পাবিপ্রবি অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা

শিক্ষাঙ্গন

স্টাফ রিপোর্টার, পাবনা থেকে | ৬ নভেম্বর ২০১৮, মঙ্গলবার
পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করেছে কর্তৃপক্ষ। রিজেন্ট বোর্ডের জরুরী সভায় এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। মঙ্গলবার সকাল দশটা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুটি হল ছেড়ে যায় আবাসিক ছাত্র-ছাত্রীরা।

গত কয়েক মাস ধরে শীক্ষার্থীদের আন্দোলন করে আসা ছয় দফা দাবীর বাস্তবায়ন ও বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণার প্রতিবাদে মঙ্গলবার বিক্ষোভ করে শিক্ষার্থীরা। এ সময় অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে ক্যাম্পাসে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

গত কয়েক মাস ধরে পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ছয় দফা দাবীতে ক্লাস বর্জন করে করে আসছিল। সোমবার তারা প্রশাসনিক ভবনে তালা ঝুলিয়ে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করে। সে সময় ভাইস চ্যান্সেলর প্রশাসনিক ভবন থেকে বের হয়ে বাস ভবনে চলে যান। পরে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা ভিসির বাস ভবনও অবরুদ্ধ করে রাখেন। পরে বিষয়টি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়।
সন্ধ্যায় রিজেন্ট বোর্ডের জরুরী সভায় বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধের ঘোষণা দিয়ে নোটিশ জারী করে কর্তৃপক্ষ।

নোটিশে বলা হয়, ৬ই নভেম্বর থেকে পরবর্তী ঘোষণা না দেয়া পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকবে।
পাবনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওবায়দুল হক জানান, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের বিষয়টি প্রশাসন আমাদের অবহিত করলে সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
তবে আইন শৃংখলা স্বাভাবিক আছে বলে তিনি জানান।  

এ বিষয়ে পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর ড. রোস্তম আলীর জানান, প্রশাসনিক ভবনে তালা ঝুলিয়ে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করেছিলো ছাত্ররা। রিজেন্ট বোর্ডের জরুরী সভায় বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। তবে ১৮ সালের ভর্তি পরীক্ষা ঘোষণার তারিখ অনুযায়ী যথাসময়েই হবে।

তবে একাধিক শিক্ষার্থীরা জানান, দীর্ঘদিন ধরে আমরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নিকট ছয় দফা দাবী করে আসছি। দাবী মেনে নেবেন বলে আশ^াসও দিয়েছেন। অথচ গত ৩/৪ মাস অতিবাহিত হলেও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কোন প্রকার কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করেননি। ইতিপূর্বেও আমরা ক্যাম্পাসে দীর্ঘদিন ধারাবাহিক ভাবে আমাদের দাবী আদায়ের লক্ষে আন্দোলন করেছি। প্রতিবার আমাদের আশ্বাস দিয়ে আন্দোলন থামিয়ে দিয়েছে। কিন্তু দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলেও আমাদের দাবী বাস্তবায়িত করা হচ্ছেনা।

প্রসঙ্গত, শিক্ষার্থীদের দাবীসমূহ-
২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষসহ পরবর্তী সকল ব্যাচ সমূহের অডিন্যান্সের আওতাভুক্ত করা।
হলের ডাইনিংয়ের খাবার উন্নয়নের জন্য ভর্তূকি প্রদান।
শ্রেণী কক্ষ ও চেয়ার সংকট দূর করা।
পরিবহন সংকট দূর করা।
ক্যাম্পাসে ওয়াইফাই এর ব্যাবস্থা করা।
শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার স্বার্থে পুলিশ ফাঁড়ি স্থাপন করা।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

পাবনায় অধ্যাপক সাঈদের গাড়িতে হামলা

চাঁপাইনবাবগঞ্জে এক মঞ্চে প্রার্থীরা, নিলেন শপথ

গো বলয়ের রঙ বদলে বিরোধীরা আত্মবিশ্বাসী

নিতাই রায় চৌধুরীর নির্বাচনী অফিসে হামলা-ভাংচুর

সিলেটে প্রচারণায় গিয়ে ডা. জাফরুল্লাহ অসুস্থ

খন্দকার মোশাররফের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগ থানায়

ক্ষমতাসীনদের অধীনেও ভালো নির্বাচন হতে পারে এটা প্রমান করা গুরুত্বপূর্ণ

বিশ্বের শীর্ষ ১০ পর্নো তারকার অনেকেই নিষ্ক্রিয় কিংবা মৃত

ভারতের যে স্কুলে পড়েছেন বিশ্বের শীর্ষ তিন সিইও

আস্থা ভোটে টিকে গেলেন তেরেসা মে

‘এটি এই বছরের জন্য স্পেশাল একটি বিষয়’

নৌকায় ভোট চাইলেন হাসিনা

সিলেট থেকে ধানের শীষের প্রচারণা শুরু

হামলা, সংঘর্ষ-বাধা

‘চোখ রাঙালে চোখ তুলে নেয়া হবে’

নির্বাচন কমিশন বিব্রত