‘পাতানো নির্বাচনের পরিকল্পনা কোনোদিন সফল হবে না’

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার | ২০ জুলাই ২০১৮, শুক্রবার, ৪:৪৪
সরকার বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে বন্দি রেখে একটি পাতানো নির্বাচন করার কৌশল নিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান। তিনি বলেছেন, দেশে যদি একটি সুষ্ঠু নির্বাচন হয় এবং সেই নির্বাচনে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে যদি বিএনপি অংশ নেয় তাহলে আওয়ামী লীগ জিততে পারবেনা। খালেদা জিয়াকে বন্দি রেখে নির্বাচন সরকারের পাতানো নির্বাচন করার পরিকল্পনা কোনদিনই সফল হবে না। আজ শুক্রবার নয়াপল্টনে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে তিনি এ কথা বলেন। নেতাকর্মীদের উদ্দেশে মঈন খান বলেন, আসুন আমরা ঐক্যবদ্ধ হই। এই সরকারের অত্যাচারের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মাধ্যমে দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় সরকারকে উৎখাত করে বাংলাদেশ পুনরায় বহুদলীয় গণতন্ত্র কায়েম করি। দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে আমরা মুক্ত করব। তাকে চতুর্থবারের মতো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নির্বাচন করবো ইনশাআল্লাহ।

শুক্রবার বিকেল ৩টার দিকে এ সমাবেশ শুরু হয়।
মঞ্চে উপস্থিত আছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ভাইস চেয়ারম্যান নিতাই রায় চৌধুরী, সেলিমা রহমান, উপদেষ্টা জয়নুল আবদিন ফারুক, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সেক্রেটারি কাজী আবুল বাশার, আব্দুস সালাম আজাদ, আমিরুল ইসলাম আলীমসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা। সমাবেশে সভাপতিত্ব করছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

এমন নির্বাচন হওয়া উচিত যাতে বৈধতার সংকট থেকে শাসনব্যবস্থা মুক্ত হয়

সেপ্টেম্বরে খাসোগি হত্যার নীলনকশা তৈরি হয়

খালেদা জিয়ার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড চায় দুদক

মানহানির মামলায় মইনুল হোসেন কারাগারে

মইনুলকে গ্রেপ্তার জরুরি ছিল- কাদের

ঢাবি’র ‘ঘ’ ইউনিটের উত্তীর্ণদের নিয়ে আবার পরীক্ষা

সরকারের সাম্প্রতিক পদক্ষেপে ড. কামালের উদ্বেগ

সেলিম ওসমানকে অব্যাহতি

কোটা আন্দোলনের চার নেতাকে ছাত্রলীগের মারধর

জয়-পরাজয়ে অন্তরায় কোন্দল

পার্বত্য অঞ্চলের শান্তিতে হুমকি ৯৬৯-এর তৎপরতা

সিলেটে রাতে ধরপাকড়ের অভিযোগ

সিলেটে মাজার জিয়ারতে ঐক্যফ্রন্টের নেতারা ( ভিডিও)

এবার মোবাইল অ্যাপ দেবে অ্যাম্বুলেন্সের সন্ধান

মধ্যরাতে তরুণীর সঙ্গে পুলিশের অশোভন আচরণ ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ

সৌদিতে ‘যৌনদাসী’ হিসেবে বিক্রি হচ্ছে বাংলাদেশি নারীরা