চাকরি লাগবে না ছেলের মুক্তি চাই

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার | ১১ জুলাই ২০১৮, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ১২:০১
‘মা, তুমি সংবাদ সম্মেলন করে প্রধানমন্ত্রীকে বলো, আমাকে যাতে না মারে। আর রিমান্ডে না নেয়। আমাকে যাতে মুক্তি দেয়। আমরা সাধারণ ছাত্র। কোনো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যুক্ত না। আমি সরকারের বিপক্ষে নই।
রাষ্ট্রবিরোধী কোনো  কাজ করিনি। আমরা কোটার বিরুদ্ধে আন্দোলন করিনি। কোটা সংস্কার করে তা কমানোর জন্য যৌক্তিক আন্দোলন করেছি। কোনো অন্যায় করিনি। পুলিশের হাতে রিমান্ডে থাকা কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা রাশেদ খান তার মায়ের কাছে এমন আকুতি জানিয়েছেন। ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের কার্যালয় থেকে বের হওয়ার পথে রাশেদ তার মাকে এসব কথা বলেন বলে গতকাল সংবাদ সম্মেলনে দাবি করেছেন তার মা সালেহা বেগম। ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশন কার্যালয়ে গতকাল এ সংবাদ সম্মেলনে রাশেদ খানের স্ত্রী ও ছোট বোনও উপস্থিত ছিলেন।  চলমান কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদকে গ্রেপ্তারের পর দুই দফা রিমান্ডে নেয় পুলিশ। গত মঙ্গলবার সকালে মিন্টু রোডের ডিবি কার্যালয় থেকে বের করে তাকে হাতকড়া পরিহিত অবস্থায় হাঁটিয়ে ডিএমপি কার্যালয়ের দিকে নেয়ার সময় অপেক্ষায় থাকা মা, স্ত্রী ও বোনের সঙ্গে কয়েক মিনিটের সাক্ষাতে রাশেদ এসব কথা জানায় বলে তারা জানান।

এ সময় রাশেদের মা সালেহা বলেন, আমি অন্যের ঘরে কাজ করে আমার মনি (রাশেদ)কে মানুষ করছি। আমার মনি সাধারণ স্টুডেন্ট। আমি আর তার চাকরি চাই না। বৃদ্ধ বয়সে কাজ করে আমি তাকে খাওয়াব। আমার সন্তানের চেহারা কেমন যেন হয়ে গেছে। তার মুক্তি চাই। মুক্তি পেলে আমরা আর তাকে আন্দোলনে যেতে দেব না। সে শুধু পরীক্ষা দিয়ে চলে আসবে।
প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে তিনি আরো বলেন, তিনিও তো মা। তার দু’সন্তান। তিনি আমারও মা। দেশের মা। তার কাছে আমার সন্তানের মুক্তি চাই।

সংবাদ সম্মেলনে রাশেদের স্ত্রী রাবেয়া আলো বলেন, গ্রেপ্তারের পর থেকে আমরা তার সন্ধানে পথে পথে ঘুরেছি। কয়েক দিন ধরে ডিবি কার্যালয়ের সামনে গিয়ে রাস্তায় অধীর আগ্রহে বসে থেকেছি। এত দিন তার সঙ্গে দেখা হয়নি। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টার পর দুই ডিবি সদস্য তাকে হ্যান্ডকাপ পরা অবস্থায় বের করে রাস্তা দিয়ে হাঁটিয়ে নেয়ার সময় দেখা হয়। তাকে ডিএমপি কার্যালয়ের দিকে নেয়া হয়। আমরা এগিয়ে যেতেই সে মাকে উদ্দেশ্য করে এসব কথা বলে।
তিনি আরো বলেন, তার শারীরিক অবস্থা ভালো না। তার সঙ্গে খুব খারাপ কিছু হচ্ছে। আমার শ্বশুরবাড়ির লোকজন রাজনীতির সঙ্গে জড়িত না। রাশেদও রাজনীতি করে না। সাধারণ স্টুডেন্টের প্লাটফর্ম থেকে আন্দোলন করেছে। এটাকে এখন বিভিন্নভাবে প্রবাহিত করার চেষ্টা করা হচ্ছে। আমিও সাধারণ স্টুডেন্টস। সারা দিন টিউশনি করে পার করি। সে মুক্তি পেলে তাকে আমরা আর আন্দোলনে যেতে দেব না।

রাশেদের ছোট বোন মোসাম্মাৎ সোনিয়া খাতুন বলেন, রাশেদ রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিল কি না তা আপনারা আমাদের গ্রামের স্থানীয় মেম্বার-চেয়ারম্যানের সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ করে জেনে নিতে পারেন। আমরা আর কিছু চাই না। তার মুক্তি চাই।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

রাকিব

২০১৮-০৭-১২ ০৯:৫৬:৪১

ইনশাআল্লাহ!! সুযোগ পেলে জনগন এর সুবিচার অবশ্যই করবে

আপনার মতামত দিন