জাতিসংঘের সামনে ‘মাতৃভাষা দিবসের ভাস্কর্য’

যুক্তরাষ্ট্র-কানাডা

নিউইয়র্ক থেকে এনআরবি নিউজ | ৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৬, শনিবার

নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দপ্তরের সামনে স্থাপন করা হলো ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ভাস্কর্য’। ১লা ফেব্রুয়ারি অপরাহ্নে বিভিন্ন ভাষাভাষী মানুষের সমাবেশে এ ভাস্কর্যের উদ্বোধন করেন জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেন। মহান একুশের সেই অমর সঙ্গীত ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পারি’ সমস্বরে পরিবেশনের মধ্যে মাতৃভাষা দিবসের ভাস্কর্য স্থাপনের এ অনুষ্ঠানে নিউ ইয়র্ক অঙ্গরাজ্য গভর্নরের প্রতিনিধি হার্শ কে পারেখ, নিউ ইয়র্ক সিটি কম্পট্রোলারের প্রতিনিধি আলেয়া লতিফও শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন। নিউ ইয়র্কে বাংলাদেশের কন্সাল জেনারেল শামীম আহসান, একুশে পদকপ্রাপ্ত নাট্য ব্যক্তিত্ব জামালউদ্দিন হোসেন এবং যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমানও বক্তব্য রাখেন। তারা মহান ভাষা দিবসের চেতনায় শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশে চলমান উন্নয়ন-অগ্রগতির সমর্থনে বিশ্বজনমত জোরদারে প্রবাসীদের প্রতি আহবান জানান। একুশের চেতনায় সমস্ত অপশক্তিকে প্রতিহত করতে সকলকে ঐক্যবদ্ধ থাকার কথাও বলেন নেতৃবৃন্দ।
দ্যাগ হ্যামার্সজোল্ড প্লাজা তথা ফার্স্ট এভিনিউ এবং ৪৭ স্ট্রিটের কর্নারে পুরো ফেব্রুয়ারি জুড়েই থাকবে এ ভাস্কর্যটি। এরপর তা সরিয়ে ফেলা হবে। এ প্রসঙ্গে স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেন বলেন, ‘এর আগে আমি জাপানে দায়িত্ব পালনকালে সেখানকার প্রবাসীদের সহায়তায় টোকিওতে স্থায়ী শহীদ মিনার স্থাপনে সক্ষম হয়েছি। সে আলোকে এই নিউইয়র্কেও স্থায়ী শহীদ মিনার তৈরী করতে আপনাদের সকলের আন্তরিক সহায়তা চাই।’ ‘বাঙালির রক্তদানের দিন ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্বীকৃতি পাওয়ায় জাতিসংঘের সামনে স্থায়ী একটি শহীদ মিনারের দাবি আজ সর্বজনীনতা পেয়েছে। তাই তা অপূর্ণ থাকবে বলে মনে করি না-প্রত্যাশা মোমেনের। জাতিসংঘে নয়া এ প্রতিনিধি আরো বলেন, ‘এর মধ্য দিয়ে বাঙালির জাতীয় জীবনে সংযোজিত হলো এক নতুন অধ্যায়। আন্তর্জাতিক গৌরব ও সাফল্যের এক নতুন সূচক।’


এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন