আদালত থেকে বেরিয়ে গেলেন আসামিপক্ষের আইনজীবীরা

খালেদা জিয়ার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড চায় দুদক

প্রথম পাতা

স্টাফ রিপোর্টার | ২৪ অক্টোবর ২০১৮, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ৭:২৮
জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় হাইকোর্টে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) ও রাষ্ট্রপক্ষের আপিল শুনানি গতকাল শেষ হয়েছে। শুনানিতে এই মামলায় বিএনপি’র চেয়ারপারসনের দণ্ড বাড়ানোর আর্জি জানিয়ে তার যাবজ্জীবন সাজা চেয়েছেন দুদকের আইনজীবী।

বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চে এ শুনানি হয়। এদিকে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় অর্থের উৎসের বিষয়ে অতিরিক্ত সাক্ষ্যগ্রহণের আবেদন গ্রহণ না করা ও আপিল শুনানি মুলতবির আবেদনে সাড়া না পাওয়ায় গতকাল শুনানি থেকে বিরত থেকে আদালত থেকে বেরিয়ে যান খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা। পরে রাষ্ট্র ও দুদকের পক্ষে শুনানি শেষে আদালত পরবর্তী আদেশের জন্য আজ বুধবার দিন ধার্য রাখেন। হাইকোর্টে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার বিচারিক কার্যক্রম  আগামী ৩১শে অক্টোবরের মধ্যে শেষ করতে সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশনা রয়েছে।

খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা জানান, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় অর্থের উৎসের বিষয়ে জানার জন্য অধিকতর সাক্ষ্য গ্রহণের আবেদন করেছিলেন তারা। সোমবার শুনানি নিয়ে এ বিষয়ে আদেশ না দিয়ে তা নথিভুক্ত করে রাখেন আদালত। গতকাল এ জে মোহাম্মদ আলী আদালতকে বলেন, আমরা এ বিষয়ে আপিল বিভাগে আবেদন করবো।
আপিল বিভাগের সিদ্ধান্ত না আসা পর্যন্ত শুনানি মুলতবির আবেদন করেন তিনি। আদালত মুলতবির আবেদন নামঞ্জুর করে শুনানি করতে বলেন। এ জে মোহাম্মদ আলী আদালতকে এই বলে অবহিত করেন যে, তারা শুনানিতে বিরত থাকবেন এবং একপর্যায়ে আদালত থেকে বেরিয়ে যান খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা। তারা বেরিয়ে যাবার পর পর্যায়ক্রমে দুদকের আইনজীবী খুরশিদ আলম খান ও রাষ্ট্রপক্ষে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম শুনানি শেষ করেন। শুনানিতে খালেদা জিয়ার যাবজ্জীবন সাজার আর্জি জানান খুরশিদ আলম খান। আর এই মামলায় খালেদা জিয়াকে বিচারিক আদালত যে সাজা দিয়েছিলেন তা বহাল চান অ্যাটর্নি জেনারেল।  

খালেদা জিয়ার আইনজীবী নওশাদ জমির মানবজমিনকে বলেন, এই মামলায় অর্থের উৎসের বিষয়ে অধিকতর সাক্ষ্যগ্রহণ চেয়ে আমরা একটি আবেদন করেছিলাম। শুনানি নিয়ে আদালত সোমবার তা নথিভুক্ত করে রেখেছিলেন। আজ (গতকাল) আমরা এ বিষয়ে আপিল বিভাগে যাবো উল্লেখ করে শুনানি মুলতবির আবেদন জানিয়েছিলাম। আদালত আমাদের আবেদন নাকচ করে শুনানি করতে বলেন। এরপর আমরা আদালত থেকে বেরিয়ে যাই। দুদকের আইনজীবী খুরশিদ আলম খান বলেন, খালেদা জিয়ার সাজা বাড়াতে আমরা যে আবেদন করেছিলাম সে বিষয়ে শুনানি আজ শেষ হয়েছে। এই মামলায় খালেদা জিয়ার যাবজ্জীবন সাজার আর্জি জানিয়েছি। তিনি বলেন, আসামিপক্ষের আইনজীবীরা অধিকতর সাক্ষ্যগ্রহণ চেয়ে শুনানি মুলতবির আবেদন করেছিলেন। আদালত তাতে সাড়া না দেয়ায় তারা আদালত থেকে বেরিয়ে যান।

গত ৮ই ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়াকে ৫ বছর ও অন্য আসামিদের ১০ বছর করে কারাদণ্ড দেন বিচারিক আদালত। পরে দণ্ড থেকে খালাস ও জামিন চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেন খালেদা জিয়া। একই সঙ্গে খালেদা জিয়ার সাজা বাড়ানোর আবেদন করেন দুদকের আইনজীবী। গত ১২ই মার্চ খালেদা জিয়াকে চার মাসের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দেয় হাইকোর্টের এই বেঞ্চ। এরপর বেশ কয়েক দফায় আপিল শুনানির ধার্য তারিখ পর্যন্ত তার জামিন বর্ধিত করেন আদালত।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন