গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ে যা বলা হয়েছে

অনলাইন

অনলাইন ডেস্ক | ১০ অক্টোবর ২০১৮, বুধবার, ২:৩১ | সর্বশেষ আপডেট: ৩:০০
২১ শে আগস্ট হামলা মামলার রায়ে সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, আব্দুস সালাম পিন্টুসহ ১৯ আসামীকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এছাড়া বিএনপির ভারপ্রাপ্ত ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান, হারিছ চৌধুরী, কায়কোবাদসহ ১৯ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। এছাড়া ১১ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেয়া হয়েছে। ঢাকার ১ নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিন চার পৃষ্টার এ সংক্ষিপ্ত রায় ঘোষণা করেন আজ। আলোচিত এই রায়ে যা বলা হয়েছে তা নিম্নে উল্লেখ করা হলো-

রায়ে যা আছে
অত্র মোকদ্দমার আসামী আলহাজ্ব মাওলানা মো. তাজউদ্দিন (পলাতক), মাওলানা শেখ আবদুস সালাম (উপস্থিত), মো. আবদুল মাজেদ ভাট @ মো. ইউসুফ ভাট (উপস্থিত), আবদুল মালেক @ গোলাম মোহাম্মদ @ জি.এম (উপস্থিত), মাওলানা শওকত ওসমান @ শেখ ফরিদ (উপস্থিত), মহিবুল্লাহ ওরফে মফিজুর রহমার ওরফে অভি (উপস্থিত), মাওলানা আবু সাঈদ ওরফে ডা. জাফর (উপস্থিত), আবুল কালাম আজাদ ওরফে বুলবুল (উপস্থিত), মো. জাহাঙ্গীর আলম (উপস্থিত),  হাফেজ মাওলানা আবু তাহের (উপস্থিত), হোসাইন আহম্মেদ তামিম (উপস্থিত), মঈন উদ্দিন শেখ ওরফে মুফতি মঈন ওরফে খাজা ওরফে আবু জানদাল ওরফে মাসুম বিল্লাহ (উপস্থিত), মো. রফিকুল ইসলাম ওরফে সবুজ ওরফে খালিদ সাইফুল্লাহ ওরফে শামিম ওরফে রাশেদ (উপস্থিত), মো. উজ্জল ওরফে রতন (উপস্থিত), মো. লুৎফুজ্জামান বাবর (উপস্থিত), মেজর জেনারেল (অব.) রেজ্জাকুল হায়দার চৌধুরী (উপস্থিত), বিগ্রেডিয়ার জেনারেল আবদুর রহিম (উপস্থিত), মো. আবদুস সালাম পিন্টু (উপস্থিত), মো. হানিফ (মালিক হানিফ পরিবহন) (উপস্থিত) গণের বিরুদ্ধে গ্রেনেড নিক্ষেপ ও বিস্ফোরণ ঘটিয়ে এবং উক্ত অপরাধে সহায়তা করে অত্র মোকদ্দমার নিহতগণকে হত্যা করার অভিযোগে ১৯০৮ সালের বিস্ফোরক দ্রব্যাদি আইন (সংশোধনী-২০০২)-এর ৩ ও ৬ ধারায় দোষী সাব্যস্তক্রমে মহামান্য হাইকোর্ট বিভাগের অনুমোদন সাপেক্ষে প্রত্যেককে মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত করা হলো এবং প্রত্যেককে ১,০০,০০০/- (এক লক্ষ) টাকা জরিমানা প্রদান করা হলো। মৃত্যু না হওয়া পর্যন্ত আসামীদের গলায় ফাঁসি দিয়ে ঝুলিয়ে রাখার নির্দেশ প্রদান করা হলো।
অত্র মোকদ্দমার আসামী শাহাদাৎ উল্লাহ ওরফে জুয়েল (উপস্থিত), মাওলানা আ. রউফ @ আবু হোমাইরা @ পীর সাহেব (উপস্থিত), মাওলানা সাব্বির আহমেদ ওরফে আবদুল হান্নান সাব্বির (উপস্থিত), আরিফ হাসান ওরফে সুমন ওরফে আবদুর রাজ্জাক (উপস্থিত), হাফেজ মাওলানা ইয়াহিয়া (উপস্থিত), আবু বকর ওরফে হাফেজ সেলিম হাওলাদার (উপস্থিত), মো. আরিফুল ইসলাম ওরফে আরিফ (উপস্থিত), মহিবুল মুস্তাকিন ওরফে মুত্তাকিন (পলাতক), আনিসুল মুরছালিন ওরফে মুরছালিন (পলাতক), মো. খলিল (পলাতক), জাহাঙ্গীর আলম বদর (পলাতক), মো. ইকবাল (পলাতক), লিটন ওরফে মাওলানা লিটন (পলাতক), তারেক রহমান ওরফে তারেক জিয়া (পলাতক), হারিছ চৌধুরী (পলাতক), কাজী শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন কায়কোবাদ (পলাতক), মুফতি শফিকুর রহমান (পলাতক), মুফতি আবদুল হাই (পলাতক), রাতুল আহমেদ বাবু ওরফে রাতুল বাবু (পলাতক) গণের বিরুদ্ধে গ্রেনেড নিক্ষেপ ও বিস্ফোরণ ঘটিয়ে এবং উক্ত অপরাধে সহায়তা করে অত্র মোকদ্দমার নিহতগণকে হত্যা করার অভিযোগে ১৯০৮ সালের বিস্ফোরক দ্রব্যাদি আইন (সংশোধনী-২০০২)-এর ৩ ও ৬ ধারায় দোষী সাব্যস্তক্রমে প্রত্যেককে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড ও প্রত্যেককে ৫০,০০০/- (পঞ্চাশ হাজার) টাকা জরিমানা প্রদান করা হলো। জরিমানা অনাদায়ে আরোও এক বৎসরের সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত করা হলো।
অত্র মোকদ্দমার আসামী আলহাজ্ব মাওলানা মো. তাজউদ্দিন (পলাতক), মাওলানা শেখ আবদুস সালাম (উপস্থিত), মো. আবদুল মাজেদ ভাট @ মো. ইউসুফ ভাট (উপস্থিত), আবদুল মালেক @ গোলাম মোহাম্মদ @ জি.এম (উপস্থিত), মাওলানা শওকত ওসমান @ শেখ ফরিদ (উপস্থিত), মহিবুল্লাহ ওরফে মফিজুর রহমার ওরফে অভি (উপস্থিত), মাওলানা আবু সাঈদ ওরফে ডা. জাফর (উপস্থিত), আবুল কালাম আজাদ ওরফে বুলবুল (উপস্থিত), মো. জাহাঙ্গীর আলম (উপস্থিত),  হাফেজ মাওলানা আবু তাহের (উপস্থিত), হোসাইন আহম্মেদ তামিম (উপস্থিত), মঈন উদ্দিন শেখ ওরফে মুফতি মঈন ওরফে খাজা ওরফে আবু জানদাল ওরফে মাসুম বিল্লাহ (উপস্থিত), মো. রফিকুল ইসলাম ওরফে সবুজ ওরফে খালিদ সাইফুল্লাহ ওরফে শামিম ওরফে রাশেদ (উপস্থিত), মো. উজ্জল ওরফে রতন (উপস্থিত), মো. লুৎফুজ্জামান বাবর (উপস্থিত), মেজর জেনারেল (অব.) রেজ্জাকুল হায়দার চৌধুরী (উপস্থিত), বিগ্রেডিয়ার জেনারেল আবদুর রহিম (উপস্থিত), মো. আবদুস সালাম পিন্টু (উপস্থিত), মো. হানিফ (মালিক হানিফ পরিবহন) উপস্থিত গণের বিরুদ্ধে অত্র মোকদ্দমার জখম প্রাপ্ত ভিকটিমগণকে অভিন্ন অভিপ্রায় পরিকল্পনা ও অপরাধমূলক ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে গুরুতর জখম করার অভিযোগে ১৯০৮ সালের বিস্ফোরক দ্রব্যাদি আইন (সংশোধনী-২০০২)-এর ৪ ও ৬ ধারায় দোষী সাব্যস্তক্রমে প্রত্যেককে ২০ (বিশ) বৎসরের সশ্রম কারাদণ্ড ও প্রত্যেককে ৫০,০০০/- (পঞ্চাশ হাজার) টাকা জরিমানা প্রদান করা হলো। জরিমানা অনাদায়ে আরও এক বৎসরের সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত করা হলো।
অত্র মোকদ্দমার আসামী শাহাদাৎ উল্লাহ ওরফে জুয়েল (উপস্থিত), মাওলানা আ. রউফ @ আবু হোমাইরা @ পীর সাহেব (উপস্থিত), মাওলানা সাব্বির আহমেদ ওরফে আবদুল হান্নান সাব্বির (উপস্থিত), আরিফ হাসান ওরফে সুমন ওরফে আবদুর রাজ্জাক (উপস্থিত), হাফেজ মাওলানা ইয়াহিয়া (উপস্থিত), আবু বকর ওরফে হাফেজ সেলিম হাওলাদার (উপস্থিত), মো. আরিফুল ইসলাম ওরফে আরিফ (উপস্থিত), মহিবুল মুস্তাকিন ওরফে মুত্তাকিন (পলাতক), আনিসুল মুরছালিন ওরফে মুরছালিন (পলাতক), মো. খলিল (পলাতক), জাহাঙ্গীর আলম বদর (পলাতক), মো. ইকবাল (পলাতক), লিটন ওরফে মাওলানা লিটন (পলাতক), তারেক রহমান ওরফে তারেক জিয়া (পলাতক), হারিছ চৌধুরী (পলাতক), কাজী শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন কায়কোবাদ (পলাতক), মুফতি শফিকুর রহমান (পলাতক), মুফতি আবদুল হাই (পলাতক), রাতুল আহমেদ বাবু ওরফে রাতুল বাবু (পলাতক) গণের বিরুদ্ধে অত্র মোকদ্দমার জখমপ্রাপ্ত ভিকটিমগণকে অভিন্ন অভিপ্রায়ে পরিকল্পনা ও অপরাধমূলক ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে গুরুতর জখম করার অভিযোগে ১৯০৮ সালের বিস্ফোরক দ্রব্যাদি আইন (সংশোধনী-২০০২)-এর ৪ ও ৬ ধারায় দোষী সাব্যস্তক্রমে প্রত্যেককে ২০ (বিশ) বৎসরের সশ্রম কারাদণ্ড ও প্রত্যেককে ৫০,০০০/- (পঞ্চাশ হাজার) টাকা জরিমানা প্রদান করা হলো।
জরিমানা অনাদায়ে আরো এক বৎসরের সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত করা হলো।
মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামীদের মহামান্য হাইকোর্ট ডিভিশনের অনুমোদন সাপেক্ষে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হলে প্রদত্ত ২০ (বিশ) বছর কারাদণ্ডদেশ কার্যকর হবে না। একইভাবে ১৯০৮ সালের বিস্ফোরক দ্রব্যাদি আইন (সংশোধনী-২০০২)-এর ৩ ও ৬ এবং ৪ ও ৬ উভয় ধারায় আসামীগণকে প্রদত্ত যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ২০ বছরের কারাদণ্ড একযোগে কার্যকর হবে।
দণ্ডপ্রাপ্ত আসামীদের হাজত বাসকাল ফৌজদারী কার্যবিধির ৩৫এ ধারানুসারে প্রদত্ত দণ্ডাদেশ থেকে বাদ যাবে মর্মে আদেশ প্রদান করা হলো। দণ্ডাদেশ প্রাপ্ত আসামীদের বিরুদ্ধে সাজা পরোয়ানা ও দন্ডাদেশপ্রাপ্ত পলাতক আসামদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা ইস্যু করা হোক। পলাতক আসামীগণের গ্রেফতার বা আত্মসমর্পণের দিন থেকে প্রদত্ত দণ্ডাদেশ কার্যকর হবে। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামীগণ ইচ্ছা করলে অত্র রায়ের বিরুদ্ধে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল আইন-২০০২-এর ১৪ ধারানুসারে মহামান্য হাইকোর্ট ডিভিশন ৩০ (ত্রিশ) দিনের মধ্যে আপীল দায়ের করতে পারবেন। জব্দকৃত আলমত পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত সংরক্ষণ করার নির্দেশ দেয়া হলো।
অত্র মোকদ্দমার সমস্ত প্রসিডিংস ফৌজদারী কার্যবিধির ৩৭৪ ধারানুসারে মহামান্য সুপ্রীমকোর্টের বিভাগে প্রেরণ করা হোক।
অত্রাদেশের অনুলিপি বিজ্ঞ চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট, ঢাকা, সিনিয়র জেল সুপার ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার, কেরানীগঞ্জ এবং ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, মালখানা, সিএমএম কোর্ট, ঢাকা বরারবর প্রেরণ করা হোক।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

morshed

২০১৮-১০-১০ ০৩:২৫:১২

রাজনৈতিক সকল রায় আসে গণভবন থেকে - এস কে সিনহা

আপনার মতামত দিন

দু’নম্বর শীর্ষকর্তার ক্ষমতা কেড়ে নিলেন এক নম্বর কর্তা

সংসদে কতটা বিরোধী দল হতে পেরেছে জাতীয় পার্টি ?

অডিও ক্লিপ সরকারের ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ফসল: দুদু

কোটা আন্দোলনকারীদের ওপর আবারো ছাত্রলীগের হামলা, আহত ৪

দুর্গা পূজা কার্নিভালে বৈভব ও বৈচিত্র্যের প্রদর্শনী

সড়ক দুর্ঘটনা জাতীয় সমৃদ্ধির পথে বড় অন্তরায়: এমাজউদ্দিন

প্রতিটি জেলখানায় কোর্টরুম রাখার নির্দেশ

অব্যাহতি পেলেন সেলিম ওসমান

১০০ প্রধান শিক্ষককে শোকজ নোটিশ

বিএনপি নেতা শামীম ও বক্কর এক দিনের রিমান্ডে

কংগ্রেস রাহুল গান্ধীকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তুলে ধরছে না

সৌদি সম্মেলনের ওয়েবসাইট হ্যাকড

সেপ্টেম্বরে খাসোগি হত্যার নীলনকশা করা হয়- এরদোগান

ফের ব্রেক্সিট গণভোটের দাবিতে লন্ডনে সাড়ে ৬ লাখ মানুষের বিক্ষোভ

ঢাবির ‘ঘ’ ইউনিটে ফের পরীক্ষা

হাটহাজারীতে হঠাৎ ট্রাফিক পুলিশের কর্মবিরতি