সিলেট বিভাগের ভেঙ্গে পড়া স্বাস্থ্য সুবিধা প্রতিকারের দাবি

যুক্তরাষ্ট্র-কানাডা

নিউ ইয়র্ক থেকে খলকু কামাল | ৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৬, শনিবার

স্বাস্থ্যই একটি জাতির মূল সম্পদ। সুস্বাস্থ্য প্রতিটি জাতির উন্নতি ও অগ্রগতির প্রধান সোপান। বিশেষ করে বাংলাদেশের মত জনবহুল একটি দেশে যদি স্বাস্থ্য সমস্যায় জাতি আক্রান্ত হয়, তাহলে এটা জাতীয় অগ্রগতির পথে প্রধান অন্তরায় হবে। এ জন্য আমাদের নবীন-প্রবীণ প্রতিটি নাগরিকের স্বাস্থ্য সুবিধা নিশ্চিত করা দেশের আইন প্রণেতাদের প্রধান ইস্যু হিসেবে বিবেচিত হওয়া উচিত।
এতে একদিকে দেশের সাধারণ মানুষের কল্যাণ ছাড়াও বিনিয়োগে উৎসাহী বিদেশীদের জন্য এটি একটি বড় ধরনের মাধ্যম হিসেবে কাজ করবে।
এ জন্য প্রাথমিক পর্যায়ে নিম্নোক্ত বিষয়সমূহের প্রতি সরকার যদি একান্তভাবে আন্তরিক হন তাহলে রাতারাতি সমস্যার সমাধান হবে।
*     ওসমানী হাসপাতালকে এক হাজার আসনে রূপান্তর এবং আধুনিকীকরণ ও সকল বিভাগে ডাক্তার, নার্স ও সকল প্রকার ঔষধ যন্ত্রপাতি নিশ্চিতকরণ। সিলেট শহরে একটি সরকারি ডেন্টাল কলেজ স্থাপন।
*     সিলেট সদর হাসপাতালকে পূর্ণাঙ্গ হাসপাতালে রূপান্তর।
*     মৌলভীবাজার-হবিগঞ্জ-সুনামগঞ্জ জেলা সদর হাসপাতালগুলোকে ৫০০ আসনে রূপান্তর ও প্রয়োজনীয় ডাক্তার, নার্সসহ সকল সুবিধা নিশ্চিতকরণ এবং ডায়ালিসিস সার্ভিস চালু।
*     সিলেট বিভাগের প্রতিটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোকে ১০০ আসন করে রূপান্তর।
*     সরকারি নীতিমালা মোতাবেক সিলেট বিভাগের প্রতিটি ইউনিয়নে ১টি করে স্বাস্থ্যকেন্দ্র স্থাপন এবং দুজন করে এমবিবিএস ডাক্তার ও নার্স নিয়োগ।
সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজকে একটি আধুনিক ও উন্নতমানের বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেলে রূপান্তর, বর্তমানে ২০০ জন ছাত্রছাত্রী প্রতিবছর ডাক্তার হিসেবে গ্র্যাজুয়েশন লাভ করেছে। এটাকে বাড়িয়ে কমপক্ষে তা ৫০০ করা হলে দেশের স্বাস্থ্য সমস্যার সমাধান ছাড়াও চিকিৎসাশাস্ত্রে ডিগ্রিপ্রাপ্তদের বিদেশে পাঠানো সম্ভব।
প্রতিবছর ৭০/৭৫ সহস্রাধিক ছাত্রছাত্রী সরকারি মেডিকেল কলেজসমূহে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেয়। তার মধ্যে আসন সংখ্যা কম হওয়ায় সারা বাংলাদেশে মাত্র ৪২ শত ছাত্রছাত্রী ভর্তির সুযোগ পায়। এক্ষেত্রে মেডিকেল কলেজের সংখ্যা বাড়ানো সম্ভব না হলে বর্তমান কলেজসমূহে দুই শিফট চালু করলে অনেক বেশি ছাত্রছাত্রী মেডিকেল কলেজে অধ্যায়নের সুযোগ পাবে। এ জন্য অনতিবিলম্বে আমেরিকার ন্যায় প্রতিটি মেডিকেল কলেজে দুই শিফট চালু করা প্রয়োজন।
৬৪টি জেলার সরকারি হাসপাতালগুলোকে পর্যায়ক্রমে ৫০০ আসন করে উন্নীত ও হাসপাতালের সকল বিভাগে ডাক্তারদের উপস্থিতিতেও পর্যাপ্ত পরিমাণ ওষুধ এবং যন্ত্রপাতি সরবরাহ নিশ্চিতকরণ এবং ডায়ালিসিস সার্ভিস চালু।
*     দেশের ৪৮৭টি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোকে ১০০ আসন করে রূপান্তর এবং একটি করে আধুনিক এম্বুলেন্স সার্ভিস চালু।
*     সরকারি নীতিমালা মোতাবেক ৬৪টি জেলা শহরে একটি করে ৫০ আসনের মেডিকেল কলেজ স্থাপন।
    স্বল্প খরচে বেশি করে মেধা শক্তির কারখানা স্থাপন। এতে বছরে হাজার হাজার মানসম্পন্ন ডাক্তার তৈরি ও দেশের চাহিদা পূরণ করে প্রচুর পরিমাণ ডাক্তার মুসলিম বিশ্বের অনেক দেশে পাঠালে একদিকে বছরে শত শত কোটি বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন হবে। অন্যদিকে বহির্বিশ্বে দেশের ভাবমূর্তি দারুণভাবে উজ্জ্বল হবে। মনে রাখতে হবে, প্রবাসে অদক্ষ শ্রমিকের কোন কদর নেই।
৩০ জানুয়ারি, ২০১৬, নিউইয়র্ক


এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

সন্ত্রাসী হামলার জন্য বৃটিশ পররাষ্ট্র নীতি দায়ী: লেবার নেতা করবিন

সামনের কাতারে যেতে মন্টিনিগ্রোর প্রধানমন্ত্রীকে ধাক্কা ট্রাম্পের

সাভারে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ১

এবার ট্রাম্পের জামাতার দিকে নজর এফবিআই’র

অভিযান থেকে ফেরার পথে নিজ বন্দুকের গুলিতে পুলিশ সদস্য নিহত

খুলনায় দুর্বত্তদের গুলিতে দেহরক্ষীসহ বিএনপি নেতা নিহত

মধ্যরাতে সরানো হলো সুপ্রিম কোর্ট চত্বরের ভাস্কর্য

‘শুধু অভিনেতা না মানুষ হিসেবেও প্রসেনজিত দাদা দারুণ’

পদত্যাগ করলেন ইসলামী ব্যাংকের স্বতন্ত্র দুই পরিচালক

নাঈমের জবানিতে রেইনট্রি ধর্ষণকাণ্ড

আরেকটি হামলার প্রস্তুতি নিচ্ছিল সালমান আবেদির ভাই হাশেম