অচিরেই রোহিঙ্গা প্রত্যাবর্তন শুরু হচ্ছে

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ৯ জুলাই ২০১৮, সোমবার | সর্বশেষ আপডেট: ৩:০৯
মিয়ানমার, বাংলাদেশ, জাতিসংঘের দুটি এজেন্সির মধ্যে সম্পাদিত চুক্তির অধীনে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া কয়েক লাখ রোহিঙ্গার প্রত্যাবর্তন প্রক্রিয়া শুরু হচ্ছে অচিরেই। এরই মধ্যে এ বিষয়ে কার্যক্রম শুরু হয়েছে। রাখাইনের ইউনিয়ন এন্টারপ্রাইজ ফর হিউম্যানিটারিয়ান এসিসট্যান্স, রিসেটেলমেন্ট অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (ইউইএইচআরডি) রোববার এমনটা দাবি করেছে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন মিয়ানমার টাইমস। ইউইএইচআরডির ভাইস চেয়ার ইউ উইন মিয়াত আই বলেছেন, প্রত্যাবর্তন প্রক্রিয়া হাতে নেয়া হয়েছে। পুনর্বাসন বিষয়ে শিগগিরই জাতিসংঘের এজেন্সিগুলোর সঙ্গে চূড়ান্ত ও বিস্তারিতভাবে জানাবে মিয়ানমার সরকার। তিনি বলেন, আমরা এ নিয়ে জাতিসংঘের এজেন্সি ও অন্য পক্ষগুলোর সঙ্গে চূড়ান্ত আলোচনা করবো। এর মধ্যে থাকবে স্থানীয় বিভিন্ন গ্রুপ।
শিগগিরই শুরু হবে পুনর্বাসন প্রক্রিয়া। আমরা আশা করি পরিকল্পনা একবার চূড়ান্ত হয়ে গেলে প্রত্যাবর্তন শুরু হবে। উল্লেখ্য, মিয়ানমার ও বাংলাদেশ গত নভেম্বরে প্রত্যাবর্তন বিষয়ক একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত করে। মিয়ানমার থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া প্রায় ৭ লাখ মুসলিমকে রাখাইনে ফিরিয়ে নেয়ার বিষয়ে এই চুক্তি হয়। আরাকান রোহিঙ্গা সালভেশন আর্মি (আরসা) মিয়ানমারের নিরাপত্তা রক্ষাকারীদের ওপর আক্রমণ চালিয়ে তাদের কয়েকজন সদস্যকে হত্যা করে। এরপরই সেনাবাহিনী ও তার দোসররা মিলে রোহিঙ্গাদের ওপর নৃশংস নির্যাতন চালানো শুরু করে। এর ফলে বাধ্য হয়ে আগস্টের পরে পালিয়ে বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিতে বাধ্য হন প্রায় ৭ লাখ রোহিঙ্গা। এ নিয়ে অনেক দেনদরবার হয় আন্তর্জাতিক দুনিয়ায়। কেড়ে নেয়া হয় অং সান সুচিকে দেয়া সম্মাননা পদক। গত মাসে জাতিসংঘের দুটি এজেন্সির সঙ্গে সমঝোতা স্বারক স্বাক্ষর করে মিয়ানমার। তবে ইউ ইউন মিয়াত আই শিগগিরই রোহিঙ্গা প্রত্যাবর্তন শুরু হবে বলে মন্তব্য করলেও তিনি সুনির্দিষ্ট কোনো তারিখ জানাতে পারেন নি। বলতে পারেন নি কবে নাগাদ তা হতে পারে। তিনি বলেছেন, দ্রুততার সঙ্গে প্রত্যাবর্তন শুরু করার জন্য আমরা সব পক্ষের সঙ্গে এক সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছি। তিনি আরো যোগ করেন, মিয়ানমার ও বাংলাদেশের মধ্যে জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপের তৃতীয় বৈঠকও শিগগিরই হতে যাচ্ছে। এর পরই প্রত্যাবর্তন প্রক্রিয়া দ্রুততর হবে। এর আগে ৮০২৩ জন রোহিঙ্গাকে মিয়ানমারে ফেরত পাঠানোর জন্য তাদের নামের তালিকা দেয় বাংলাদেশ। তা যাচাই বাছাই করে মিয়ানমার জানায়, ওই তালিকায় যেসব মানুষের নাম রয়েছে তাদের পূর্ণাঙ্গ রেকর্ড নেই তাতে। যার ওপর ভিত্তি করে বলা যায় যে, তারা রাখাইনের উত্তরাঞ্চলের বাসিন্দা ছিলেন।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

বইটি তিনি এসময় প্রকাশ না করলেও পারতেন

দেশবাসীর প্রতি অঙ্গীকার ঘোষণা আসছে শনিবারের সমাবেশে

‘ভুয়া প্রার্থী তালিকা প্রকাশে ইন্ধন দিচ্ছে সরকারী এজেন্সিগুলো’

আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে তিনজন গুলিবিদ্ধ

খালেদার অনুপস্থিতিতে বিচার কাজ বেআইনি : ফখরুল

জাতিসংঘের অধিবেশনে যোগ দিতে ঢাকা ছাড়লেন প্রধানমন্ত্রী

বেনাপোল সীমান্ত থেকে বিপুল পরিমান অস্ত্র ও মাদকদ্রব্য উদ্ধার

‘শুরু থেকেই চাপ ছিল, আমি যেন বলি অসুস্থ’

চট্টগ্রাম সরকারি কলেজ প্রকাশ্যে অস্ত্রধারী সেই ছাত্রলীগ নেতা গ্রেপ্তার

যুক্তরাষ্ট্রে নারী বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ৩

ব্রিজের নিচ থেকে অজ্ঞাত যুবকের লাশ উদ্ধার

৭ দাবি ও ১২ লক্ষ্য চূড়ান্ত করেছে বিএনপি

দুর্বৃত্তের গুলিতে দুই ইউপিডিএফ কর্মী নিহত

তারা কেন এত উদ্বিগ্ন হয়ে উঠছেন?

দৃশ্যপটে বৃহত্তর জোট এক মঞ্চে উঠছেন বিরোধী নেতারা

সিনহার বই নিয়ে বাহাস