মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সুবিধা আরো বাড়লো

এক্সক্লুসিভ

দীন ইসলাম | ২৩ জানুয়ারি ২০১৯, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ১২:০৮
মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সুবিধা আরো বাড়িয়েছে সরকার। তবে এটা ব্যক্তিগত নয়, অফিসিয়াল। বেতন ভাতা, সার্বক্ষণিক গাড়ি সুবিধা ও টেলিফোন বিল বেতনের সঙ্গে সমন্বয়ের সুবিধার পর সরকারি যানবাহনে কতটুকু জ্বালানি পাবেন তা নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। এতদিন প্রাপ্যতা কম থাকায় বিভিন্ন খাত থেকে সংগ্রহের মাধ্যমে জ্বালানি তেলের খরচ মেটাতেন মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তারা। গেল ডিসেম্বরের শেষদিকে বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক (ডিসি) এবং উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও)-দের সরকারি যানবাহনে জ্বালানি তেলের প্রাপ্যতা নির্ধারণ করে আদেশ জারি করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। কিন্তু ঢাকার আশেপাশের জেলাগুলোতে কর্মরত মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে এ সিলিং না মানার অভিযোগ উঠেছে। ওই সব কর্মকর্তারা ঢাকাতে বসবাসের কারণে এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসকরা এখন থেকে সরকারি গাড়িতে সর্বোচ্চ ২৫০ লিটার পেট্রোল বা অকটেন বা সর্বোচ্চ ৩৫৮ ঘনমিটার সিএনজি পাবেন।
১৯শে ডিসেম্বর জারি করা বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসকদের সরকারি যানবাহনে জ্বালানি তেল বা সিএনজি’র প্রাপ্যতা সম্পর্কে বলা হয়েছে, জেলা প্রশাসক ও বিভাগীয় কমিশনারদের সর্বোচ্চ ২৫০ লিটার পেট্রোল বা অকটেন বা সর্বোচ্চ ৩৫৮ ঘনমিটার সিএনজি বরাদ্দ করা হলো। এ ছাড়া সিএনজিচালিত যানে রূপান্তরিত ইঞ্জিন সচল রাখার স্বার্থে এর আগে ইঞ্জিন স্টার্টের তেলের বরাদ্দ অপরিবর্তিত থাকবে। এতে অর্থ বিভাগের সম্মতি রয়েছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসারদের সরকারি যানবাহনে জ্বালানি তেল বা সিএনজি’র প্রাপ্যতা সম্পর্কে বলা হয়েছে, উপজেলা নির্বাহী অফিসারদের ব্যবহার করা সরকারি যানবাহনে জ্বালানি তেল বা সিএনজি যেকোনো একটি ব্যবহার করা যাবে। যেসব উপজেলার ইউনিয়ন সংখ্যা ১০ বা এর কম, সেসব উপজেলার জন্য জ্বালানি তেলের বরাদ্দ ১৮০ লিটারের বদলে সর্বোচ্চ ২১০ লিটার পেট্রোল বা অকটেন বা সর্বোচ্চ ৩০০ ঘনমিটার সিএনজি করা হলো। এ ছাড়া যেসব উপজেলার ইউনিয়ন সংখ্যা ১১ থেকে ১৫ পর্যন্ত, সেসব উপজেলার জন্য জ্বালানি তেলের বরাদ্দ ১৮০ লিটারের বদলে সর্বোচ্চ ২৩০ লিটার পেট্রোল বা অকটেন বা সর্বোচ্চ ৩২৮ ঘনমিটার সিএনজি করা হলো। একই সঙ্গে ১৬ থেকে বেশি ইউনিয়নবিশিষ্ট উপজেলার জ্বালানি তেলের বরাদ্দ ১৮০ লিটারের বদলে সর্বোচ্চ ২৫০ লিটার পেট্রোল বা অকটেন বা সর্বোচ্চ ৩৫৮ ঘনমিটার সিএনজি করা হলো। তবে সিএনজিচালিত যানে রূপান্তরিত ইঞ্জিন সচল রাখার স্বার্থে এর আগে ইঞ্জিন স্টার্টের তেলের বরাদ্দ অপরিবর্তিত থাকবে। সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রে জানা গেছে, মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সরকারি যানবাহনে জ্বালানি তেল বা সিএনজি’র প্রাপ্যতা বাড়ার কারণে ঢাকার আশেপাশের কর্মকর্তারা স্টেশনে থাকছেন না। তারা অফিস সময় শেষে বাসায় ফিরে আসছেন। এ কারণে বিভিন্ন ধরনের সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

নববধূকে সিগারেটের আগুনে ছ্যাঁকার অভিযোগ, মামলা

৩০ এপ্রিলের মধ্যে বিএনপির বাকিরাও শপথ নেবেন : হানিফ

লাবণ্যকে বহনকারী মোটরবাইক চালক আটক

সরকারের চাপে শপথ নিচ্ছে বিএনপির নির্বাচিতরা

‘গেট আউট’ মোকাব্বির যোগ দিলেন গণফোরামের কাউন্সিলে

‘সাংগ্রি-লা হামলায় নিহত হয়েছে জাহরান হাশমি’

শ্রীলঙ্কায় হামলার আশঙ্কা, মসজিদ বা গির্জায় প্রার্থনা না করার আহ্বান

নড়াইলে অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্যকে কুপিয়ে হত্যা

ইরাকে ৪৫ বাংলাদেশী শ্রমিক উদ্ধার

খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে রিজভীর নেতৃত্বে মিছিল

কথিত বাংলাদেশী অভিবাসী ইস্যুতে উত্তপ্ত ভারতের সুপ্রিম কোর্টের বেঞ্চ

‘মাসের ত্রিশ দিনই ক্যামেরার সামনে থাকতে হচ্ছে’

বগুড়া জেলা বিএনপির সভাপতিকে শোকজ

কুষ্টিয়ায় পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদক ব্যবসায়ী নিহত

প্রয়োজন হলে ফের ইমরানের সঙ্গে কথা বলবেন মুনমুন সেন

মোদীকে কুর্তা-মিষ্টি পাঠানোর কথা মানলেন মমতা