সাক্ষাৎকার সংক্ষেপ

কেন্দ্র ভোটারদের হাতে থাকবে সন্ত্রাসীদের নয়

এক্সক্লুসিভ

স্টাফ রিপোর্টার | ১২ ডিসেম্বর ২০১৮, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ১২:১০
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক এবং তেল-গ্যাস-খনিজসম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব আনু মুহাম্মদ বলেছেন, এখন বাংলাদেশে এমন অবস্থা যে ক্ষমতায় থাকলে বেহেস্ত আর ক্ষমতার বাইরে গেলে দোজখ। এরকম একটি ভয়াবহ পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে যে, ক্ষমতায় গেলে সবকিছু পেয়ে গেছি। আর ক্ষমতার বাইরে গেলে মহাবিপদের মধ্যে পড়েছি। এরকম অবস্থা থাকলে রাজনীতিতে স্থিতিশীলতা আসতে পারে না। কারণ সব সময় ক্ষমতায় যাওয়ার এবং থাকার জন্য যা খুশি তাই করার প্রবণতা থাকে। ফলে গণতান্ত্রিক যে প্রক্রিয়া সহনশীলতা, ধৈর্য, এবং অন্যের মতের প্রতি সম্মানবোধ এই জিনিসগুলো থাকে না। নির্বাচনের মধ্যে দিয়ে ক্ষমতায় গিয়ে তারা সমগ্র বাংলাদেশের মালিক হয়ে যাবে এই প্রক্রিয়া যতদিন থাকবে ততদিন পর্যন্ত এই অনিশ্চয়তা থেকেই যাবে।   

আসন্ন নির্বাচনকে কীভাবে দেখছেন- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দেখার সময় হয়নি তো এখনো। সবকিছু দেখবে নির্বাচন কমিশন।
ভোটার হিসেবে আমরা ভোট দেবো। সেটা যেন ঠিকমতো হয় তা নিশ্চিত করাটা হচ্ছে নির্বাচন কমিশনের কাজ। যারা প্রার্থী তারা সবাই যেন তাদের বক্তব্য প্রচার করতে পারে। আবার কেউ যেন সীমা লঙ্ঘন না করে।

এবারের নির্বাচনের বৈশিষ্ট্য হচ্ছে ’৯১ সালের পর প্রথম সরকারি কোনো দল ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় নির্বাচন হচ্ছে। ১৯৮৮, ৯৬ এবং ২০১৪- এই তিনটি সময়ে যে সরকারি দল থাকা অবস্থায় নির্বাচন হয়েছে সেগুলো আমাদের ইতিহাসে খুবই খারাপ দৃষ্টান্ত রেখেছিল। এবারের নির্বাচনটা সরকারি দলের জন্য একটি বড় পরীক্ষা। তারা কি আগের যে খারাপ দৃষ্টান্ত সেটা অনুসরণ করবে নাকি নতুন একটি দৃষ্টান্ত রাখবে যে, সরকারি দল ক্ষমতায় থেকেও নির্বাচন ঠিকমতো হতে পারে।

কেমন নির্বাচন দেখতে চান- এ প্রসঙ্গে প্রখ্যাত এই অর্থনীতিবিদ মানবজমিনকে বলেন, বাংলাদেশের মানুষের প্রত্যাশার সীমা অনেক নিচে চলে আসছে। তাদের সামান্য প্রত্যাশা হচ্ছে শান্তিপূর্ণভাবে এবং নিরাপদে সবাই ভোট দেয়ার। ভোটকেন্দ্র ভোটারদের হাতে থাকবে, সন্ত্রাসীদের হাতে নয়।

নির্বাচনে সংখ্যালঘু নির্যাতনের বিষয়ে তিনি বলেন, নির্বাচন ছাড়াও অন্যান্য সময় সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতন ও সম্পত্তি দখলের ঘটনাসহ নানান ঘটনা ঘটে। যে সব রাজনৈতিক দলের নেতারা সংখ্যালঘুর সম্পত্তির দিকে লোভী দৃষ্টিতে তাকায় কিংবা দুর্বলদের ওপর নির্যাতন করা যাদের রাজনীতি তাদের কাছে প্রতিশ্রুতির আশা করাটাও অবান্তর।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ড. কামাল মাঠ ফাঁকা করে দিলেন, আমরা গোল দিলাম

সংসদ থেকে বের হয়ে যাওয়ার হুমকি বাদলের

ফিঞ্চ - ওয়ার্নারের রেকর্ড

দ্রুত বিচার আইনের মেয়াদ ৫ বছর বাড়াতে সংসদে বিল

এফআর টাওয়ার নির্মাণে দুর্নীতি ২৫ জনের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

রাসেলকে মাসে দিতে হবে ৫ লাখ, জানাতে হবে আদালতকে

‘স্কুলের ভিতরে নেশায় বাধা দেয়ায় শিক্ষককে মারপিট’

ফেনীতে ধর্ষণ মামলায় যুবকের যাবজ্জীবন, চারজনের ১৪ বছর কারাদণ্ড

ইংলিশবধ করে সেমিতে অস্ট্রেলিয়া

প্রথমবারের মতো সফল লিভার প্রতিস্থাপন বিএসএমএমইউতে

৩১ ইটভাটা মালিকের বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে, হাইকোর্টকে পুলিশ

বেরোবির প্রশাসনিক ভবনে তালা

নির্যাতক মাদ্রাসা শিক্ষককে বাঁচাতে মরিয়া প্রভাবশালী মহল

লোকসভার সদস্য হিসেবে শপথ নিলেন নুসরাত ও মিমি

নড়বড়ে ও পুরনো সেতু দ্রুত মেরামতের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী

লক্ষ্মীপুরে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে শ্রমিক নিহত