সিলেট-১

মর্যাদার আসনে লড়াইয়ে মোমেন-মুক্তাদির

শেষের পাতা

ওয়েছ খছরু, সিলেট থেকে | ৯ ডিসেম্বর ২০১৮, রোববার | সর্বশেষ আপডেট: ২:৪৭
মর্যাদার লড়াইয়ে সিলেট-১ আসনে মহাজোট প্রার্থী ড. একে আব্দুল মোমেনের সঙ্গে লড়াইয়ে  নেমেছেন বিএনপি তথা ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির। চূড়ান্ত মনোনয়ন পাওয়ার পর গতকাল সিলেটে এসে ভোট লড়াইয়ের প্রস্তুতি শুরু করেছেন মুক্তাদির। প্রথম দিনই তিনি দলের সিনিয়র নেতাদের নিয়ে বৈঠক করেছেন। মুক্তাদিরকে ঘিরে চাঙ্গা হয়ে উঠেছে সিলেট বিএনপি। সব ভেদাভেদ ভুলে নেতারা এক কাতারে শামিল হয়েছেন। আর আগে থেকে মনোনয়ন চূড়ান্ত হওয়া আওয়ামী লীগ তথা মহাজোট প্রার্থী ড. একে আব্দুল মোমেন মাঠ গোছাতে সকাল থেকে রাত অবধি চালিয়ে যাচ্ছেন মতবিনিময়। তাকে ঘিরেও আওয়ামী লীগ ঐক্যবদ্ধ।

সিটি করপোরেশন ও সিলেট সদর উপজেলা মিলে এ আসন।
অতীত থেকে এ আসনটি হচ্ছে ভিআইপিদের আসন। রাজনীতিতে ‘মিথ’ আছে- এই আসনে যে দলের প্রার্থী বিজয়ী হন সে দলই সরকার গঠন করে। দিন দিন এই মিথটি আরো শক্তিশালী হয়ে উঠছে নির্বাচনের মাঠে। ফলে এ আসনের প্রার্থী বাছাই নিয়ে অনেক চিন্তাভাবনা করতে হয় রাজনৈতিক দলগুলোকে। এ আসনে ১৯৯৬ সালে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে পার্লামেন্টে স্পিকার হয়েছিলেন প্রয়াত নেতা হুমায়ূন রশীদ চৌধুরী। ২০০১ সালে এ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে অর্থ ও পরিকল্পনামন্ত্রী হয়েছিলেন প্রয়াত এম সাইফুর রহমান। সর্বশেষ ২০০৮ সালের নির্বাচনে এ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে অর্থমন্ত্রী হন ড. আবুল মাল আবদুল মুহিত। সিলেট-১ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্যও তিনি। যাতে এই আসনটি হাতছাড়া না হয় সে কারণে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ডকে অনেক চিন্তাভাবনা করেই সিদ্বান্ত নিতে হয়েছে। মনোনয়ন ঘোষণার প্রথম ধাপেই আওয়ামী লীগ এ আসনে তাদের প্রার্থী হিসেবে ড. একে আব্দুল মোমেনের নাম ঘোষণা দেয়।

এরপরই সিলেটে এসে দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে নির্বাচনী কার্যক্রম শুরু করেন ড. আবুল মাল আবদুল মুহিত। তার মনোনয়নপত্র দাখিলের দিন ঢাকা থেকে শরিক হন বড় ভাই আবুল মাল আবদুল মুহিত। ড. মোমেনের পক্ষে এরই মধ্যে নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গঠনসহ নানা কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। নগরীর ধোপাদিঘীর পাড়ে ড. একে আব্দুল মোমেনের প্রধান নির্বাচনী কার্যালয়ের উদ্বোধন করা হবে বলে জানিয়েছেন তার নির্বাচন পরিচালনা কমিটির প্রধান সিলেটের সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন কামরান। তিনি জানান- ড. মোমেনের পক্ষে সিলেটের আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা একাট্রা। সবাই নৌকার পক্ষে। আওয়ামী লীগের ভেতরে তেমন কোনো বিভেদ নেই বলে জানান তিনি। আর নির্বাচনী কার্যক্রম শুরুর প্রাক্কালেই ড. মোমেন সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, মনোনয়ন নিয়ে তাদের দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে প্রতিযোগিতা ছিল। সেটি এখন আর নেই। দলের সব পর্যায়ের নেতাকর্মীরা তার পক্ষে মাঠে ঐক্যবদ্ধ রয়েছে।

সিলেটে বিএনপি তথা ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী চূড়ান্ত করা হয়েছে শনিবার রাতে। ওই দিন রাতে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে সিলেট-১ আসনে দলের মনোনয়ন তুলে দেয়া হয় খন্দকার আব্দুল মুক্তাদিরের হাতে। পেশায় ব্যবসায়ী আব্দুল মুক্তাদিরও হাইপ্রোফাইল ব্যক্তি। এছাড়া মর্যাদাপূর্ণ সিলেট-১ আসনটি এক সময় তার পিতা সিলেট বিভাগ বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা খন্দকার আব্দুল মালিকের দখলেই ছিল। পরপর তিনবার খন্দকার আব্দুল মালিক এই আসন থেকে নির্বাচন করেন। পিতার সূত্র ধরে সিলেট-১ আসনে রাজনীতিতে নামেন খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির। দেশের প্রতিষ্ঠিত একজন শীর্ষ ব্যবসায়ী তিনি। এই আসনে খন্দকার আব্দুল মুক্তাদিরই বিএনপির মনোনয়ন পাচ্ছেন- এমন আভাস কয়েক মাস আগে থেকে পাওয়া গেলেও মাঝখানে ছন্দপতন ঘটেছিল।

এই আসনের বিএনপির প্রার্থী তালিকায় হঠাৎ করে উঠে আসে প্রাইভেটাইজেশন কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান ইনাম আহমদ চৌধুরীর নাম। এমনকি ইনাম আহমদ চৌধুরী মনোনয়ন যুদ্ধে বেশ গুরুত্ব দিয়েই নামেন। এ কারণে বিএনপির তরফ থেকে সিলেট-১ আসনে প্রার্থী তালিকায় খন্দকার আব্দুল মুক্তাদিরের পাশাপাশি ইনাম আহমদ চৌধুরীর নামও ঘোষণা করা হয়। মনোনয়নপত্র জমা দেন দুজনই। কিন্তু শেষ বিচারে মর্যাদাপূর্ণ সিলেট-১ আসনে প্রার্থী হয়েছেন খন্দকার আব্দুল মুক্তাদিরই। তাকে ঘিরে এখন বিএনপি সরব। সিলেটে এখন বিএনপি আগের চেয়ে অনেক শক্তিশালী। বেশ গোছানো তাদের দলীয় কার্যক্রম। শত শত নেতাকর্মী মামলায় আক্রান্ত হলেও মুক্তাদির প্রশ্নে সবাই ঐক্যবদ্ধ। মনোনয়নকে কেন্দ্র করে যে প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছিল সেটি গতকাল থেকে মিটে গেছে বলে জানিয়েছেন খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির। তিনি বলেন, সিলেট বিএনপিতে কোনো দ্বন্দ্ব নেই। বরং সবাই এখন ধানের শীষের পক্ষে ঐক্যবদ্ধ রয়েছেন।

গতকাল বিকালে সিলেটের তোপখানাস্থ নিজ বাসায় বিএনপির সিনিয়র নেতাদের নিয়ে বৈঠক করেন খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির। বৈঠকে সিলেট-১ আসনে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিয়ে আলোচনা করা হয় বলে জানিয়েছেন, মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আজমল বখত সাদেক। তিনি জানিয়েছেন, খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির চূড়ান্ত মনোনয়ন নিয়ে দুপুরে সিলেটে আসেন। এরপর তিনি ওই মনোনয়নপত্র নিয়ে সিলেটে এসে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে গিয়ে সেটি জমা দেন। এরপর তার বাসায় দলের সিনিয়র নেতাদের নিয়ে তিনি বৈঠক করেছেন। আজ ২৩ দলীয় জোটের সঙ্গে বৈঠক আহ্বান করা হয়েছে। এই বৈঠক থেকে নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গঠন করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

এদিকে খন্দকার আব্দুল মুক্তাদিরের বাসভবনে বৈঠকে সিলেট-১ আসনে বিএনপি ঐক্যফ্রন্ট মনোনীত সংসদ সদস্য পদপ্রার্থী, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা খন্দকার আব্দুল মুক্তাদিরকে বিজয়ী করতে ময়দানে ঝাঁপিয়ে পড়ার আহ্বান জানিয়েছেন সিলেট জেলা ও মহানগর বিএনপি নেতৃবৃন্দ। বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আলহাজ এমএ হকের সভাপতিত্বে ও মহানগর ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আজমল বখত চৌধুরী সাদেকের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য দেন ও উপস্থিত ছিলেন- সিলেট-১ আসনের সংসদ সদস্য পদপ্রার্থী খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির, মহানগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসাইন, জেলা বিএনপির সাবেক আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট নুরুল হক, জেলা সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ, সিনিয়র সহসভাপতি আব্দুল কাহির চৌধুরী, মহানগর সিনিয়র সহসভাপতি আব্দুল কাইয়ুম জালালী পংকী, জেলা সহসভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুল গাফ্‌ফার ও সিনিয়র বিএনপি নেতা বদরুদ্দোজা বদর প্রমুখ। সভায় নেতৃবৃন্দ বলেন, সিলেট বিএনপিতে কোনো বিভক্তি নেই। শহীদ জিয়ার আদর্শের ধানের প্রতীকের বিজয় নিশ্চিত করতে দলীয় নেতাকর্মীদের পাশাপাশি সচেতন নাগরিক মহলকে সঙ্গে নিয়ে অতন্দ্র প্রহরীর ভূমিকা পালন করতে হবে।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

তৃতীয় ধাপের ১১৭ উপজেলায় ভোট আগামীকাল

শীর্ষ আলেমদের জন্য দেহরক্ষী চাইলেন আল্লামা শফী

জুয়ার ঘর ভেঙে দিল বিক্ষুদ্ধ জনতা

ঝুঁকির মুখে ফেসবুকের ৬০ কোটি ব্যবহারকারীর পাসওয়ার্ড

ছবিতে আজকের শিক্ষক আন্দোলন

চিকিৎসা নিতে এসে আটক আহত ছিনতাইকারী

গাজীপুরে বাসচাপায় ২ বন্ধু নিহত

চট্টগ্রামে এক রাতে প্রাণ গেল ৫ জনের

রাজনৈতিক প্রভাবে পরিবহন খাতে বিশৃঙ্খলা: কামাল

রাজধানীতে ট্রাকের ধাক্কায় নিহত ১

‘জৈশ-ই-মোহাম্মদ’ নিয়ে চীনের আগ্রহ কোথায়?

কাদের আউট, রওশন উপনেতা

সিরিয়ায় আইএস নিশ্চিহ্ন হয়ে যাওয়ার দাবি

ভীতুদের দায়িত্ব ছাড়তে বললেন গয়েশ্বর

প্রধানমন্ত্রীকে ডাকসুর আজীবন সদস্য করতে নুর-আখতারের আপত্তি

নরসিংদীতে স্কুলছাত্র নিহতের প্রতিবাদে মহাসড়ক অবরোধ