তীব্র বিতর্কে পর বিল পাস

পুরো জেরুজালেম ইসরাইলের রাজধানী

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ১৯ জুলাই ২০১৮, বৃহস্পতিবার
বহুল বিতর্কিত একটি বিলকে আইনে পরিণত করেছে ইসরাইলি পার্লামেন্ট। এতে ইসরাইলকে একটি ব্যতিক্রমী ইহুদি রাষ্ট্র বলে বর্ণনা করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার পার্লামেন্ট ‘জিউস নেশন স্টেট’ বিলটিকে অনুমোদন করে। এতে সরকারি ভাষা হিসেবে আরবিকে অবনমন করা হয়। এতে আরো বলা হয়, অগ্রগামী ইহুদি বসতি স্থাপন হলো জাতীয় স্বার্থ। শুধু তা-ই নয়, একই সঙ্গে পুরো জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে এই বিলে। এমন ঘটনায় তীব্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে ইসরাইলি আরব এমপিদের মধ্যে। তারা এর তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন।
কিন্তু তাদের মন্তব্যের কোনো তোয়াক্কাই করেন নি ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। তিনি এ সময়টিকে আত্মপরিচয়ের মুহূর্ত বলে অভিহিত করেছেন। এ বিলটিতে সমর্থন দিয়েছে দেশটির ডানপন্থি সরকার। এতে বলা হয়েছে, ইসরাইল হলো ইহুদিদের ঐতিহাসিক জন্মভূমি। এর ভিতরে তাদের আত্মপরিচয় নির্ধারণের বিশেষ অধিকার আছে। ইসরাইলের পার্লামেন্ট নেসেটে এ বিল নিয়ে ঝড়ো বিতর্ক হয়। আট ঘন্টারও বেশি সময় এ বিতর্ক হলেও বিরুদ্ধে যারা ছিলেন তারা বিলটিকে আটকাতে পারেন নি। বিলের পক্ষে ভোট দিয়েছেন ৬২ জন এমপি। আর বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছেন ৫৫ জন। ফলে বিলটি আইনে পরিণত হয়েছে। তবে ইসরাইলি প্রেসিডেন্ট এবং এটর্নি জেনারেলের আপত্তির কারণে ওই বিল থেকে কিছু অংশ বাদ দেয়া হয়েছে। উল্লেখ্য, ইসরাইলে মোট জনসংখ্যা প্রায় ৯০ লাখ। এর মধ্যে শতকরা প্রায় ২০ ভাগ হলেন ইসরাইলি আরব। এই আইনের অধীনে তাদেরও আছে সম অধিকার। কিন্তু এ সম্প্রদায়টি দীর্ঘদিন ধরে অভিযোগ করছেন যে, তাদের সঙ্গে দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিকের মতো আচরণ করা হয়। তারা বৈষম্যের শিকার। শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও গৃহায়নের বেলায় তাদের জন্য সেবার সুযোগ খুবই নাজুক। এ বিলের মধ্যে গণতন্ত্রের মৃত্যু হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন আরব এমপি আহমেদ তিবি। আরব অধিকার বিষয়ক বেসরকারি সংগঠন আদালাহ বলেছে, এই আইনের লক্ষ্য হলো বর্ণবাদী নীতিকে অনুমোদন দিয়ে জাতিগত প্রাধান্য বিস্তার। গত সপ্তাহে এ আইনের পক্ষে কথা বলেছেন বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। তিনি বলেছেন, ইসরাইলের গণতন্ত্রে আমরা নাগরিক অধিকার নিশ্চিত করবো।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

এমন নির্বাচন হওয়া উচিত যাতে বৈধতার সংকট থেকে শাসনব্যবস্থা মুক্ত হয়

সেপ্টেম্বরে খাসোগি হত্যার নীলনকশা তৈরি হয়

খালেদা জিয়ার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড চায় দুদক

মানহানির মামলায় মইনুল হোসেন কারাগারে

মইনুলকে গ্রেপ্তার জরুরি ছিল- কাদের

ঢাবি’র ‘ঘ’ ইউনিটের উত্তীর্ণদের নিয়ে আবার পরীক্ষা

সরকারের সাম্প্রতিক পদক্ষেপে ড. কামালের উদ্বেগ

সেলিম ওসমানকে অব্যাহতি

কোটা আন্দোলনের চার নেতাকে ছাত্রলীগের মারধর

জয়-পরাজয়ে অন্তরায় কোন্দল

পার্বত্য অঞ্চলের শান্তিতে হুমকি ৯৬৯-এর তৎপরতা

সিলেটে রাতে ধরপাকড়ের অভিযোগ

সিলেটে মাজার জিয়ারতে ঐক্যফ্রন্টের নেতারা ( ভিডিও)

এবার মোবাইল অ্যাপ দেবে অ্যাম্বুলেন্সের সন্ধান

মধ্যরাতে তরুণীর সঙ্গে পুলিশের অশোভন আচরণ ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ

সৌদিতে ‘যৌনদাসী’ হিসেবে বিক্রি হচ্ছে বাংলাদেশি নারীরা