগ

সিলিন্ডার গ্যাসের বিকল্প খুঁজছি: কাদের

ডিএনএ টেস্টের জন্য রক্ত সংগ্রহ করছে সিআইডি

গ্যাস সংকটে চকবাজারের বাসিন্দারা

ইসলামিক স্টেটের ১৩ সন্ত্রাসীকে আটক করেছে ইরানী গোয়েন্দারা