চেঞ্জ দ্যা ইমেজ চেঞ্জ দ্যা নারায়ণগঞ্জ -শামীম ওসমান

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার, নারায়ণগঞ্জ থেকে | ২২ জানুয়ারি ২০১৯, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ৯:৪৯
নারায়ণগঞ্জ-৪ আসন থেকে তিনবারের নির্বাচিত আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী এমপি শামীম ওসমান আগামীতে আর নির্বাচনে অংশ নিবেন না বলে ঘোষণা দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, আমাদের স্লোগান হওয়া উচিত ‘চেঞ্জ দ্যা ইমেজ চেঞ্জ দ্যা নারায়ণগঞ্জ’। আমরা নারায়ণগঞ্জে ইমেজটা চেঞ্জ করতে চাই। আমি সবাইকে নিয়ে বসবো। আমি আগামীতে নির্বাচন নাও করতে পারি এবং ওপেন ডিক্লেয়ার দিচ্ছি নির্বাচন করবো না। আমি গতানুতিক রাজনীতি করতে আসিনি। আমার কাছে এমপি হওয়া বড় কথা না। বড় কথা হচ্ছে আমি নারায়ণগঞ্জের মোড় ঘুরিয়ে দিতে চাই।
যাতে মৃত্যুর পর সবাই স্মরণ করে। যেহেতু আমার আগামীবার নির্বাচন করার কোনো টার্গেট নেই সেহেতু আমি সবাইকে নিয়ে কাজ করতে চাই। কেউ যাতে এখানে এসে ছড়ি ঘুরাতে না পারে। নারায়ণগঞ্জ আদালতপাড়ায় ২৪শে জানুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদসহ সিনিয়র আইনজীবীদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় শামীম ওসমান এসব কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, আমরা সংসদ সদস্যরা আমাদের কাজ করবো। আমাদের দেশ বাংলাদেশ হলে নারায়ণগঞ্জ আমাদের মাতৃভূমি। এখানেই আমাদের জন্ম। নারায়ণগঞ্জে সেনাবাহিনীর প্রায় ২৭ একর জায়গা আছে। আমি চেষ্টা করছি এই ২৭ একর জায়গায় ওয়ার্ল্ড ক্লাস স্কুল এন্ড কলেজ এবং একটি ইউনিভার্সিটি তৈরি হতে পারে। এ নিয়ে সেনাবাহিনীর সঙ্গে আমি কথা বলেছি। তারাও অমত দেননি। আমি চেষ্টা করছি, ইনশাআল্লাহ আমি পারবো। আইনজীবী সমিতির নির্বাচনের প্রসঙ্গ টেনে শামীম ওসমান বলেন, এবার বারের নির্বাচন কেবল বারভিত্তিক না। বারের সমস্যার সমাধান হবে এবং সমাধান শুরুও হয়েছে। কিন্তু সব আইনজীবী ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে একত্রে কাজ করতে হবে। আমাদের নারায়ণগঞ্জের ইমেজের পুনরুত্থান চাই। শামীম ওসমান বলেন, নারায়ণগঞ্জ কারো বাবার সম্পত্তি না।
এই নারায়ণগঞ্জ আমাদের সবার। এখানে রাজনীতির কারণে মামলা হতে পারে। কিন্তু আমি চাই না যে, আমাদের বিপক্ষে যারা রাজনীতি করছে তাদের কোনো মিথ্যা মামলায় অত্যাচারিত করা হোক। এই পরিষ্কার মেসেজ বারের (আইনজীবী সমিতি) কাছে। আমরা চাই বারটাকে কেন্দ্র করে নারায়ণগঞ্জে সুষ্ঠু শাসন প্রতিষ্ঠা করতে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন- জেলা বারের সাবেক সভাপতি আওয়ামী লীগের জাতীয় পরিষদের সদস্য অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান দিপু, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খোকন সাহা, জেলা পাবলিক প্রসিকিউটর ওয়াজেদ আলী খোকন, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি হাসান ফেরদৌস জুয়েল, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মহসীন মিয়া, মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহ নিজাম, সাংগঠনিক সম্পাদক জাকিরুল আলম হেলাল, শহর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন সাজনু, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এহসানুল হাসান নিপু, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আজিজুর রহমান, মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান রিয়াদসহ বিভিন্ন পর্যায়ের আইনজীবী নেতারা।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন