চীন থেকে বাংলাদেশ হয়ে কলকাতায় বুলেট ট্রেন

শেষের পাতা

মানবজমিন ডেস্ক | ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ১০:৩৫
চীনের কুনমিং থেকে বাংলাদেশ ও মিয়ানমার হয়ে ভারতের কলকাতা পর্যন্ত বুলেট ট্রেন সেবা চালু করার বিষয়ে চীনের আগ্রহের কথা জানিয়েছেন কলকাতায় দেশটির কনসাল জেনারেল মা ঝানু। বুধবার এক সম্মেলনে তিনি বলেন, ভারত ও চীন যৌথভাবে উদ্যোগ নিলে, কুনমিং ও কলকাতার মধ্যে উচ্চগতির ট্রেন সংযোগ স্থাপন করা সম্ভব। এ খবর দিয়েছে এনডিটিভি।

সম্মেলনে মা ঝানু বলেন, ‘বুলেট ট্রেন প্রকল্প যদি বাস্তবে রূপ দেয়া যায়, তাহলে কলকাতা থেকে কুনমিংয়ে যেতে সময় লাগবে মাত্র কয়েক ঘণ্টা।’ এই প্রকল্প থেকে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারও লাভবান হবে বলে তার মত।

তিনি বলেন, এই পথ ধরে নানা ধরনের শিল্প গড়ে উঠতে পারে। ফলে ২৮০০ কিলোমিটার দীর্ঘ এই প্রকল্পে জড়িত দেশগুলোর অর্থনৈতিক উন্নয়নের সম্ভাবনাও বৃদ্ধি পাবে। ২০১৫ সালে বৃহত্তর মেকং উপ-অঞ্চল সম্মেলনেও এই প্রকল্পের প্রসঙ্গ ওঠে বলে জানান তিনি।

মা ঝানু আরও বলেন, বাংলাদেশ, চীন, ভারত ও মিয়ানমার করিডোরে বাণিজ্য বৃদ্ধিই এই প্রকল্পের উদ্দেশ্য। তিনি আরও যোগ করেন, প্রাচীন আমলের সিল্ক রোড পুনরুজ্জীবিত করে কুনমিং থেকে কলকাতার মধ্যে সংযোগ বৃদ্ধি করতে চায় চীন।।




এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

পাঁচ জেলা থেকেই সেসময় ভারতে আশ্রয় নিয়েছিল ২৯,৯০০ জন

ব্রীজের নিচে চাপা পড়ে মা-মেয়ের মৃত্যু

সামনের চাকা ছাড়া যেভাবে অবতরণ করল ইউএস বাংলার উড়োজাহাজ (ভিডিও)

শনিবারের জনসভায় ভবিষ্যত কর্মপন্থা জানাবে বিএনপি: মির্জা ফখরুল

চলতি অর্থবছর জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৭.৫ শতাংশ হওয়ার পূর্বাভাস এডিবির

রায়ের তারিখ ধার্যের আবেদন দুদক আইনজীবীর, আদেশ রোববার

সাতক্ষীরায় চাঞ্চল্যকর কলেজ ছাত্র হত্যা মামলায় চার আসামিকে ফাঁসির আদেশ

ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনটি উদ্বেগজনক পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে

সাংবাদিক শহিদুল আলমের মুক্তি দাবিতে জাতিসংঘের বাইরে বিক্ষোভ বৃহস্পতিবার

গাংনীতে শিশু ধর্ষণের অভিযোগে আটক ১, শাস্তির দাবীতে মানববন্ধন

কুষ্টিয়ায় স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামীর ফাঁসির আদেশ

বাংলাদেশ জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে সংস্কারকে গুরুত্ব দিচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

বেনজির ভুট্টোর সম্পদ কে কত পেয়েছেন

শাহজালালে বিপুল পরিমাণ বিদেশি সিগারেট আটক

জাতিসংঘে ট্রাম্পের অতিকথন, হাসলেন শ্রোতারা (ভিডিওসহ)

জলবায়ু পরিবর্তনে ঝুঁকিতে বাংলাদেশের ১৩ কোটি মানুষ: বিশ্বব্যাংক