‘সেমিফাইনালে’ চনমনে বাংলাদেশ

প্রথম পাতা

ইশতিয়াক পারভেজ | ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ১১:৪৬
এশিয়া কাপে বাংলাদেশের আক্ষেপের নাম যেন ‘পাকিস্তান’। দলটির বিপক্ষে এখন পর্যন্ত এশিয়ার শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ে জয়ের মুখ দেখেনি টাইগাররা। সেই ১৯৮৬ থেকে শুরু, এরপর কেটে গেছে ৩২ বছর। এখন পর্যন্ত ১২ বারের দেখায় পাকিস্তানের সঙ্গে লড়াইয়ে বদলায়নি হার আর যন্ত্রণার চিত্র। এর মধ্যে সবচেয়ে বড় আক্ষেপ হয়ে আছে ২০১২তে নিজ দেশের মাটিতে এশিয়া কাপের ফাইনাল। তবে আজ ফের সুযোগ এসেছে ইতিহাস বদলানোর। সংযুক্ত আরব আমিরাতে এশিয়া কাপের সুপার ফোরের লড়াইয়ে মুখোমুখি হবে দুই দল। যেখানে পাকিস্তানের জন্য শুধু ফাইনালে যাওয়ার লড়াই সেখানে বাংলাদেশ ফাইনালে যাওয়ার সঙ্গে মুক্তি মিলবে তিন যুগের যন্ত্রণা থেকেও।

অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা এশিয়া কাপ শুরুর আগেই বলেছিলেন প্রতিটি ধাপই তাদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জের। প্রথম রাউন্ডের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে উঠেছেন সুপার ফোরে। এরপর টানা দুই ম্যাচ হারের পরেও তিনি ছিলেন অবিচল। তিনি জোরালো কণ্ঠেই বলেছিলেন ‘বাংলাদেশের ফাইনাল খেলা সম্ভব’। শেষ ম্যাচে আফগানদের হারিয়ে সেই পথও তৈরি করেছে তার দল। এবার পাকিস্তানকে হারাতে পারলেই ধরা দিবে ফাইনালও। তবে মাশরাফিই নয় গোটা বাংলাদেশের ক্রিকেট ভক্তদের একটাই চাওয়া জ্বলে উঠুক টাইগারদের টপ অর্ডার। আজ আবু ধাবিতে বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে পাঁচটায় অলিখিত সেমি ফাইনালে মুখোমুখি হবে দুই দল।

বাংলাদেশের জন্য পাকিস্তান সবসময়ই ছিল কঠিন প্রতিপক্ষ। এখন পর্যন্ত দুই দল আন্তর্জাতিক ওয়ানডেতে মুখোমুখি হয়েছে ৩৫ বার। যেখানে টাইগারদের প্রথম জয় আসে ১৯৯৯ এ। তবে এরপর কেটে গেছে ১৬ বছর। সব শেষ ২০১৫ তে দুই দলের দেখা হয়েছিল দ্বিপক্ষীয় ওয়ানডে সিরিজে। সেখানে ইতিহাস বদলে দিয়েছিল মাশরাফি বিন মুর্তজার দল। পাকিস্তানের সঙ্গে জয়েই ফিরেনি তিন ম্যাচের সিরিজে হোয়াইটওয়াশের রেকর্ডও গড়ে। এরপর গেল তিন বছরে ওয়ানডে ক্রিকেটে আর দুই দলের মুখোমুখি হয়নি। তিন বছর আগের সুখ স্মৃতিও বাংলাদেশের জন্য হবে অন্যতম অনুপ্রেরণা। কিন্তু সেই সিরিজে দারুণ করেছিল বাংলাদেশের টপ অর্ডার। তামিম ইকবালম, সৌম্য সরকার, মুশফিকুর রহীমদের ব্যাট থেকে এসেছিল সেঞ্চুরি। বোলাররও ছিলেন দারুণ উজ্জ্বল। তবে এবার এশিয়া কাপে টপ অর্ডার নিয়ে দারুণ ভাবে ভোগাচ্ছে দল। তামিম ইনজুরিতে ছিটকে পড়ায় ওপেনিং নিয়ে চিন্তায় টাইগারদের টিম ম্যানেজম্যান্ট। তার পরিবর্তে দলে ওপেনিং দায়িত্ব পাওয়া তরুণ নাজমুল হোসেন শান্ত তিন ম্যাচে দুই কোনো ইনিংসেই অঙ্ক ছুঁতে পারেননি। লিটন কুমার দাস প্রথম তিন ম্যাচেও একই অবস্থায় ছিলেন। অবশেষে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ৪১ রান করেন। যা ছিল তার ১৫ ম্যাচের ওয়ানডে ক্যারিয়ারে সর্বোচ্চ সংগ্রহ। তাই আজ ওপেনিং নিয়ে থাকছে সবচেয়ে বড় চিন্তা। এ ছাড়াও সাকিব আল হাসান, মুশফিকের ইনজুরিও দলের চিন্তার কারণ।

পাকিস্তান এখন পর্যন্তু এশিয়া কাপে জিতেছে মাত্র ২ ম্যাচে। প্রথমটি হংকংয়ের বিপক্ষে। পরেরটি আফগানদের বিপক্ষে তাও কঠিন লড়াই করে। এ ছাড়াও তাদের চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের বিপক্ষে হেরেছে টানা দুই ম্যাচে। যে কারণে পাকিস্তানের কোচ মিকি অর্থারও দারুণ চিন্তায়। এরই মধ্যে তিনি অকপটে জানিয়েছেন বাংলাদেশের সঙ্গে ম্যাচের আগে পাকিস্তান শিবিরে আছে ভয়ও। যেখানে পাকিস্তানের তুলনাতে বাংলাদেশই এগিয়ে থাকবে দারুণ ভাবে। কিন্তু এর পরও যত ভয় বাংলাদেশের ব্যাটিং নিয়ে। তাই এই ম্যাচে একাদশ কেমন হবে তা নিয়ে রয়েছে নানা জল্পনা-কল্পনা।
আজ পাকিস্তানের বিপক্ষে ওপেনিংয়ে থাকবে কারা! লিটন দাস শেষ ম্যাচে ৪১ রানের সুবাদে হয়তো টিকে যাবেন। কিন্তু শান্তর না থাকা অনেকটাই নিশ্চিত। তার পরিবর্তে এশিয়া কাপের মাঝেই উড়ে যাওয়া সৌম্য সরকার খেলতে পারেন বলেই জানা গেছে। এর কারণও আছে, সব শেষ পাকিস্তানের বিপক্ষে সৌম্যের ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরিটি এসেছে। সেবার তিনি করেছিলেন ১১০ বলে ১২৭ রান। এরপর শেষ ম্যাচে সাকিবের পরিবর্তে ওয়ান ডাউনে মোহাম্মদ মিঠুনকে খেলানো হয়েছে। কিন্তু প্রথম ম্যাচে ৬৩ হাঁকানো মিঠুন ব্যর্থ হয়েছেন।

তাই এখানে খেলানো হতে পারে ইমরুল কায়েসকে। যদিও হঠাৎ করে এশিয়া কাপে ডাক পেয়ে ইমরুল নিজের প্রথম ম্যাচে মাঠে নেমেছিলেন ৬ এ। তবে সেটি পরিস্থিতির কারণেই ছিল। সাকিব আল হাসান বল হাতে এখন পর্যন্ত দারুণ করলেও ভুগছেন রান খরাতে। যদিও পাকিস্তানের বিপক্ষে তার ব্যাট থেকে বড় ইনিংস আসবে এটাই আশা দলের। এ ছাড়াও প্রথম ম্যাচে সেঞ্চুরি হাঁকানো মুশফিকুর রহিম মিডল অর্ডারে থাকবে বড় ভরসা হয়ে। লোয়ার মিডল অর্ডারে ছন্দে ফিরেছেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। শেষ ম্যাচে আফগানদের বিপক্ষে তার ৭৪ রানের ইনিংস দলকে শুধু জয়ই এনে দেয়নি বাঁচিয়ে রেখেছিল এশিয়া কাপে টিকে থাকার স্বপ্নও।

বোলিং নিয়ে খুব একটা চিন্তা নেই দলের। মাশরাফির সঙ্গে পেস আক্রমণে মোস্তাফিজ থাকবেন। আফগানদের শেষ ওভারে দলে জয় এনে দেয়া মোস্তাফিজ পাকিস্তানের জন্য আরেক অতঙ্কের নাম। এ ছাড়াও স্পিনে নাজমুল অপু হবেন সাকিবের সঙ্গী। নিজের অভিষেক ম্যাচে উইকেট না পেলেও আফগানদের নিজের বোলিংয়ে দারুণভাবে বেঁধে রেখেছিলেন। এ ছাড়াও তরুণ অফ স্পিনার মিরাজের এশিয়া কাপে ব্যাটে বলে প্রমাণ রেখেছেন। তাই তার উপর টিম ম্যানেজম্যান্টের ভরসাও দারুণ। ব্যাটিং-বোলিং ও ফিল্ডিং সব বিভাগে সেরাটা দিতে পারলে বাংলাদেশ বদলাতে পারবে পাকিস্তানের বিপক্ষে এশিয়া কাপের ইতিহাস।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

এবার মালিবাগে পুলিশকে লক্ষ্য করে হামলা

বগুড়ায় নুরের ওপর হামলা

ধানের দাম নেই, চালে ছাড় নেই

বৃষ্টিতেও দৃঢ় মনোবল টাইগারদের

খালেদার মামলায় আদালত স্থানান্তরের বৈধতা নিয়ে রিট

তরুণ সাংবাদিক ফাগুনের লাশ উদ্ধারের ঘটনায় হত্যা মামলা

ট্রাভেল পারমিটে কড়াকড়ি জটিলতার আশঙ্কা

গতবছর ফেসবুকের কাছে ১৯৫ ব্যবহারকারীর তথ্য চেয়েছিল বাংলাদেশ

রঙ লাগিয়ে ঈদে সড়কে নামছে লক্করঝক্কড় বাস

তারেকের স্মৃতি হাতড়ে ফেরেন নুরুন নাহার

রাজাকারদের তালিকা সংরক্ষণের সুপারিশ

মামলার আগেই গ্রেপ্তার, শাহপরাণে তোলপাড়

ইতালিতে প্রদর্শিত হলো ড. ইউনূসের জীবনীভিত্তিক অপেরা

৩০শে মে সন্ধ্যায় শপথ নেবেন মোদি

পদত্যাগ করলেন মহারাষ্ট্র কংগ্রেস প্রধান

চিকিৎসকদের আরো দায়িত্বশীল হওয়ার আহ্বান ডা. এ আর খানের