এই সরকারের অধীনে ঐক্যফ্রন্ট আর কোনো নির্বাচনে অংশ নেবে না

শেষের পাতা

লালমনিরহাট প্রতিনিধি | ২২ জানুয়ারি ২০১৯, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ১২:১৬
বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আওয়ামী লীগ রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে গণতন্ত্রকে ধ্বংস করে ভোট ডাকাতির মাধ্যমে ক্ষমতায় এসেছে। ভোট ডাকাতি করে গণতন্ত্র ধ্বংসকারীদের ক্ষমতায় আসাকে দেশের সাধারণ ভোটাররা মেনে নেয়নি। জবাব দিতে হবে একদিন। নির্বাচনের দিন লালমনিরহাট সদর উপজেলার রাজপুর ইউনিয়নের পাগলারহাট ভোটকেন্দ্রে ভোট দিতে  যাওয়ার সময় সংঘর্ষে নিহত রাজপুর ইউনিয়ন বিএনপির পরিবার কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক তোজাম্মেল হকের  স্বজনদের সান্ত্বনা জানাতে সোমবার দুপুরে লালমনিরহাটে এসে এ কথা বলেন তিনি।

এ সময় তিনি নিহত বিএনপি নেতার কবর জিয়ারত করেন। মির্জা আলমগীর বলেন, ভোটকেন্দ্রে গেলে বিএনপি বা বিরোধী দলের ভোটার হলে লাঠিপেটা করে বের করে দেয়া হয়, আর যে নৌকার ভোটার তাদের দিয়ে বিরোধী দলের ভোটগুলোও মেরে নেয়- এটা কী গণতন্ত্র? ভোটাররা ভোটকেন্দ্রে গেলে তাদের খুন করে ভোটারের লাশের লাল রক্ত পেরিয়ে ক্ষমতায় আসাটা সুফল না, আগামীদিনের জন্য হুমকিস্বরূপ। দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে আর যাবে না বিএনপি। দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে গেলে তারা ভোটের কালির পরিবর্তে বুকে লাল কালি দিয়ে ফিরিয়ে দেয়; রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যবহার করে জোর করে বারবার ক্ষমতায় টিকে থাকতে আর দেয়া হবে না। আওয়ামী লীগ ভোটের আগের রাতে প্রশাসনের সহযোগিতায় ভোটের বাক্সে সিল মারে।
একে কি নিরপেক্ষ লেভেল প্লেয়িং নির্বাচন বলে? দিনের বেলা সাধারণ ভোটার বিরোধী দলের ভোটারদের ভোটকেন্দ্র থেকে সরিয়ে দিয়ে দিনে আবারো সিল মারা শুরু করে। সাধারণ ভোটারদের ভোটের অধিকার শেখ হাসিনা কেড়ে নিয়েছেন।

অচিরে ভোট বাতিল করে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন না দিলে দেশের জনগণকে সঙ্গে নিয়ে সরকার পতন আন্দোলন গড়ে তোলা হবে। ফখরুল আরো বলেন, নোয়াখালীর কবিরহাটে বিএনপি করে বলে তার স্ত্রীকে ধর্ষণ করা হয়। এভাবে বিএনপি নেতা-কর্মীদের হত্যা করে আওয়ামী লীগ এককভাবে ক্ষমতায় থাকতে চায়। দেশের মানুষ যখন মাঠে নামবে তখন আওয়ামী লীগ কুল-দিশা পাবে না পালাবার। জেলা বিএনপির সভাপতি অধ্যক্ষ আসাদুল হাবিবের সভাপতিত্বে এ সময় কৃষক শ্রমিক জনতালীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বলেন, ’৭১-এর আওয়ামী লীগ বঙ্গবন্ধুর আওয়ামী লীগ দেশে আর নেই। শেখ হাসিনার আওয়ামী লীগ আর বঙ্গবন্ধুর আওয়ামী লীগ এক নয়। বর্তমান আওয়ামী লীগ সাধারণ মানুষের ভোটের অধিকার দিনে চুরি আর রাতে ডাকাতি করে ছিনিয়ে দিয়েছে।

চোর-ডাকাতের আওয়ামী লীগ সাধারণ মানুষ বর্জন করেছে। ভোট দিতে মানুষ গেলে হত্যা করে। ভোটার লাশ হয়ে বাড়ি ফিরে- এই কি গণতন্ত্র। জেএসডির সভাপতি আ স ম আব্দুর রব বলেন, যে ভোটে লাশের গন্ধ, সেই ভোট ভোটার বর্জন করেছে- এ ভোট ভোটার মেনে নেয়নি। এ ছাড়াও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের  ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হাফিজুর রহমান বাবলা, বিএনপি নেতা এএএম মমিনুল হক, আফজাল হোসেন ও হারাটী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা রফিকুল ইসলাম রফিকসহ অনেকে বক্তব্য দেন।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Ali

২০১৯-০১-২১ ১৫:০২:৪০

এই সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাওয়া ঠিক নয়।এতে কালকে সাদা করা

আপনার মতামত দিন