নরসিংদীর জঙ্গি আস্তানায় অভিযান ২ নারীর আত্মসমর্পণ

এক্সক্লুসিভ

মোর্শেদ শাহরিয়ার ও মো. আল-আমিন সরকার, মাধবদী (ন | ১৮ অক্টোবর ২০১৮, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১:৪৯
অবশেষে কোনোরকম রক্তপাত ছাড়াই শেষ হয়েছে মাধবদীর ছোট গদাইরচরের নিলুফা ভিলার অপারেশন। বুধবার বিকাল পৌনে তিনটার দিকে ২ নারী জঙ্গির আত্মসমর্পণের মধ্যদিয়ে এ অপারেশন সমাপ্তির ঘোষণা দেন পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম। তিনি বলেন, তারা দুজনই নব্য জেএমবির সদস্য। তাদের নাম খাদিজা আক্তার মেঘনা ও মৌ। আত্মসমর্পণকারী জঙ্গিদের কাছ থেকে আগের দিন গর্ডিয়ান নট অভিযানে নিহত ২ জঙ্গির পরিচয়ও পুলিশ নিশ্চিত হয়েছে বলে জানান মনিরুল। তিনি বলেন, তাদের একজনের নাম আব্দুল্লাহ আল বাঙালী ও আরেকজনের নাম আকলিমা আক্তার মনি। সম্পর্কে এরা দুজন স্বামী-স্ত্রী। মনিরুল ইসলাম আরো জানান, আত্মসমর্পণকারী ও নিহত জঙ্গিরা নব্য জেএমবির সদস্য।


‘এদের মধ্যে নিহত আব্দুল্লাহ আল বাঙালী নব্য জেএমবির মিডিয়া শাখার প্রধান ছিল। নিহত আকলিমা আক্তার ও আত্মসমর্পণকৃত মেঘনা ও মৌ তারা তিনজনই মানারাত ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থী ও বান্ধবী ছিল। ২০১৬ সালে হলি আর্টিজান হামলার পর আগস্টে জঙ্গি কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ততার অভিযোগে তারা তিনজনসহ চারজন মিরপুর মডেল থানায় জঙ্গি সংশ্লিষ্ট একটি মামলায়  পুলিশের হাতে আটক হয়ে ৭ মাস কারাভোগ করে। ছাড়া পেয়ে তারা কেউই পরিবারে ফিরে যায়নি। পরবর্তীকালে তারা হিজরতের মাধ্যমে পুনরায় জেএমবির কার্যক্রমে সম্পৃক্ত হয়। একজন স্বাভাবিক জীবনে ফিরে গেছে বলে আমরা জানতে পেরেছি।’

পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের প্রধান জানান, নরসিংদীর এ দুটি বাড়ি কেন জঙ্গিরা ভাড়া নিয়েছিল তার কারণ এখনও পুলিশ জানতে পারেনি। তিনি বলেন, মাধবদীর এই বাড়িতে আরও অনেকের যাতায়াত ছিল।
‘দুটি বাসাই খুব কাছাকাছি সময়ে এই মাসের তিন তারিখে এবং পাঁচ তারিখে ভাড়া নেয়া হয়েছিল। এ দুটি বাড়ি জঙ্গিরা কেন ঠিক করেছিল, তাদের লক্ষ্য কী ছিল, উদ্দেশ্য কী ছিল- সে বিষয়ে এখনো সুনির্দিষ্ট তথ্য পাইনি। জিজ্ঞাসাবাদ করে আমরা বের করার চেষ্টা করব। তবে আমরা এতটুকু বুঝতে পারছি পূজার সঙ্গে এর কোনো সম্পর্ক ছিল না।’
জঙ্গিদের অবস্থানকারী ভবনের কাঠামো দুর্বল থাকায় সেখানে অভিযান চালানো বিপজ্জনক ছিল। সে কারণে তাদের আত্মসমর্পণে রাজি করানোর চেষ্টা করতে হয়েছে বলে জানান মনিরুল ইসলাম।

‘এখানে অভিযান করতে গেলে বেশকিছু বিপদের সম্ভাবনা ছিল। তাই আমরা শুরু থেকেই চেষ্টা করছিলাম নেগোশিয়েশনের মাধ্যমে সমস্যার সমাধান করতে। আমরা গতকাল সকালেও বলেছিলাম যে নেগোশিয়েশনে জোর দিচ্ছি। যদিও তারা চেষ্টা করেছে ব্লাস্ট করার। তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে একটা ব্লাস্ট করেছিল। কিন্তু আমাদের বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট এবং অন্যান্য যারা আছে তারা নেগোশিয়েট করে শেষ পর্যন্ত আত্মসমর্পণে রাজি করাতে সক্ষম হয়েছি।’

অভিযানের সময় তাদের কাছ থেকে ৩টি শক্তিশালী বিস্ফোরক উদ্ধার করা হয়। পরে সেগুলোকে নিষ্ক্রিয় করেন পুলিশের বোমা নিষ্ক্রিয়করণ দল।
জঙ্গিদের সঙ্গে আলোচনা করে তাদের আত্মসমর্পণ করানোকে পৃথিবীতে বিরল ঘটনা হিসেবে উল্লেখ করেন পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম।

এদিকে, কোনোরকম হতাহতের ঘটনা ছাড়া আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অপারেশন সম্পন্ন হওয়ায় স্বস্তি ফিরেছে এলাকায়। শেখেরচরের জঙ্গি আস্তানায় অপারেশন ‘গর্ডিয়ান নট’ শেষ হওয়ার পর মাধবদী পৌরসভার ছোট গদাইরচর (গাংপাড়) এলাকার আফজাল হাজীর ‘নিলুফা ভিলা’কে ঘিরে শুরু হয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ব্যাপক তৎপরতা।
সোমবার রাত থেকেই সাততলা ভবনটির চারপাশ ঘিরে রেখেছিল পুলিশ। বুধবার সকাল থেকে বাড়ানো হয় প্রশাসনিক তৎপরতা। ভবনটির ৫০০ গজের মধ্যে ১৪৪ ধারা জারি করা হলে কার্যত অচল হয়ে পড়ে গোটা মাধবদী। সকাল থেকে মাধবদী বাজারে পুলিশের পক্ষ থেকে মাইকিং করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্ডনকৃত এরিয়ার মধ্যে সব দোকানপাট, স্কুল, কলেজ, মাদরাসাসহ সব প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়। ফলে বিপাকে পড়ে ওই এলাকায় বসবাসরত সাধারণ মানুষ।

ঘটনাস্থলের কাছাকাছি মাধবদীর কেন্দ্রীয় মসজিদ অবস্থিত। ১৪৪ ধারা জারি থাকায় মসজিদে কেউ নামাজ পড়ার জন্য আসতে পারেনি। এর পাশেই রয়েছে একটি মাদরাসাসহ কয়েকটি বড় মার্কেট। পুলিশি অভিযানে অচল হয়ে পড়ে ওই সব প্রতিষ্ঠান। সকাল থেকে দূর-দূরান্তের ব্যবসায়ীরা মার্কেটে দোকানপাট খুলতে এসে হতাশ হয়ে ফিরে যায়। এ অবস্থায় ঘটনাস্থলের পাশের ৫টি ব্যাংকের কার্যক্রমও সারা দিন বন্ধ থাকে।

বুধবার সকাল পৌনে নয়টার দিকে পুলিশের সঙ্গে যোগ দেয় পুলিশের বিশেষায়িত টিম সোয়াত ও র‌্যাব। প্রস্তুত রাখা হয় বোমা নিষ্ক্রিয়করণ টিম, দমকল বাহিনী ও অ্যাম্বুলেন্স। কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ইউনিটের (সিটিটিসি) প্রধান মনিরুল ইসলাম বেলা ১১টা ৪০ মিনিটে সাংবাদিকদের জানান, তারা জঙ্গিদের আত্মসমর্পণ করানোর চেষ্টা করছেন। কিন্তু জঙ্গিরা সাড়া দিচ্ছে না।

‘তারা এখন পর্যন্ত মানুষ খুন করার মতো কোনো অপরাধে জড়িত হয়েছে, এমন রেকর্ড আমরা পাইনি সেহেতু তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা যতটা লঘু করা যায়, সে আশ্বাস দিয়েছি। আইনগতভাবে সহায়তা করব এটাও বলেছি। কিন্তু তারা আমাদের কথার কোনো জবাব দিচ্ছে না। তাদের চলাফেরায় আচরণে কিছু একটা প্রস্তুতির আভাস পাচ্ছি। এখনো আমাদের চেষ্টা অব্যাহত আছে। নেগোশিয়েটিং স্কিল আছে এমন লোকজন আমরা ঢাকা থেকে নিয়ে এসেছি। আমরা শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত অপেক্ষা করব সোয়াত টিমকে যেন অপারেশন না করতে হয়।’ ওই বাড়িতে কমপক্ষে দুজন জঙ্গি বিস্ফোরকসহ অবস্থান করছে বলে জানান মনিরুল ইসলাম। এর বেশিও থাকতে পারে।

সোমবার (১৫ অক্টোবর) নব্য জেএমবির আস্তানা সন্দেহে নরসিংদীর মাধবদী ও শেখেরচরে দুটি বাড়ি ঘিরে রাখে ঢাকার কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ইউনিট (সিটিটিসি)। পরে মঙ্গলবার (১৬ই অক্টোবর) সকাল ১০টা ৩০ মিনিটে শেখেরচরের ভগিরথপুর এলাকায় জঙ্গি আস্তানায় অপারেশন ‘গর্ডিয়ান নট’ চালানো হয়। বিকালের দিকে অপারেশন শেষ হয়। অপারেশন শেষে পাঁচতলা ওই ভবন থেকে একজন পুরুষ ও একজন নারীর লাশ উদ্ধার করা হয়। বিকাল পৌনে ৪টার দিকে কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ইউনিটের (সিটিটিসি) প্রধান মনিরুল ইসলাম অপারেশন ‘গর্ডিয়ান নট’ সমাপ্ত হয়েছে বলে সাংবাদিকদের জানান।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

প্রধানমন্ত্রীর অনুষ্ঠানে ইসির অনাপত্তি, মুহিতকে নিষেধ

নির্বাচন পর্যবেক্ষকদের স্ট্যাটাস কী হবে জানতে চান কূটনীতিকরা

বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের উদ্বেগ

কারাগারে থেকে ভোটের প্রস্তুতি

শহিদুল আলমের জামিন

ধানের শীষে লড়বে ঐক্যফ্রন্ট

নিপুণ রায় চৌধুরী গ্রেপ্তার

আতঙ্ক উপেক্ষা করে পল্টনে ভিড়

বিশ্ব ইজতেমা স্থগিত

কুলাউড়ায় সুলতান মনসুরের বিপরীতে কে?

ঢাকার প্রচেষ্টা ব্যর্থ

নির্বাচন পেছাবে না ইসির সিদ্ধান্ত

ঝিনাইদহে ৩৭৪ মামলায় আসামি ৪১ হাজার

বিএনপি আবার আগুন সন্ত্রাস শুরু করেছে

বড় জয়ে সিরিজে সমতা

উত্তেজনায় ফুটছে বৃটিশ রাজনীতি, চার মন্ত্রীর পদত্যাগ