প্রথমবারের মতো নকআউট পর্বে ওঠার সুযোগ বাংলাদেশের

খেলা

স্পোর্টস রিপোর্টার | ১৮ আগস্ট ২০১৮, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১১:২৬
একের পর এক হার ও বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) নেতিবাচক নানা সংবাদে হতাশার অন্ধকারে ডুবে আছে দেশের ফুটবল। নারী ফুটবল দল কক্ষপথে থাকলেও একেবারে লাইনচ্যুত ছিল পুরুষ ফুটবল দল। দক্ষিণ এশিয়ান ফুটবল প্রতিযোগিতা সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের শেষ তিন আসরে গ্রুপ পর্ব থেকেই বিদায় নেয় বাংলাদেশ। সঙ্গে যোগ হয় এশিয়ান কাপ বাছাই পর্বে ভুটানের কাছে হারের লজ্জা। বাফুফে কর্তাদের অন্তর্দ্বন্দ্বটাও প্রকাশ পায় জনসম্মুখে। সহ-সভাপতি বাদল রায় ও সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগের দ্বন্দ্ব গড়ায় মামলা পর্যন্ত। তবে দেয়ালে পিঠ ঠেকা অবস্থায় ঘুরে দাঁড়ানোর সাহস দেখাচ্ছেন কিছু তরুণ ফুটবলার। যাদের হাত ধরেই ভারতের বিপক্ষে ৩-০ গোলে পিছিয়ে পড়ে অবিশ্বাস জয় এসেছিলো ভুটানে।
জাকার্তা এশিয়ান গেমসে শক্তিশালী থাইল্যান্ডের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র নিয়ে মাঠ ছাড়ে সেই তরুণরাই। ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে ৭২ ধাপ এগিয়ে থাকা থাইল্যান্ডের সঙ্গে এই ড্র তো বাংলাদেশের জন্য অনেকটা জয়ের সমানই আত্মবিশ্বাস জাগানিয়া ফল। এই তরুণদের সামনে এবার এশিয়ান গেমসের নকআউট পর্বে ওঠার হাতছানি। আগামীকাল কাতারের বিপক্ষে অন্তত ড্র করতে পারলেই প্রথমবারেরমতো এশিয়ান গেমসের শেষ ষোলোর টিকিট পাবে বাংলাদেশ।
এবারের এশিয়ান গেমসে ২৬টি দল ছয় গ্রুপে ভাগ হয়ে অংশ নিচ্ছে। যেখানে ছয় গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন ও রানার্সআপরা সরাসরি চলে যাবে নকআউট পর্বে। ১২ দলের সঙ্গী হবে ছয় গ্রুপের সেরা তৃতীয় স্থান পাওয়া চার দল। ‘বি’ গ্রুপে বাংলাদেশকে ৩-০ এবং কাতারকে ৬-০ গোলে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে নকআউট পর্ব নিশ্চিত করেছে উজবেকিস্তান। এই গ্রুপে রানার্সআপ হয়ে পরবর্তী রাউন্ডে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে বাংলাদেশ ও থাইল্যান্ডের। দুই ম্যাচে বাংলাদেশের পয়েন্ট ১ ও থাইল্যান্ডের ২। আগামীকাল গ্রুপ পর্বে উজবেকিস্তানের সঙ্গে শেষ ম্যাচ খেলবে থাইল্যান্ড। ওইদিনই বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ কাতার। বাংলাদেশ যদি কাতারকে হারাতে পারে, আর থাইল্যান্ড যদি উজবেকিস্তানের কাছে হেরে যায় সেক্ষেত্রে তিন ম্যাচে চার পয়েন্ট নিয়ে প্রথমবারেরমতো এশিয়াডের শেষ ষোলোর টিকেট পাবে লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা। থাইল্যান্ড ড্র করলেও সমস্যা হবে না বাংলাদেশের। তবে দু’টি ম্যাচই যদি অমীমাংসিতভাবে শেষ হয় সেক্ষেত্রে গ্রুপ রানার্সআপ হিসেবে নকআউট পর্বে উঠবে থাইল্যান্ড। বাংলাদেশের অপেক্ষায় থাকতে হবে গ্রুপের সেরা তিন হিসেবে নকআউট পর্বে ওঠার।
সাম্প্রতিক সময়ে কাতারের মলিন পারফরমেন্সই স্বপ্ন দেখাচ্ছে বাংলাদেশকে। যেখানে উজবেকিস্তানের কাছে ৩-০ গোলে হেরেছে সুফিল-জাফররা। সেখানে কাতার হেরেছে ৬-০ গোলে। থাইল্যান্ডের সঙ্গে কাতারের ম্যাচটি ড্র হয়েছে ১-১ গোলে। কাতারের দুই ম্যাচের ভিডিও দেখে তাদের হারানোর স্বপ্ন দেখছেন বাংলাদেশের বৃটিশ কোচ জেমি ডে। মুঠোফোনে দলের ম্যানেজার সত্যজিত দাস রূপু বলেন, কোচ তো আশাবাদী। থাইল্যান্ডের সঙ্গে আমরা যেমন খেলেছি। তাতে কাতারকে হারানোর কথা বলতেই পারি। তবে এই ম্যাচে আমাদের আরো সতর্ক থাকতে হবে। বিশেষ করে রক্ষণে আমরা ওইদিন যে ভুল করেছি, তার পুনরাবৃত্তি ঘটানো যাবে না। রূপু বলেন, বেশ কিছুদিন ধরে কোচ খেলোয়াড়দের মানসিকতা নিয়ে কাজ করেছেন। তার প্রমাণ পাওয়া যাচ্ছে। কাতার ম্যাচে এই মানসিকতাই হবে আমাদের সবচেয়ে বড় শক্তি। থাইল্যান্ডের বিপক্ষে গোল পেয়েছে সুফিল। গোল করে যে আনন্দ পেয়েছে সে তার চেয়ে তাকে বেশি পোড়াচ্ছে দু’টি গোল মিস করায়।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

আমানুল্লাহ কবীর আর নেই

ব্রেক্সিটে তেরেসার হার কী ঘটবে বিলেতে

কিলিংমিশনে অংশ নেয়া আসাদুল্লাহ গ্রেপ্তার

টিআইবি’র রিপোর্টের কড়া সমালোচনায় মন্ত্রীরা

ধর্ষিতার কান্না বললেন, আমি বিচার চাই

রাতের ‘আতঙ্ক’

কাভার্ডভ্যানের চাপায় একটি স্বপ্নের মৃত্যু

অনলাইনে বাড়ছে মানবজমিন-এর জনপ্রিয়তা

বিনিয়োগ শিল্পোদ্যোক্তা বাড়ানোই লক্ষ্য

টিআইবির প্রতিবেদন সিইসির প্রত্যাখ্যান

সীমান্ত দিয়ে ঢুকছে মাদক, অস্ত্র, জড়িত শতাধিক সিন্ডিকেট

শ্রমিক অসন্তোষে ১২ মামলায় গ্রেপ্তার ৪৪

যেভাবে তৈরি হবে আবেদনকারীর ফলাফল

হাসি ফিরলো শাহনাজের

কূটনীতিকদের মুখোমুখি হচ্ছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

এমপিদের শপথের বৈধতা রিটের আদেশ আজ