আইয়ুব বাচ্চুর কথাই সত্যি হলো

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার: | ১৮ অক্টোবর ২০১৮, বৃহস্পতিবার, ২:২৪ | সর্বশেষ আপডেট: ৬:২৯
আইয়ুব বাচ্চু বলেছিলেন, চট্টগ্রাম আমার নাড়ি পোতা শহর। এই শহরে আমার মা ঘুমিয়ে আছেন। এই শহরেই আমি ফিরে আসবো। ২০১৭ সালের ২০  মে গিটার  শো ‘নাও অ্যান্ড দেন’- এ অংশ নিয়ে আইয়্বু বাচ্চু এ কথা বলেছিলেন। বছর পেরুতে না পেরুতেই আইয়ুব বাচ্চুর কথাই সত্যি হলো। আইয়ুব বাচ্চু তার শহরে ফিরে যাচ্ছেন ঠিকই, তবে নিথর দেহে। কিন্তু এতো তাড়াতাড়ি যে তাকে এভাবে চট্টগ্রামে যেতে হবে কে জানতো? শনিবার মার কবরের পাশেই তিনি চিরনিদ্রায় শায়িত হবেন।  
কাল শুক্রবার জুমার নামাজের পর জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে প্রথম নামাজে জানাজা শেষে জনপ্রিয় শিল্পী আইয়ুব বাচ্চুকে চট্টগ্রামে নিয়ে যাওয়া হবে।
১৯৬২ সালের ১৬ আগস্ট চট্টগ্রামে জন্মগ্রহণ করেন কিংবদন্তি এই সঙ্গীতশিল্পী।
স্বাধীনতা পর দেশে ব্যান্ড সঙ্গীত যেসব মানুষের হাত ধরে জনপ্রিয় হয়েছে তাদের অন্যতম আইয়ুব বাচ্চু।
১৯৭২ সালে চট্টগ্রামের কিছু গানপাগল তরুণ সাজিদ উল আলম, লুলু, নেওয়াজ, রনি বড়ুয়া ও তাজুল মিলে বিদেশি গানের দলের অনুকরণে ‘সোলস’ নামে গানের দল গঠন করেন। সে সময় ‘সোলস’ শুধু চট্টগ্রাম দাপিয়ে বেড়াচ্ছিল। এর মধ্যে ১৯৭৮ সালে ‘ফিলিংস’ ব্যান্ডের মাধ্যমে সঙ্গীতজগতে প্রবেশ করেন আইয়ুব বাচ্চু। পরে ১৯৭৮ শেষ দিকে ‘সোলস’-এ যোগ দেন বাংলা ব্যান্ডের ‘ক্ষ্যাপা’ তরুণ হিসেবে পরিচিতি পেতে যাওয়া আইয়ুব বাচ্চু। শুরু হয় বাংলার সর্বকালের সেরা একটি ব্যান্ড দলের যাত্রা, যেখান থেকে বাংলা আধুনিক ও ব্যান্ড সঙ্গীতের আকাশে সমহিমায় ঠাঁই করে নিয়েছে একটি একটি নক্ষত্র। সেই তরুণদের একজন আইয়ুব বাচ্চু। তিনি একাধারে ছিলেন ব্যান্ডের গিটারিস্ট, ভোকাল, গীতিকার, সুরকার ও সঙ্গীতশিল্পী। ১৯৮০ সালে বের হয় ‘সোলস’-এর প্রথম অ্যালবাম ‘সুপার সোলস’। বাংলাদেশের ইতিহাসের প্রথম কোনো ব্যান্ড অ্যালবাম এটি। ওই অ্যালবামে আইয়ুব বাচ্চুর অবদান ছিল উল্লেখযোগ্য। এরপর থেকেই তিনি সুরকার হিসেবে কাজ শুরু করেন।

১৯৮২ সালের দিকে নকীব খান, পীলু খান ও কুমার বিশ্বজিৎ ব্যান্ড ছেড়ে দিলেও ‘সোলস’-এর ভোকাল হিসেবে থেকে যান আইয়ুব বাচ্চু। এরপর ১৯৮০ থেকে ১৯৮৯ সাল পর্যন্ত একটানা সোলস ব্যান্ডের সাথে যুক্ত ছিলেন তিনি। আইয়ুব বাচ্চু ১৯৮৯ সালে নিজের স্টাইলে গাইবেন -এ সংকল্পে সোলস ত্যাগ করেন। ১৯৯০ সালে প্রতিষ্ঠা করেন নিজের ব্যান্ড দল ‘ইয়োলো রিভার ব্যান্ড’। কিন্তু বিদেশের এক প্রোগ্রামে গিয়ে দেখেন ভুল করে তার দলের নাম লেখা হয়েছে ‘লিটল রিভার ব্যান্ড’। নামটি তার ভালো লেগে যায় এবং নিজ দলেন নাম বদলে রাখেন ‘লিটল রিভার ব্যান্ড’। পরে জানা যায়, ওই নামে অস্ট্রেলিয়ান একটি ব্যান্ড আছে। ফলে আবারও নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় ‘লাভ রান্স ব্যান্ড’ যা ‘এলআরবি’ নামেই পরিচিত। এরপর থেকেই সারা দুনিয়ায় ঝড় তুলতে শুরু করে এলআরবি।   শেষ জীবনে চট্টগ্রামের জন্য কিছু একটা করতে চেয়েছিলেন। চট্টগ্রামের তরুণ শিল্পী এবং ব্যান্ড সঙ্গীতে আগ্রহীদের জন্য ‘এবি লাউঞ্জ’ নামে নতুন একটি প্লাটফর্ম তৈরির কাজ শুরু করেন। এ প্রসঙ্গে আইয়ুব বাচ্চু বলেছিলেন, ‘আমি চট্টগ্রামের সন্তান। তাই চট্টগ্রামের জন্য কিছু করে যেতে চাই। আমি সারাজীবন গাইতে পারব না। কিন্তু আমি চাই চট্টগ্রাম থেকে আমার মতো আরও কেউ বের হোক। চট্টগ্রামের উদীয়মান শিল্পীদের জন্য আমি একটা প্লাটফর্ম তৈরি করে দিয়ে যেতে চাই। চট্টগ্রামে ‘এবি লাউঞ্জ’ হবে ব্যান্ড সঙ্গীত এবং উদীয়মান ব্যান্ড শিল্পীদের জন্য নতুন একটি সম্ভাবনার দ্বার।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Reader

২০১৮-১০-১৮ ০২:৫৫:০৪

Pl give some information about his family.

আপনার মতামত দিন

বিশ্ব চিন্তাবিদদের তালিকায় শেখ হাসিনা

সমঝোতা ফেব্রুয়ারিতে ইজতেমা

ডাকসু নির্বাচন ১১ই মার্চ

বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবৃদ্ধি তিন বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ২৩ কর্মকর্তা-কর্মচারীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে দুদকের চিঠি

এক বছরে যৌন নির্যাতনের শিকার ৮১২ শিশু

রাজধানীতে প্রকাশ্যে তরুণীকে নিয়ে টানাটানি শ্লীলতাহানির চেষ্টা

সুশাসনে অগ্রাধিকার দিচ্ছে বাংলাদেশের নতুন সরকার

নির্বাচনের অনিয়ম ও রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে আলোচনা হয়েছে

লক্ষ্মীপুরে রোগী দেখতে গিয়ে লাশ হলেন সাত জন

খালেদার জামিন আবেদন নিষ্পত্তির নির্দেশ

সরকারি কেনাকাটা হবে উন্মুক্ত দরপত্রে: অর্থমন্ত্রী

ছাত্রলীগ নেতাসহ ৯ জন রিমান্ডে

সাংবাদিকদের জন্য ফ্ল্যাট নির্মাণের চিন্তাভাবনা করছি

লিবিয়া উপকূল থেকে বাংলাদেশিসহ ৫০০ অভিবাসনপ্রত্যাশী উদ্ধার

বিকিনিতে বাংলাদেশি উপস্থাপিকা, বিতর্ক