রাষ্ট্রক্ষমতা দখলে রাখার মাস্টারপ্ল্যান বাস্তবায়নে এগোচ্ছে সরকার: ফখরুল

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার | ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বৃহস্পতিবার, ৭:২৬
বাম গণতান্ত্রিক জোটের মিছিলে পুলিশী লাঠিচার্জের প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। গতকাল গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি এ প্রতিবাদ জানিয়েছেন। বিবৃতিতে তিনি বলেন, আওয়ামী সরকারের জুলুমে সারাদেশের মানুষ আজ দিশেহারা হয়ে গেছে। এদেশে কারো কোন অধিকার নেই, মনে হয় সব অধিকার কেবলমাত্র আওয়ামী লীগের।

বিএনপিসহ বিরোধী দলগুলোর কেবল সভা-সমাবেশই নয়, শান্তিপূর্ণ মানববন্ধন কিংবা ঘরোয়া কোন কর্মসূচিতেও প্রচন্ড বাধা দিয়ে পন্ড করছে বর্তমান সরকারের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। বেপরোয়া আইনশৃঙ্খলা বাহিনী লাঠিচার্জ, টিয়ার শেল ও গরম পানি নিক্ষেপ এবং গুলিবর্ষণ করে বর্তমান গণবিরোধী ও ভোটারবিহীন সরকারের ভয়াবহ দুঃশাসন ও নির্যাতন নিপীড়ণের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী আন্দোলনকারিদের ক্ষতবিক্ষত করছে। তিনি বলেন, হত্যা, গুম, ক্রসফায়ারের হিড়িক লেগেই আছে। বাম গণতান্ত্রিক জোটের মিছিলের ওপর পুলিশের বর্বর হামলায় এটাই প্রমানিত হলো যে, সরকার আবারও ৫ জানুয়ারীর মতো আগামী জাতীয় নির্বাচন একতরফাভাবে অনুষ্ঠানের মাধ্যমে জোর করে রাষ্ট্রক্ষমতা দখলে রাখার মাস্টারপ্ল্যান বাস্তবায়নে এগিয়ে যাচ্ছে।

কিন্তু জনগণ সরকারের কোন অশুভ পরিকল্পনাই বাস্তবায়িত হতে দেবে না।
মির্জা আলমগীর বলেন, আমি বাম গণতান্ত্রিক জোটের শান্তিপূর্ণ মিছিলের ওপর পুলিশী হামলা ও নেতাকর্মীদেরকে গুরুতর আহত করার ঘটনায় নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। আহতদের আশু সুস্থতা কামনা করছি। উল্লেখ্য, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে গণতান্ত্রিক পরিবেশ নিশ্চিত করতে তফসিল ঘোষণার আগে সংসদ ভেঙ্গে দিয়ে ‘নিরপেক্ষ তদারকি সরকার’ গঠনের মাধ্যমে নির্বাচন অনুষ্ঠানসহ ১০ দফা দাবি নিয়ে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ করে। পরে মিছিল নিয়ে নির্বাচন কার্যালয় অভিমূখে রওয়ানা দিয়ে কারওয়ান বাজারের সার্ক ফোয়ারার কাছে পৌঁছলে পুলিশ বিনা উস্কানিতে মিছিলের ওপর চড়াও হয় এবং নির্মমভাবে লাঠিচার্জ করে। পুলিশী হামলায় জোটের সমন্বয়ক ও বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি সাইফুল হক, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি ও সিপিবির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য লুনা নূরসহ অনেক নেতাকর্মী আহত হন। এদিকে অপর এক বিবৃতিতে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি’র সভাপতি হাবিব-উন নবী খান সোহেলকে গ্রেপ্তারের পর ৫ দিনের পুলিশী রিমান্ডে নেয়ার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বিবৃতিতে তিনি বলেন, আগামী জাতীয় নির্বাচনের জন্য বিএনপিকে কাঁটা ভেবে দলের সিনিয়র নেতৃবৃন্দসহ সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীকে গণহারে গ্রেপ্তারে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে বর্তমান জনসমর্থনহীন আওয়ামী লীগ সরকার। আর সেটিরই শিকার হয়েছেন হাবিব-উন নবী খান সোহেল। তিনি সোহেলের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত সকল মামলা প্রত্যাহার, রিমান্ড বাতিল ও নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান। এছাড়া বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানীর বাসভবনে সরকার সমর্থকদের হামলা ও ব্যাপক ভাংচুরের ঘটনার প্রতিবাদ জানান।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Md kalam

২০১৮-০৯-২০ ০৯:১৬:৫৮

100% rait

আপনার মতামত দিন

দেশের স্বার্থে নতুন মেরূকরণ হতে পারে

এমপিদের লাগাম টানছে না ইসি

স্টিয়ারিং কমিটিতে যারা থাকছেন

এনডিআই-এর নির্বাচনী ২০ দফা

সিলেটে একদিন পিছিয়েও সমাবেশের অনুমতি পায়নি ঐক্যফ্রন্ট

জাপার দুর্গে আওয়ামী লীগের দৃষ্টি

শিক্ষকদের সহযোগিতা চাইলেন প্রধানমন্ত্রী

সৌদি আরবে শঙ্কায় লাখ লাখ বাংলাদেশি শ্রমিক

তিন জেলায় বন্দুকযুদ্ধে নিহত ৪

তিনদিনের সফরে ঢাকায় এলিস ওয়েলস

টাঙ্গাইলে দীপু মনির জনসভা বাতিল, উত্তেজনা

খাসোগি হত্যার দায় স্বীকার সৌদির

ল্যান্ডমার্ক ম্যাচে মাশরাফিদের অন্য ‘লড়াই’

জাতীয় আইনজীবী ঐক্যফ্রন্ট ঘোষণা

‘ক্ষমতায় গেলে ৭ দিনের মধ্যে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল’

‘ঐক্যফ্রন্ট নিয়ে ভয় পাওয়ার কিছু নেই’