মাঠ গুছিয়ে এনেছে বড় দুই দল

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার, বরিশাল থেকে | ১৯ জুলাই ২০১৮, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১১:১২
নির্বাচনের সময় যতই এগিয়ে আসছে প্রচার-প্রচারণা ততই চালিয়ে যাচ্ছে বড় দুই দল। আওয়ামী লীগ ও বিএনপির কেন্দ্রীয়  নেতারা প্রকাশ্যে মাঠে রয়েছেন। সাজাচ্ছেন নির্বাচনী কৌশল। অপর দিকে এখন পর্যন্ত জাতীয় পার্টির কোনো কেন্দ্রীয় নেতাকে বরিশালে দেখা যায় নি। বাম দলের দু’জন প্রার্থী থাকায় তারাও এখন বিভক্ত।

গতকাল সকাল থেকেই মাঠে নামেন ঢাকা থেকে আসা বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম ও মীর্জা আব্বাস, কেন্দ্রীয় নেতা মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল সহ স্থানীয় নেতাকর্মীরা। সরোয়ারকে সঙ্গে নিয়ে ধানের শীষের প্রচারণা শুরু হয় চানমারী এলাকায়। কয়েক শ’ কর্মী নিয়ে কেন্দ্রীয় নেতাদের প্রচারণায় আশাবাদী হয়ে উঠছেন নেতাকর্মীরা। প্রতিদিনই কর্মীদের অংশগ্রহণ বাড়ছে। গত রাতে সদর রোডে বের হয় বিএনপির ধানের শীষের পক্ষে মিছিল। মিছিলে প্রায় অর্ধ সহস্রাধিক নেতাকর্মী অংশ নেয়।

এদিকে বিএনপি মেয়র প্রার্থী মজিবর রহমান সরোয়ার নির্বাচনী প্রচারণার সময় নগরীর প্রধান সমস্যা জলাবদ্ধতা দূরীকরণে খাল খনন, কর্মসংস্থানের ব্যবস্থার কথা উল্লেখ করেছেন। গতকাল সকাল থেকেই আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ মেডিকেল এলাকায় গণ-সংযোগে অংশ নেন। এর পর মেডিকেলের কর্মকর্তা কর্মচারীদের সঙ্গে সৌজন্যমূলক সাক্ষাৎ ও সভা করেন। তিনি এ সময় নৌকার পক্ষে ভোট প্রার্থনা করে নানা উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দেন। আওয়ামী লীগের প্রার্থী সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ বলেছেন, সরকার বরাদ্দ দেয়ার পরও বরিশাল সিটি করপোরেশনে বিগত পাঁচ বছরে তেমন কোনো উন্নয়ন হয়নি।

তিনি বর্ধিত এলাকার উন্নয়নের পাশাপাশি জলাবদ্ধতা, বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থাসহ নানা উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের কথা বলছেন।
প্রথম দিকে আলোচনায় থাকা বাসদের প্রার্থী ডা. মনিষা চক্রবর্তীর সঙ্গে নেতা-কর্মীদের সংখ্যাও দিন দিন কমে আসছে। গতকাল তিনি কাউনিয়া এলাকায় নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করলেও তার সঙ্গে ৮-১০ জন নেতা কর্মীকে দেখা গেছে। অপর দিকে ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী মাওলানা ওবায়েদুর রহমান সম্প্রতি এক বিবৃতিতে ঘোষণা দিয়েছিলেন তার সঙ্গে এক বৈঠকে বরিশালের ইমাম সমাজ তাকে সমর্থন দিয়েছে। এর প্রতিবাদ জানিয়ে বরিশাল ইমাম সমিতি দাবি করেছে এমন কোনো প্রতিশ্রুতি তাকে দেয়া হয়নি। তার সঙ্গে নির্বাচন নিয়ে কোনো বৈঠকও হয়নি।

বরিশালে নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা শুরুর পর থেকেই আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে এখন পর্যন্ত তেমন কোনো অভিযোগ উঠেনি। বড় দুই দলই সমান তালে প্রচারণায় অংশ নিচ্ছে। কোনো অপ্রীতিকর  ঘটনারও সংবাদ মেলেনি। বিভিন্ন ওয়ার্ডে পুলিশের সতর্ক প্রহরা ছিল উল্লেখযোগ্য।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

ছাত্রদলের উপর হামলায় ফখরুলের নিন্দা

ট্রাম্পের সঙ্গে ইমরান খানের বৈঠক আজ

এবার ময়লা ছুঁড়ার জবাব গোলে দিলেন নেইমার

নায়িকার সঙ্গে আড্ডা

ইয়াবাসহ আওয়ামী লীগ নেতার পুত্র গ্রেপ্তার

‘অভিযান নিয়ে যেন আতঙ্ক না ছড়ায়’

‘অনেকেই গা ঢাকা দিয়েছে, অনেককেই নজরদারিতে রাখা হয়েছে’

মোদির বিরুদ্ধে পররাষ্ট্রনীতি লঙ্ঘনের অভিযোগ

‘নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় আটক দু’ভাই জেএমবি’র সদস্য’

ম্যাসেজ পার্লারে আলো-আঁধারের আড়ালে

ছবিতে এমি অ্যাওয়ার্ডস

শামীমের টাকার ভাগ পেতেন প্রভাবশালী কয়েক নেতা

বন্ধ হয়ে গেল ১৭৮ বছরের প্রতিষ্ঠান থমাস কুক

যুক্তরাষ্ট্রে বিরল সংবর্ধনায় একে অন্যের প্রশংসায় পঞ্চমুখ মোদি-ট্রাম্প

ভারতে দেহব্যবসায় বাধ্য করানো ৮ বাংলাদেশী যুবতীকে উদ্ধার

বাংলাদেশ সফরে ভারতীয় নৌবাহিনী প্রধান