মানিকগঞ্জ-১ ও ৩ আসন থেকে মনোনয়ন কিনলেন রিতা

বাংলারজমিন

রিপন আনসারী, মানিকগঞ্জ থেকে | ১৫ নভেম্বর ২০১৮, বৃহস্পতিবার
সাবেক মন্ত্রী ও বিশিষ্ট শিল্পপতি মরহুম হারুনার রশিদ খান মুন্নুর কন্যা মানিকগঞ্জ জেলা বিএনপি’র সভাপতি আফরোজা খান রিতা মানিকগঞ্জ-৩ আসন  এবং মানিকগঞ্জ-১ আসন থেকে দলীয় মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। দু’টি আসনে তার পক্ষে মনোনয়ন ক্রয় করেন জেলা বিএনপি’র সিনিয়র সহ-সভাপতি এডভোকেট মোখসেদুর রহমানসহ জেলা নেতৃবৃন্দ। জেলা বিএনপি’র রাজনীতিতে জনপ্রিয়তার শীর্ষে থাকা নেতা আফরোজা খান রিতা একসঙ্গে দু’টি আসনে মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করায় বিএনপি নেতাকর্মী ও সমর্থকরা বেশ উজ্জীবিত হয়ে উঠেছেন। তাদের মধ্যে দেখা দিয়েছে উৎসাহ-উদ্দীপনা। নেতাকর্মীরা মনে করছেন দল থেকে তাকে দু’টি আসনে মনোনয়ন দিলে রেকর্ড পরিমাণ ভোট পেয়ে বিজয়ী হবেন। জেলা বিএনপি নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন, সাবেক মন্ত্রী মরহুম হারুনার রশিদ খান মুন্নুর যোগ্য উত্তরসূরি আফরোজা খান রিতার ব্যাপক জনপ্রিয়তা রয়েছে জেলার সবখানেই। ২০১৩ সালে জেলা বিএনপি’র সভাপতির দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে এ পর্যন্ত দলের সকল কর্মকাণ্ড তার নেতৃত্বেই পরিচালিত হয়ে আসছে। তার পিতা হারুনার রশিদ খান মুন্নুর হাত ধরে রাজনীতিতে আসা আফরোজা খান রিতার মানিকগঞ্জের রাজনীতিতে রয়েছে ক্লিন ইমেজ ।
দলের দুঃসময়ে শত বাধা-বিপত্তির মধ্যেও দলকে আরো বেশি সুসংগঠিত করতে কাজ করে যাচ্ছেন নিরলসভাবে। জেলা বিএনপি’র সিনিয়র সহ-সভাপতি ও বর্ষীয়ান নেতা এডভোকেট মোখসেদুর রহমান জানান, জেলা বিএনপি’র সভাপতি আফরোজা খান রিতার পিতা সাবেক মন্ত্রী মরহুম হারুনার রশিদ খান মুন্নু ছিলেন চারবারের সংসদ সদস্য। সর্বশেষ ২০০১ সালে তিনি একই সঙ্গে মানিকগঞ্জ-৩ ও মানিকগঞ্জ-২ আসনে নির্বাচন করে দু’টিতেই বিপুল ভোটে জয়লাভ করেন। পরে মানিকগঞ্জ-৩ আসন রেখে মানিকগঞ্জ-২ আসন ছেড়ে দেন। মানিকগঞ্জ-৩ আসনটি পুনরুদ্ধারে আফরোজা খান রিতার দলীয় মনোনয়ন আগে থেকেই নিশ্চিত হয়ে আছে এতে কোনো সন্দেহ নেই। কারণ বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া অনেক আগেই মানিকগঞ্জের সিংগাইরে একটি জনসভায় আফরোজা খান রিতাকে মানিকগঞ্জ-৩ আসনের প্রার্থী ঘোষণা করেছিলেন। শুধু তাই নয়, এখানকার দলীয় নেতাকর্মীরা মনে করেন। এই আসনটি মানিকগঞ্জের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ আসন। তাই এই আসনে আফরোজা খান রিতার বিকল্প নেই। তিনি আরো জানান, পাশাপাশি মানিকগঞ্জ-১ আসনের দলীয় নেতাকর্মীদেরও পছন্দের প্রার্থী হচ্ছেন আফরোজা খান রিতা। বিএনপি’র প্রয়াত মহাসচিব খোন্দকার দেলোয়ার হোসেন এই আসন থেকে ৫ বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। তার  মৃত্যুর পর সেখানকার নেতাকর্মীদের সিংহভাগই জেলা বিএনপি’র সভাপতি আফরোজা খান রিতাকে মানিকগঞ্জ-১ আসনে প্রার্থী হিসেবে চেয়ে আসছেন। নেতাকর্মীরা মনে করেন আফরোজা খান রিতা  এখানে প্রার্থী হলে খোন্দকার দেলোয়ার হোসেনের হারানো এই আসন পুনরুদ্ধার সহজ হবে। এলাকার নেতাকর্মীদের অনুরোধ আর দাবির কারণেই আফরোজা খান রিতা মানিকগঞ্জ-৩ আসনের পাশাপাশি মানিকগঞ্জ-১ আসনের দলীয় মনোনয়ন ক্রয় করেছেন। তার বাবা হারুনার রশিদ খান মুন্নু ২০০১ সালে দু’টি আসনে একসঙ্গে নির্বাচন করে বিশাল ভোটে জয় পেয়েছিলেন। আমরা আশা করি তারই কন্যা আফরোজা খান রিতাকেও দু’টি আসন দেয়া হলে তার বাবার মতোই বিপুল ভোটে বিজয়ী হবেন। মানিকগঞ্জ জেলা বিএনপি’র সভাপতি আফরোজা খান রিতা জানান, আমরা প্রতীক্ষায় আছি একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের দিকে। ভোটাররা ভোটকেন্দ্রে গিয়ে তাদের অধিকার প্রয়োগ করতে পারলে ধানের শীষের বিজয় কেউ ঠেকাতে পারবে না।





এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

বাংলাদেশে বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচন নিশ্চিতে মার্কিন কংগ্রেসে রেজ্যুলেশন পাস

‘সরকার আর ১৫ দিন ক্ষমতায়, বেআইনি আদেশ মানবেন না’

ড. কামাল হোসেনের গাড়িবহরে হামলা

খামোশ বললেই জনগণ খামোশ হবে না

সিইসির নির্দেশিত তদন্ত ফল প্রকাশ পাবে কি?

চলে গেলেন আমজাদ হোসেন

সিলেটে রচিত হলো ইতিহাস

কুমিল্লা কারাগারে অনশনে মনিরুল হক চৌধুরী

সারা দেশে ধরপাকড় অব্যাহত

রাখাইনে সেনা অভিযানকে গণহত্যা আখ্যা দিলো মার্কিন কংগ্রেস

নির্বাচন ঘনিয়ে আসায় বেড়েছে দমনপীড়ন

পাবনায় চলন্ত ট্রেনের ছাদ থেকে পড়ে নিহত ৩

শ্রদ্ধা ভালোবাসায় জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের স্মরণ

নিরাপত্তা চেয়ে বিএনপির প্রার্থী জহির উদ্দিন স্বপনের জিডি

শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত যুদ্ধ করে যাবো

এহিয়াকে চ্যালেঞ্জ মুহিব ও এনামের