সিলেট থেকে ঐক্যফ্রন্টের মাঠের কর্মসূচি শুরু

প্রথম পাতা

স্টাফ রিপোর্টার | ১৭ অক্টোবর ২০১৮, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ২:৫৮
পবিত্র ভূমি সিলেট থেকে মাঠের কর্মসূচি শুরু করতে যাচ্ছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। আগামী ২৩শে অক্টোবর হযরত শাহজালাল (রহ.)-এর মাজার জিয়ারতের মাধ্যমে শীর্ষ নেতারা নতুন এ রাজনৈতিক জোটের ঐক্যবদ্ধ কর্মসূচি সূচনা করবেন। একই দিন সিলেটে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট আয়োজিত সমাবেশেও কেন্দ্রীয় নেতারা বক্তব্য রাখবেন। এছাড়া আগামীকাল সার্বিক রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিদেশি কূটনীতিকদের ব্রিফ করা হবে ফ্রন্টের তরফে। আত্মপ্রকাশের পর গতকাল প্রথম আনুষ্ঠানিক বৈঠকে নেতারা এসব সিদ্ধান্ত নেন। জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রবের উত্তরার বাসায় বৈঠকটি হয়। এতে ফ্রন্টের ভবিষ্যৎ কর্মসূচি ও করণীয় নিয়ে আলোচনা করেন নেতারা। কর্মসূচি চূড়ান্ত করা ও নীতি-নির্ধারণী কার্যক্রম পরিচালনায় পৃথক দু’টি স্টিয়ারিং কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বৈঠকে।
কর্মসূচি প্রণয়নে ফ্রন্টের শরিক বিএনপি, গণফোরাম, জেএসডি ও নাগরিক ঐক্যের দু’জন করে প্রতিনিধি নিয়ে একটি কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত হয়। এছাড়া নীতি নির্ধারণী কার্যক্রম পরিচালনায় শীর্ষ নেতাদের সমন্বয়ে আরেকটি কমিটি গঠন করার বিষয়ে একমত হন নেতারা। আজ বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশানের কার্যালয়ে ফের বৈঠকে বসবেন নেতারা। এ বৈঠকেই কমিটির সদস্যদের নাম চূড়ান্ত হতে পারে বলে ফ্রন্ট সূত্র জানিয়েছে।

বৈঠকে অংশ নেয়া নেতারা জানিয়েছেন, সিলেটের পর পর্যায়ক্রমে, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনাসহ সারা দেশের মহানগর ও জেলায় জেলায় কর্মসূচি পালন করা হবে। নিরপেক্ষ নির্বাচনের দাবিতে নেতৃবৃন্দ নানা কর্মসূচিতে চষে বেড়াবেন সারা দেশ।

বৈঠক শেষে আ স ম আবদুর রব সাংবাদিকদের বলেন, জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠা, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করার জন্য আমরা প্রথমে সিলেট সফরের মধ্য দিয়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের কর্মসূচি শুরুর সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সিলেটের জনসমাবেশের পর চট্টগ্রাম, রাজশাহীসহ সব বিভাগ ও মহানগর পর্যায়ে ধারাবাহিকভাবে কর্মসূচি দেয়া হবে। এছাড়া জেলা পর্যায়েও কর্মসূচি দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, আমাদের কর্মসূচিতে সরকার ও প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোনো ধরনের বাধা দেয়া হবে না। সেই আশা রাখি। সেই সঙ্গে সহযোগিতা চাই। পুলিশসহ সবার সহযোগিতা চাই। জনগণ তথা দেশবাসী জানতে চায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট সম্পর্কে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও গণতন্ত্রের পুনরুদ্ধারের জন্য সর্বোপরি জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে জাতীয় ঐক্য গঠিত হয়েছে। সে কারণেই লিয়াজোঁ কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত হয়েছে। এই কমিটি বিভিন্ন দলের সঙ্গে কথা বলে ঐক্য স্থাপনে কাজ করবে।

বেলা ১২টার পর ঐক্যফ্র্রন্টের বৈঠক শুরু হয়। এতে অংশ নেন বিএনপি, গণফোরাম, জেএসডি ও নাগরিক ঐক্যের নেতৃবৃন্দ। বৈঠকে আলোচনায় অংশ নেন বিএনপি মহাসচিব মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, জেএসডি সভাপতি আসম আবদুর রব, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেন, ঢাকসুর সাবেক ভিপি সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমেদ, গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসীন মন্টু, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, জেএসডির সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন, গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী, নাগরিক ঐক্যের সমন্বয়ক শহীদুল্লাহ কায়সার, সদস্য ড. জায়েদ, মোমিনুল ইসলাম প্রমুখ।

শনিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলন করে আত্মপ্রকাশ ঘটে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের। বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলতে সাত দফা ও ১১ লক্ষ্যের ভিত্তিতে এ ফ্রন্ট গঠিত হয়েছে। শুরুতে বিকল্প ধারা বাংলাদেশ এ ঐক্যের সঙ্গে থাকলেও দলটিকে বাদ দিয়েই ঐক্যফ্রন্ট যাত্রা শুরু করে। এর আগে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার ব্যানারে রাজধানীর মহানগর নাট্যমঞ্চে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বিএনপিসহ এ জোটের নেতারা বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য গড়ার ঘোষণা দেন।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

প্রধানমন্ত্রীর অনুষ্ঠানে ইসির অনাপত্তি, মুহিতকে নিষেধ

নির্বাচন পর্যবেক্ষকদের স্ট্যাটাস কী হবে জানতে চান কূটনীতিকরা

বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের উদ্বেগ

কারাগারে থেকে ভোটের প্রস্তুতি

শহিদুল আলমের জামিন

ধানের শীষে লড়বে ঐক্যফ্রন্ট

নিপুণ রায় চৌধুরী গ্রেপ্তার

আতঙ্ক উপেক্ষা করে পল্টনে ভিড়

বিশ্ব ইজতেমা স্থগিত

কুলাউড়ায় সুলতান মনসুরের বিপরীতে কে?

ঢাকার প্রচেষ্টা ব্যর্থ

নির্বাচন পেছাবে না ইসির সিদ্ধান্ত

ঝিনাইদহে ৩৭৪ মামলায় আসামি ৪১ হাজার

বিএনপি আবার আগুন সন্ত্রাস শুরু করেছে

বড় জয়ে সিরিজে সমতা

উত্তেজনায় ফুটছে বৃটিশ রাজনীতি, চার মন্ত্রীর পদত্যাগ