ভিকারুননিসায় বিক্ষোভ অব্যাহত

পরীক্ষায় ফিরতে ২ শর্ত শিক্ষার্থীদের

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার | ৬ ডিসেম্বর ২০১৮, বৃহস্পতিবার, ২:১৪
তৃতীয় দিনের মতো আজ বৃহস্পতিবারও উত্তাল ভিকারুননিসা স্কুল অ্যান্ড কলেজ। ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ রেখে ছয় দফা দাবিতে তারা বিক্ষোভ চালিয়ে যাচ্ছে। তবে ছয় দাবির দুটি- গভর্নিং বডির পদত্যাগ এবং অরিত্রীর মা-বাবার সঙ্গে দুর্ব্যবহারের জন্য বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইলে তারা পরীক্ষায় বসবে বলে জানিয়েছে। গত সোমবার অরিত্রীর আত্মহত্যার পরদিন থেকে শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে রাজপথে নামে। অরিত্রীর মৃত্যুর পর শিক্ষা মন্ত্রণালয় তদন্ত কমিটি গঠন, স্কুলের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষসহ তিন শিক্ষককে বরখাস্ত করা হয়। এছাড়া মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে পরিচালনা পর্ষদের সভায় ভিকারুননিসায় চলমান বছর সমাপনীর দুই দিনের পরীক্ষার সময় নতুন করে নির্ধারণ করা হয়। নতুন সূচি অনুযায়ী, বৃহস্পতিবারের পরীক্ষা শুক্রবার এবং ৫ তারিখের পরীক্ষা ১১ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে।
ভিকারুন্নিসার শিক্ষার্থীদের ছয় দফা দাবিগুলো হচ্ছেÑ অধ্যক্ষের পদত্যাগ এবং ৩০৫ ও ৩০৬ ধারায় আত্মহত্যার প্ররোচনার অপরাধে অধ্যক্ষের শাস্তি নিশ্চিত করা। প্রত্যেক শিক্ষার্থীর আচরণ ও চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের ওপর ভিত্তি করে মানসিক স্বাস্থ্যের বিবেচনা করে আলাদা যতœ নিতে হবে।
কোনোভাবেই শারীরিক ও মানসিক চাপ ও অত্যাচার করা যাবে না। কথায় কথায় বহিষ্কারের হুমকি দেয়া বন্ধ করে অন্যায় ডিটেনশন পলিসি বন্ধ করতে হবে। বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, অভিভাবক, শিক্ষক এবং কর্মরত সবার মানসিক সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে মানসিক পরামর্শদাতা থাকতে হবে। শৃঙ্খলাভঙ্গকারী শিক্ষার্থীকে প্রয়োজনীয় পরামর্শ দিতে হবে। গভর্নিং বডির সবাইকে পদত্যাগ করতে হবে।  অরিত্রির মা-বাবার সঙ্গে দুর্ব্যবহারের জন্য অধ্যক্ষ ও বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে হবে।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে আন্দোলনকারীদের সমন্বয়ক অরিত্রীর সহপাঠী আনুশকা রায় বলে, আজকের মধ্যে সব দাবি মেনে নিতে হবে।
আনুশকা জানায়, প্রথম দাবিটি মেনে নেয়া হয়েছে। বাকী দাবিগুলোর মধ্যে তিনটি দাবি পূরণ করা সময় সাপেক্ষ। কিন্তু ৫ এবং ৬ নম্বর দাবিটি এখন আমাদের মূল দাবি। এটা মেনে নিলে কাল আমরা পরীক্ষায় অংশ নিব। নইলে আন্দোলন চলতে থাকবে। গত দুইদিনের মতো বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টা থেকে স্কুলের মূল ফটকের সামনের অবস্থান নেয় শিক্ষার্থীরা।  ‘ভিকারুন্নিসা মূল সিনিয়র শাখার সকল শিক্ষার্থী’ ব্যানারে চলা আন্দোলনে তারা বিভিন্ন স্লোগান লেখা পোস্টার-ফেস্টুন নিয়ে বিক্ষোভ করছে।
এদিকে অরিত্রীকে আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে তার বাবা দিলীপ অধিকারীর মামলার পর মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে অরিত্রীর শ্রেণিশিক্ষক হাসনা হেনাকে বুধবার রাতে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ।

মঙ্গলবার রাতে পল্টন থানায় করা ওই মামলায় হাসনা হেনার সঙ্গে বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস ও প্রভাতি শাখার প্রধান জিনাত আখতারও আসামি।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গঠন করেছে বিএনপি

মুসলিম বিদ্বেষের কারণে ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রীর ছেলে ফেসবুকে সাময়িক বরখাস্ত

রাজধানীতে স্টিল মিলের ৮ কর্মচারী দগ্ধ

নির্বাচন কমিশন ব্যর্থ: আসক

রোগীর প্রেসক্রিপশনে নৌকার প্রচারণা!

“আমার বাড়িতে একরাত থাকুন”

একটি কালোগাড়ি কনক চাঁপাকে ফলো করছে

‘নিজেদের বিবেককে জিজ্ঞাসা করুন, নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড আছে কি না, তাহলে উত্তর পেয়ে যাবেন’

বাঘারপাড়ায় ধানের শীষের ৭টি নির্বাচনী অফিস ভাংচুর, আহত ৫

তিন দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে পুলিশকে ইসির নির্দেশ

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আসবেন ৩২ পর্যবেক্ষক- মিলার

অটল লতিফ সিদ্দিকী, অবস্থান ধর্মঘট অব্যাহত রেখেছেন

যা আছে ঐক্যফ্রন্টের ইশতেহারে

তিন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা, যুক্তরাষ্ট্রকে উত্তর কোরিয়ার সতর্কতা

পুলিশী নিরাপত্তার নামে গৃহবন্দী আছি- ড. জালাল উদ্দিন

ঐক্যফ্রন্টের ইশতেহার ভোটারদের সঙ্গে তামাশা- আওয়ামী লীগ