ঢাকা-৭ আসন

আগামী প্রচার আওয়ামী লীগের, এখনো নীরব বিএনপি

দেশ বিদেশ

ফরিদ উদ্দিন আহমেদ | ১৪ নভেম্বর ২০১৮, বুধবার
পুরান ঢাকার চকবাজারের মোড়। রাস্তার পাশে এক সঙ্গে দু’টি চায়ের দোকান। এখানে চা পান করছিলেন স্থানীয় বাসিন্দা আব্দুর রাজ্জাক ও তার বন্ধু হিমেল সরকার। তারা দু’জনেই চায়ের কাপে চুমুক দিচ্ছেলেন আর ফাঁকে ফাঁকে আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে আলোচনা করছিলেন। তাদের আলোচনায় উঠে আসে কে কে প্রার্থী হচ্ছেন ঢাকা-৭ আসনে। সম্ভাব্য প্রার্থী ও তাদের প্রচারণা নিয়ে। একজন আরেকজনকে বলছেন দৃশ্যত প্রচারে আওয়ামী লীগ খুব এগিয়ে। অন্যদিকে, বিএনপির প্রচার কম থাকলেও নীরবে তারা বলে যাচ্ছেন ভোটারদের।
পাশেই আরেক স্থানীয় ভোটার বললেন, যদি এই আসনে আওয়ামী লীগ থেকে হাজী মো. সেলিম ও বিএনপি থেকে নাসিমা আক্তার কল্পনা প্রার্থী হন তাহলে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে। এই দুই প্রার্থী নিয়ে এই আসনে ব্যাপক আলোচনা আছে। অন্য প্রার্থীদের নিয়েও মানুষ কম বেশি আলোচনা করছেন আসনটিতে। তবে হাজী সেলিম বা তার ছেলে ও কল্পনার আলোচনাই বেশি মাঠে-ঘাটে। আজিমপুরে একটি খাবার হোটেলে রাজধানীর অতি পরিচিত এলাকা পুরান ঢাকায় ঢাকা-৭ আসনটি নিয়ে কথা হয় গনি মিয়ার সঙ্গে। তিনি জানান, মানুষ ভোট দেয়ার সঠিক সুযোগ পেলে পরিবর্তন আসতে পারে। ভোটাররা ভালো-মন্দ বিচার করেই ভোট দেবেন। কবরস্থানের সামনে স্থানীয় ভোটার নজরুল ইসলামের সঙ্গে নির্বাচন প্রসঙ্গ নিয়ে কথা হয়। তিনি জানান, সুষ্ঠু নির্বাচন হলে ভোটাররা একটু চিন্তা করবে। কাকে ভোট দেবেন। সেক্ষেত্রে কাজের তুলনা করেই জনগণ ভোট দেবেন। আর যদি জোর করে নিয়ে যায়, তাহলে তো কোনো কথাই নেই।
ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের অন্তর্ভুক্ত পুরান ঢাকার বংশালের একাংশ, কোতোয়ালির একাংশ, চকবাজার, লালবাগ, কামরাঙ্গীরচর, হাজারীবাগ থানার ১৬টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত ঢাকা-৭ আসন। দেশের অন্য সংসদীয় আসনগুলোর মতো এই আসনেও বইছে নির্বাচনী হাওয়া। নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা এবং জোট-মহাজোটের এবং জাতীয় ঐক্যফ্রণ্টের নির্বাচনে যাওয়ার ঘোষণার পর বিভিন্ন সংগঠনের নেতাকর্মী এবং ভোটারদের মধ্যেও চলছে আলোচনা। ঘর থেকে চায়ের দোকান পর্যন্ত সর্বত্রই এখন আলোচনায় আছে জাতীয় সংসদ নির্বাচন। আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি ও আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের অনেকেই পোস্টার, ব্যানার, ফেস্টুন লাগিয়ে এলাকাবাসীকে নিজেদের প্রার্থিতার জানান দিচ্ছেন। কেউ কেউ মাঠ পর্যবেক্ষণ করছেন। এই আসনে প্রচারে এগিয়ে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা। সংগঠনটির প্রার্থীরা অনেক আগ থেকেই প্রচার চালিয়ে আসছেন। এখন দ্বিতীয় দফায় আবার প্রচার শুরুর অপেক্ষা করছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা। অন্যদিকে, ২০দলীয় জোট প্রার্থীদের প্রচার নেই বললেই চলে। বিএনপিসহ জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনে যাওয়ার ঘোষণার পর বিএনপির দু-একজনের প্রচারণা দেখা গেছে এলকায়। স্থানীয় অফিসগুলোতে বিশেষ করে আওয়ামী লীগের অফিসে সন্ধ্যায় নেতাকর্মীদের সরগরম বেশি। বিএনপির অফিসে এখনো সেভাবে জমে উঠেনি। তবে, কয়েকদিনের মধ্যে সরগরম হবে বলে স্থানীয় বিএনপির একাধিক নেতা জানিয়েছেন।
এদিকে, একাদশ সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী হিসেবে ঢাকা-৭ আসনের জন্য মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন মদিনা গ্রুপের চেয়ারম্যান ও বর্তমান সংসদ সদস্য হাজী মো. সেলিম। তিনি ঢাকা-৭ লালবাগ, চকবাজার থেকে নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করতে চান। এ আসনের বর্তমান স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য হাজী মো. সেলিম। এ ছাড়া মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন হাজী সেলিমের পুত্র ও মদিনা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা সম্পাদক (এমডি) সোলাইমান সেলিমও। সাবেক সংসদ সদস্য ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিনও প্রার্থী হচ্ছেন বলে তার অনুসারীরা জানিয়েছেন। প্রার্থী হওয়ার প্রচারণায় রয়েছেন কমিশনার মো. হুমায়ুন কবির ও ব্যবসায়ী নাজমুল হক।
এই আসনে বিএনপির নতুন মুখ আলোচনায় রয়েছেন। এদিকে, আগামী নির্বাচন প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হবে, এটা মাথায় রেখে পুরনোদের পাশাপাশি নতুন প্রার্থীকেও অগ্রাধিকার দেয়ার চিন্তা করছে বিএনপির হাইকমান্ড। অতীতে ঢাকা-৭ আসনে ক্ষমতার পালাবদল হয়েছে একাধিকবার। একেকবার একেক দলের প্রার্থী নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন। তবে, বিএনপি আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টি এই তিন দলের প্রার্থীরাই ঘুরে ফিরে নির্বাচিত হয়েছেন। কেউ কেউ একাধিকবারও নির্বাচিত হন। এই আসনে ২০০৮ সালের নির্বাচনে বিএনপি থেকে প্রার্থী হয়েছিলেন সাবেক এমপি মরহুম নাসিরউদ্দিন আহমেদ পিন্টু। বিগত ওয়ান-ইলেভেনের পর থেকে আমৃত্যু তিনি জেলে ছিলেন। এই আসনে তার সহধর্মিণী ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সহসভাপতি নাসিমা আক্তার কল্পনা মনোনয়ন চাইতে পারেন। ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি মরহুম নাসির উদ্দিন পিন্টুর দীর্ঘদিনের ঘাঁটিতে আঘাত হানতে প্রতিযোগিতায় মাঠে নামছেন বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সহ-যুব বিষয়ক সম্পাদক মীর নেওয়াজ আলী নেওয়াজ ও চকবাজার থানা বিএনপির সিনিয়র সহসভাপতি হাজী মো. টিপু সুলতান। আছেন রফিকুল ইসলাম রাসেলও। বসে নেই অপরাপর প্রার্থীরা। এই আসনে জাতীয় পার্টি থেকে প্রার্থী হতে আগ্রহ প্রকাশ করে পোস্টার ছাপিয়েছেন সংগঠনটির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য তারেক এ  আদেল।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

সারা দেশে ধরপাকড় গ্রেপ্তার ২৫০

খোকন গুলিবিদ্ধ, আব্বাস-সুব্রতের ওপর হামলা, কর্নেল অলির ছেলের আঙুল কর্তন

অর্থনীতিতে বড় অর্জন রাষ্ট্র মেরামতের তাগিদ

সংকটময় মুহূর্তে বাংলাদেশ

জনগণ ঘুরে দাঁড়ালে পালানোর পথ পাবেন না: আ স ম রব

৩০-৩১ ডিসেম্বরের এয়ারলাইন্সের টিকিটের চাহিদা তুঙ্গে

পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে গ্রেপ্তার করতে পারবে সেনাবাহিনী

নৌকার জোয়ার দেখে ঐক্যফ্রন্ট নেতারা বেসামাল হয়ে পড়েছেন

আওয়ামী লীগের বিদ্রোহীদেরকে দুই দিনের আল্টিমেটাম

‘নৌকা’-‘সিংহ’ এক ভাই

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের কেন্দ্রীয় সমন্বয় কমিটি গঠন

সিলেটে ভোটের মাঠে উন্নয়ন নিয়ে ‘বিতর্ক’

রাজাপাকসের পদত্যাগ

এবার প্রজার ছেলে রাজা হবে

বাবা জীবিত থাকলে আওয়ামী লীগ করতেন না : রেজা কিবরিয়া

চট্টগ্রামে গণসংযোগে চাঙ্গা বিএনপি নেতাকর্মীরা