নারায়ণগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে মেম্বার সমর্থকদের সংঘর্ষ, প্রাণ গেল গার্মেন্টস কর্মীর

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার, নারায়ণগঞ্জ থেকে | ১৩ জানুয়ারি ২০১৯, রোববার, ১১:৪৭ | সর্বশেষ আপডেট: ৭:৫৩
নারায়ণগঞ্জের বন্দরে পুলিশের সঙ্গে স্থানীয় ক্ষমতাসীনদলের এক ইউপি মেম্বারের অনুসারীকে আটক করা নিয়ে পুলিশের সঙ্গে ব্যাপক সংঘর্ষে এক পোশাক শ্রমিক নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় ৪ পুলিশসহ কমপক্ষে অর্ধশতাধিক আহত হয়েছে। পুলিশ বহনকারী দু’টি গাড়ি ভাংচুর করা হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ বেশ কয়েক রাউন্ড টিয়ার সেল ও প্রচুর ফাঁকা গুলি ছুড়ে। বর্তমানে সেখানে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। তবে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে ঘটনাস্থলে। সংঘর্ষের ঘটনায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে প্রায় দেড় ঘন্টা যান চলাচল বন্ধ ছিল। ঘটনটি ঘটেছে শনিবার রাতে বন্দর উপজেলার মদনপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকায়।
নিহত শ্রমিকের নাম আশিকুর রহমান (২৫)। তিনি মদনপুরের প্যানডেক্স গার্মেন্টের শ্রমিক ও একই এলাকার মদনপুরের চানপুর এলাকার শহীদুল ইসলামের ছেলে।

নিহতের পরিবারের লোকজন বলছেন, আশিকুর রহমান বিকালে কাজ শেষে বাড়ি ফেরার পর সন্ধ্যায় বাজার করতে গেলে সংঘর্ষের মাঝখানে পড়ে প্রাণ হারান।

জানা গেছে, বন্দর উপজেলার মদনপুর বাসস্ট্যান্ড পরিবহন সেক্টরে চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রণে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ক্ষমতাসীনদলের আমির হোসেন ও খলিলুর রহমান খলিল মেম্বার গ্রুপের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে গত ১৮ই নভেম্বরও দু’পক্ষের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। শনিবার সন্ধ্যায় মদনপুর এলাকার ড্রিমল্যান্ড নামের একটি রেস্টুরেন্ট থেকে নূর নবী ও রিফাত নামের দুই যুবককে আটক করা হয়। তারা মূলত খলিল মেম্বারের লোক। এ খবর স্থানীয়ভাবে ছড়িয়ে পড়ে। তখন খলিল মেম্বারের লোকজন এসে পুলিশকে ঘিরে ফেলে। তারা আটক দু’জনকে ছাড়িয়ে নিতে চেষ্টা করে। তখন পুলিশ বাধা দিলে তাদের ওপর হামলা শুরু হয়। ওই সময়ে আমির হোসেনের লোকজন পুলিশের পক্ষ নিলে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। রাত সাড়ে ৭টায় মদনপুর এলাকার প্রভাবশালী ইউপি মেম্বার খলিলুর রহমান ও তার পক্ষের লোকজনও পুলিশকে ধাওয়া করলে পুলিশ পাল্টা অ্যাকশনে যায়। দুই পক্ষের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ শুরু হয়। ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার এক পর্যায়ে পুলিশ টিয়ার সেল ও ফাঁকা গুলি ছুড়তে থাকে। বন্ধ হয়ে যায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যান চলাচল। সংঘর্ষ চলাকালে দুই গ্রুপের মাঝে পড়ে গার্মেন্ট শ্রমিক আশিকুর রহমান মারা যায়।

এছাড়া সংঘর্ষে পুলিশের এস আই মোহাম্মদ আলী, কনস্টেবল দেবাশীষ, মোহন আহত হয়। এবং স্থানীয় অন্তত আরো ৪০ থেকে থেকে ৪৫ জন আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে বাবু নামের এক যুবককে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। রাত ৯টায় অতিরিক্ত পুলিশ ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা সেখানে হাজির হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

বন্দর থানার ওসি আজহারুল ইসলাম জানান, সংঘর্ষের ঘটনায় একজন শ্রমিক মারা গিয়েছে। এখন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আছে। তবে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছে।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

তৃতীয় ধাপের ১১৭ উপজেলায় ভোট আগামীকাল

শীর্ষ আলেমদের জন্য দেহরক্ষী চাইলেন আল্লামা শফী

জুয়ার ঘর ভেঙে দিল বিক্ষুদ্ধ জনতা

ঝুঁকির মুখে ফেসবুকের ৬০ কোটি ব্যবহারকারীর পাসওয়ার্ড

ছবিতে আজকের শিক্ষক আন্দোলন

চিকিৎসা নিতে এসে আটক আহত ছিনতাইকারী

গাজীপুরে বাসচাপায় ২ বন্ধু নিহত

চট্টগ্রামে এক রাতে প্রাণ গেল ৫ জনের

রাজনৈতিক প্রভাবে পরিবহন খাতে বিশৃঙ্খলা: কামাল

রাজধানীতে ট্রাকের ধাক্কায় নিহত ১

‘জৈশ-ই-মোহাম্মদ’ নিয়ে চীনের আগ্রহ কোথায়?

কাদের আউট, রওশন উপনেতা

সিরিয়ায় আইএস নিশ্চিহ্ন হয়ে যাওয়ার দাবি

ভীতুদের দায়িত্ব ছাড়তে বললেন গয়েশ্বর

প্রধানমন্ত্রীকে ডাকসুর আজীবন সদস্য করতে নুর-আখতারের আপত্তি

নরসিংদীতে স্কুলছাত্র নিহতের প্রতিবাদে মহাসড়ক অবরোধ