একটি প্রাইভেট কার এবং দুই কিলোমিটার যানজট

দেশ বিদেশ

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি | ১৩ অক্টোবর ২০১৮, শনিবার
চট্টগ্রাম মহানগরীর ব্যস্ততম জুবলী রোডে ‘নো পার্কিং’ সাইন লেখা জায়গায় প্রাইভেট কার রাখায় রাস্তার দু’পাশে দীর্ঘ দুই কিলোমিটার যানজট সৃষ্টি হয়।
বিষয়টি নজরে আসার পর যানজট কমাতে প্রাইভেটকারটি সরিয়ে নিতে বলায় ট্রাফিক পুলিশের এক কর্মকর্তাকে দু’হাত দেখালেন চট্টগ্রাম মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক রেখা আলম চৌধুরী।
সড়ক থেকে প্রাইভেটকার সরানো তো দূরের কথা ট্রাফিক পুলিশের ওই কর্মকর্তার সামনে প্রাইভেটকারটির উপর চড়-থাপ্পড় মেরে নিজের ক্ষমতার জানান দেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সাবেক এই প্যানেল মেয়র। আর সেই দৃশ্যটি ভিডিও করেন কোনো এক পথচারী।
ঘটনাটি বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে হলেও রাত ১০টার দিকে ভিডিও ক্লিপটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। আর মুহূর্তেই ভাইরাল হয়ে ওঠে সেটি। ওঠে সমালোচনার ঝড়।
ভিডিওতে দেখা যায়, ‘নো পার্কিং’ সাইন থাকা সত্ত্বেও সড়কের উপর প্রাইভেটকার রাখার কারণ জানতে চান কর্তব্যরত ট্রাফিক পুলিশের এক সার্জেন্ট। এ সময় তিনি মামলা দেয়ার চেষ্টা করেন।
আর তাতেই ক্ষিপ্ত হয়ে ট্রাফিক সার্জেন্টকে ধমক দিয়ে রেখা আলম চৌধুরী বলেন, জানেন আমি কে? আমি প্যানেল মেয়র রেখা আলম চৌধুরী। সম্মান দিয়ে দেখে-শুনে কথা বলবেন। তখন ট্রাফিক সার্জেন্ট বলেন, জনপ্রতিনিধিরাতো জনগণের ভোগান্তি সৃষ্টি করে না। ব্যস্ততম সড়কে গাড়ি পার্কিং করলেন কেন? সে সময়েও রেখা আলম চৌধুরী ক্ষিপ্ত হয়ে বলেন, যান গিয়ে বলুন, এটা প্যানেল মেয়র রেখা আলম চৌধুরীর গাড়ি।
ট্রাফিক সার্জেন্ট তখন বলেন, রাস্তার মাঝে গাড়ি রাখবেন। আবার সরিয়ে নিতে বললে চটে যাবেন। সড়ক তো শুধু আপনার না! তখন রেখা আলম বলেন, বললাম তো দোষ হলে গিয়ে বলুন, এটা প্যানেল মেয়র রেখা আলম চৌধুরীর গাড়ি। তখন সার্জেন্ট বলেন, না ম্যাডাম! সব দোষ আমার, কারণ ম্যাডাম আমি ইউনিফর্ম পরেছি! এ সময় এক পথচারীও জানতে চান রাস্তার উপর গাড়ি রেখে যানজট সৃষ্টি করেছেন কেন? তার উপরও ক্ষিপ্ত হয়ে রেখা আলম চৌধুরী বলেন, আপনি কে! কেন বলবো আপনাকে।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টা ২০ মিনিটের দিকে নগরীর অন্যতম জুবলী রোডে রিয়াজুদ্দীন বাজারের মধুবনের সামনে প্রাইভেট কার পার্কিং করেন রেখা আলম চৌধুরী। সেই কারণে পুরো সড়কের দুই দিকে শত শত যানবাহন আটকা পড়ে। যানজট নগরীর রিয়াজুদ্দীন বাজার থেকে নিউ মার্কেট মোড় এবং অপরদিকে লাভলেইন মোড় অতিক্রম করে। কারণ খুঁজতে গিয়ে সড়কের উপর পার্কিং করে রাখা সেই প্রাইভেটকারটি পান ট্রাফিক সার্জেন্ট। তিনি সেটি সরিয়ে নিতে বলতেই ছুটে আসেন রেখা আলম চৌধুরী। এ বিষয়ে জানার জন্য যোগাযোগ করা হলে সিএমপির কোতোয়ালি জোনের ট্রাফিক পরিদর্শক জাহাঙ্গীর বলেন, বিষয়টি আমি শুনেছি। ভদ্রমহিলা গাড়িটি নো পার্কিংয়ের স্থানে রেখে মার্কেটে গেছেন। কর্তব্যরত ট্রাফিক সার্জেন্ট গাড়িটি সেখান থেকে সরাতে বললে ওই মহিলা উত্তেজিত হয়ে ট্রাফিক সার্জেন্টের সঙ্গে খারাপ আচরণ করেছেন। পরে বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষে জানানো হয়েছে। চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের প্রচার সমপাদক ফারুক আহমেদ এ প্রসঙ্গে বলেন, রেখা আলম চৌধুরী চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের কোনো পদে নেই। তবে মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সমপাদক পদে আছেন। তিনি একজন সাবেক জনপ্রতিনিধি। অবৈধ গাড়ি পার্কিং করার পরও কর্তব্যরত পুলিশ সার্জেন্টের সঙ্গে তিনি যেভাবে খারাপ আচরণ করেছেন তা সমীচীন হয়নি। এ ব্যাপারে জানতে রেখা আলম চৌধুরীর মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন করা হয়েছে। কিন্তু সংযোগ বন্ধ থাকায় তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন