চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগ-বিএনপির কোলাকুলি

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম থেকে | ১১ ডিসেম্বর ২০১৮, মঙ্গলবার, ৬:৫৬ | সর্বশেষ আপডেট: ৭:২৩
একাদশ সংসদ নির্বাচনের প্রচারণার প্রথমদিনে সারাদেশে সংঘর্ষের মধ্যে চট্টগ্রাম মহানগরীর নির্বাচনী মাঠে ভিন্ন চিত্র বিরাজ করছে। মহনগরীর জেল রোডে আমানত শাহর মাজার জেয়ারত শেষে পায়ে হেঁটে ফিরছিলেন বর্ষীয়ান রাজনীতিক, বিএনপি নেতা আবদুল্লাহ আল নোমান। একই পথ দিয়ে গাড়ি নিয়ে নির্বাচনী প্রচারণায় যাচ্ছিলেন তরুণ আওয়ামী লীগ নেতা মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।

নোমানকে দেখামাত্র গাড়ি থামিয়ে নেমে পড়েন নওফেল। নওফেলকে দেখে বুকে জড়িয়ে নেন নোমান। ভোটের মাঠে প্রবল প্রতিদ্বন্দ্বী বিপরীতমুখী দুই রাজনৈতিক দলের দুই নেতার মধ্যে এমন সৌহার্দ্যপূর্ণতা দেখে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন সেখানে থাকা সাধারণ লোকজন।

মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে নগরীর জেল রোপের বক্সিরহাট এলাকায় অমৃত মধুর সৌহার্দ্যপূর্ণ এমন ঘটনা ঘটে।
যা মুহুর্তেই ছড়িয়ে পড়ে নগরজুড়ে। মানুষের মুখে মুখে শুরু হয় প্রশংসা। আর এমনটাই আশা করছেন নগরীর সাধারণ মানুষেরা।


নোমানের সঙ্গে থাকা সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদ, চট্টগ্রামের সহ-সভাপতি সাংবাদিক জাহিদুল করিম কচি বলেন, আবদুল্লাহ আল নোমান সাহেব মাজার জিয়ারত করেছেন। উনার গাড়িটা জেল রোডের মুখে রাখা ছিল। তিনি হেঁটে গিয়ে ওই গাড়িতে উঠবেন, এমন সময় নওফেল সাহেবের গাড়ি যাচ্ছিল। তখন তিনি গাড়ি থামিয়ে নেমে গিয়ে কুশল বিনিময় করেন।

নওফেলের সঙ্গে থাকা চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের উপ-দফতর সম্পাদক ও কাউন্সিলর জহরলাল হাজারী বলেন, নোমান সাহেব নওফেল ভাইকে দেখে বুকে জড়িয়ে নেন। নওফেল ভাই উনার হাত ধরে দোয়া চেয়েছেন। সব মিলিয়ে মিনিট তিনেকের মতো উনারা একসাথে ছিলেন।

এক সময়ের ভাসানীপন্থী তুখোড় বামপন্থী নেতা আবদুল্লাহ আল নোমান এখন বিএনপির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান। কোতোয়ালী-বাকলিয়া আসন থেকে অতীতে তিনি দুইবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। একবার হারিয়েছিলেন নওফেলের বাবা সাবেক মেয়র এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীকেও। ২০০৮ সাল থেকে নোমান আসন পরিবর্তন করে চট্টগ্রাম-১০ আসন থেকে নির্বাচন করছেন। এবারও তিনি এ আসনে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে ধানের শীষ প্রতীকে লড়ছেন।

বিপরীতমুখী রাজনৈতিক দলের নেতা হলেও নোমান-মহিউদ্দিনের সম্পর্ক ছিল খুবই মধুর। দুজনের বাড়িও একই এলাকায় রাউজানে। এক সময় চট্টগ্রামের রাজনীতি আবর্তিত হতো নোমান-মহিউদ্দিনকে ঘিরেই।
প্রয়াত মহিউদ্দিনের ছেলে নওফেল এখন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক। চট্টগ্রাম-৯ আসনে নৌকা প্রতীকে প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন নওফেল। মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে জেল রোডে আমানত শাহর মাজার জেয়ারত শেষে নির্বাচনী এলাকায় গণসংযোগ শুরু করেছেন তিনি।

তার প্রতিদ্বন্ধি বিএনপির প্রার্থী ধানের শীষে প্রতীকে লড়ছেন নোমানের রাজনৈতিক শিষ্য হিসেবে পরিচিত চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন। বর্তমানে তিনি কারাগারে রয়েছেন।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Kazi

২০১৮-১২-১১ ১০:২৩:২৪

Sylhet and chittagong could be an example of relations between two candidates. Public want such behavior everywhere.

Sheikh Latif

২০১৮-১২-১১ ০৮:৩৬:৫০

এই রকম পরিবেশই তো দেখতে চায় সাধারন মানুষ।

হাফিজ জামিল

২০১৮-১২-১১ ২০:৪৬:১৫

রাজনৈতিক প্রতিহিংসার পরিবর্তে এই সুহার্দ্যপুর্ণ আচরণ সারা দেশে বাংলার জনগণ দেখতে চায়।

আপনার মতামত দিন

জামিনে মুক্তি পেয়েছেন মামুন হাসান

ইন্টারনেট প্যাকেজের মেয়াদ ৭ দিনের নিচে হবে না: বিটিআরসি

নির্বাচনের ফলকে কীভাবে দেখছেন ভারতীয় গবেষকরা?

কমলাপুর রেলস্টেশনে আগুন

মার্চে ডিএনসিসি ভোটের ইঙ্গিত দিলেন সিইসি

দ্বিতীয়বার ব্রেক্সিট গণভোট চান ৭১ লেবার এমপি

মুসলিম উম্মাহর একসঙ্গে থাকা উচিত: প্রধানমন্ত্রী

সীতাকুন্ডে তেলের ডিপোতে আগুন

টিআইবির বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করলেন সিইসি

এমপিদের শপথের বৈধতা চ্যালেঞ্জের রিটের আদেশ কাল

জাতীয় পার্টি শক্ত বিরোধীদলের ভুমিকা রাখবে: রাঙ্গা

সব জায়গায় শুদ্ধি অভিযান হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

কানাডায় পাল্টে যাওয়া জীবন সৌদি টিনেজার রাহাফের

রামগঞ্জে ৭দিন ধরে নিখোঁজ মাদ্রাসা ছাত্রী

ফখরুলের পদত্যাগ করা উচিত বলে মনে করেন কাদের

ঢাকা উত্তর সিটির উপনির্বাচন হতে আইনগত বাধা নেই